1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বিদেশিরা কাজ করেন, আর দেশিরা...

ঢাকায় কয়েকজন বিদেশি তরুণ-তরুণী রাস্তা পরিষ্কার করে সবার নজর কেড়েছেন৷ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে এই নিয়ে অনেকে ঢাকার মেয়রের সমালোচনা করেছেন, অনেকে আবার পুরো জাতিকেই দিয়েছেন ধিক্কার৷

ঢাকা নগরীকে পরিচ্ছন্ন নগরী বলার দিন বহু আগেই ফুরিয়েছে৷ বসবাসের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে খারাপ শহরগুলোর তালিকায় প্রথম দিকেই থাকে এ শহরের নাম

কিন্তু এ শহরেই থাকেন অনেক বিদেশি৷ নিজের দেশে তাঁদের অনেকেই পরিচ্ছন্ন শহরে বসবাস করেই অভ্যস্ত৷ ঢাকা শহরের বসবাস তাঁদের জন্য যে খুব কষ্টকর, তা সহজেই অনুমান করা যায়৷ এমন কয়েকজন বিদেশিই ঢাকার রাজপথ পরিষ্কার করতে নেমেছিলেন৷ তাঁদের এ উদ্দোগে প্রথম থেকেই দর্শকের অভাব হয়নি৷

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমেও সবাই ব্যস্ত হয়েছে বিষয়টি নিয়ে৷ টুইটারে বিদেশিদের নিজ হাতে ঢাকার নোংরা রাস্তা পরিষ্কার করার ভিডিও শেয়ার করেছেন অনেকে৷

জাতীয় দৈনিকে ছাপা হয়েছে ছবি৷

শুরুতে বিদেশিরা যখন রাস্তা পরিষ্কার করছিলেন, সেখানে উপস্থিত বাংলাদেশিরা তখন শুধু দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখেছেন৷ কেউ কেউ ছবিও তুলেছেন৷ টুইটারে এই দর্শক এবং ফটোগ্রাফারদের কটাক্ষ করেছেন অনেকেই৷

অনেকে আবার সিটি কর্পোরেশনের সমালোচনা করেছেন৷ তাঁদের মতে, ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের লজ্জা হওয়া উচিত৷

কিন্তু গণমাধ্যম এ বিষয়ে প্রশ্ন করেছিল ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হককে ৷ বিবিসিকে তিনি জানান, বিদেশিরা রাস্তা পরিষ্কার করতে নামায় তাঁর কোনো ধরণের লজ্জা বা অস্বস্তি অস্বস্তি হয়নি৷ তিনি বলেছেন, ‘‘মেয়র হিসেবে এই উদ্যোগের ব্যাপারে কোনো নেতিবাচক মন্তব্য আমি করবো না৷ যিনি বা যাঁরা কাজটি করছেন, ভালোর জন্যই করছেন৷'' আনিসুল হক আরো বলেন, বিদেশিদের এই উদ্যোগ থেকে সবার অনেক কিছু শেখার আছে৷ তাঁর মতে, ‘‘এদেরকে দেখে যদি এমন সচেতনতা আসে যে আমরা আমাদের জায়গা অপরিষ্কার করবো না, তাহলে একটা বিরাট কাজ হবে৷''

টুইটারে কয়েকজন ‘পরিবর্তন সম্ভব' বলেও আশা প্রকাশ করেছেন৷

অনেকে চেয়েছেন পরিচ্ছন্নতা অভিযানে ভূমিকা রাখতে৷

তবে অনেকে ঢাকার রাজপথে বিদেশিদের এই পরিচ্ছন্নতা অভিযানে অভিনবত্ব দেখছেন না৷ তাঁদের কেউ কেউ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যে বেশ আগেই ‘স্বচ্ছ ভারত' ক্যাম্পেইন শুরু করেছিলেন, সে কাথ মনে করিয়ে দিয়েছেন৷

সংকলন: আশীষ চক্রবর্ত্তী

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন