1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

তুরস্ক

বিচারের মুখোমুখি তুর্কি সংবাদপত্র জুমহুরিয়েত

জঙ্গি সংগঠনকে সমর্থন করাসহ নানা অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি হচ্ছেন তুর্কি সংবাদপত্র জুমহুরিয়েতের কর্মীরা৷ বিশ্লেষকরা বলছেন, এই মামলাটিই দেশটির বিচারব্যবস্থার বর্তমান পরিস্থিতির পরিচয়৷

বড় ধরনের সাজা পেতে যাচ্ছেন জুমহুরিয়েতের সংবাদকর্মীরা৷ সোমবার থেকে শুরু হওয়া এই মামলায় অভিযুক্তরা সাড়ে সাত বছর থেকে শুরু করে ৪৩ বছরের কারাদণ্ড পেতে পারেন৷ তবে ঠিক কী অভিযোগ আনা হয়েছে তাঁদের বিরুদ্দে, তা এখনও স্পষ্ট নয়৷

দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তাসংস্থা আনাদলু জানিয়েছে, পত্রিকাটির ১৭ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ‘জঙ্গি গোষ্ঠিকে সমর্থনের' অভিযোগ আনা হয়েছে৷ ফেতুল্লাহ গুলেনের সমর্থকদের সহায়তা এবং নিষিদ্ধ ঘোষিত কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টি-পিকেকের সাথে ঘনিষ্ঠতার অভিযোগও করা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে৷

তবে ঠিক কী প্রমাণের ভিত্তিতে এ ধরনের অভিযোগ আনা হয়েছে, কী ধরনের সমর্থনের অভিযোগ আনা হয়েছে, সে বিষয়ে কিছু জানায়নি আনাদলু৷

জুমহুরিয়েতের সাংবাদিক আহমেত সিক গত বছর ডিসেম্বরে গ্রেপ্তার হন৷ তার টুইটার অ্যাকাউন্টের বিভিন্ন পোস্টের সূত্র ধরেই তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানায় পাবলিক প্রসিকিউটর অফিস৷

আনাদলু জানিয়েছিল, টুইটার পোস্ট এবং দৈনিক জুমহুরিয়েতে সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে সিক ‘তুরস্ক প্রজাতন্ত্র এবং এর বিচার ব্যবস্থা, সেনাবাহিনী ও নিরাপত্তা বাহিনীকে' হেয় করেছেন৷ ‘একটি জঙ্গি সংগঠনের' হয়ে প্রপাগান্ডা ছড়ানোরও অভিযোগ ছিল তাঁর বিরুদ্ধে৷

Cumhuriyet Türkei Prozess (picture-alliance/dpa/L. Pitarakis)

জুমহুরিয়েতের সাংবাদিকদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করে তুরস্কের সাধারণ মানুষের প্রতিবাদ

কী করেছিলেন আহমেত সিক?

আহমেত সিক মূলত সরকারের বিভিন্ন প্রপাগান্ডায় নানা অসঙ্গতি তুলে ধরে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন৷ উদাহরণস্বরূপ, তুরস্কে রুশ রাষ্ট্রদূত আন্দ্রেই কারলভের ঘটনাটিই ধরা যাক৷ ২০১৬ সালের ১৯ নভেম্বর এক পুলিশ সদস্য কারলভকে গুলি করে হত্যা করে৷ সরকার বলেছিল, সেই হত্যাকারী ছিল ফেতুল্লাহ গুলেনের অনুসারী৷

সিক টিউটারে প্রশ্ন তুলেছিলেন, হত্যাকারী যে একজন পুলিশ সদস্য ছিলেন, সে বিষয়টি কিভাবে ব্যাখ্যা করবে সরকার৷

অভিনেতা, পরিচালক ও রাজনীতিবিদ সিরি সুরেয়া ওন্দারকে গ্রেপ্তার করা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছিলেন সিক৷ পার্লামেন্টে কুর্দিপন্থি বিরোধী দল পিপলস ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রতিনিধিত্ব করতেন ওন্দার৷ সাবেক উপ প্রধানমন্ত্রী ইয়ালসিন আকদোগানের সাথে মিলে তিনি কুর্দি সংকট সমাধানে একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছিলেন৷ ওন্দারকে তারপর গ্রেপ্তার করা হয় জঙ্গি সংগঠনকে সমর্থনের অভিযোগে৷

২০১১ সালে এক বছরের জন্য কারাগারে ছিলেন সিক৷ রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন সংস্থায় ফেতুল্লাহ গুলেনের প্রভাব নিয়ে সমালোচনা ছিল তার তখনকার অপরাধ৷ পার্থক্য হলো, তখন ফেতুল্লাহ গুলেন এবং প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইয়েপ এর্দোয়ান ছিলেন সবচেয়ে ভালো বন্ধু৷

‘মিথ্যাবাদী সরকার'

অভিযুক্তদের মধ্যে জুমহুরিয়েতের প্রধান সম্পাদক মুরাত সাবুনজু এবং জার্মানিতে নির্বাসনে থাকা সাবেক প্রধান সম্পাদক জান দুনদারও রয়েছেন৷ অভিযোগে বলা হয়েছে দুনদার সম্পাদকের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে পত্রিকাটির অবস্থান পালটেছে৷ তখন থেকে জুমহুরিয়েত ‘জঙ্গি সংগঠনকে' সমর্থন দিয়েছে আসছে বলেও অভিযোগ করা হয়েছে৷

দুনদার এরই মধ্যে অপর একটি মামলায় পাঁচ বছর দশ মাসের সাজা পেয়েছেন৷ দুনদার এবং পত্রিকার প্রধান প্রতিবেদক এরদেম গুলের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় গোপন তথ্য ফাঁসের অভিযোগ আনা হয়৷

তুরস্ক থেকে সিরিয়া যাওয়ার পথে ট্রাকে তল্লাশি চলছে, ২০১৫ সালের মে মাসে এমন একটি ছবি প্রকাশ করে জুমহুরিয়েত৷ ত্রাণ সরবরাহের আড়ালে এইসব ট্রাকে সামরিক সরঞ্জাম পাঠানো হচ্ছিল৷ তুরস্কের সরকার এর আগে এমন সব অভিযোগ নাকচ করে আসছিল৷ তবে ছবিটি তা মিথ্যা বলে প্রমাণ করে৷ ‘এই সেই অস্ত্র, এর্দোয়ানযার অস্তিত্ব স্বীকার করেন না' শিরোনামে ছাপানো হয়েছিল ছবিটি৷

ভয়ডরহীন সাংবাদিকতা

দুনদার ও গুলের বিরুদ্ধে মামলার সমালোচনা ছিল বিশ্বজুড়ে৷ এখনও জুমহুরিয়েতের সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে বিচার প্রক্রিয়া পুরোপুরি শুরু হয়নি৷ কিন্তু এরই মধ্যে সাড়া ফেলতে শুরু করেছে এই মামলা৷রিপোর্টারস উইদাউট বর্ডারসের মুক্ত সাংবাদিকতা সংক্রান্ত র‍্যাংকিংয়ে ১৮০টি দেশের মধ্যে তুরস্কের অবস্থা ১৫১ নম্বরে৷

চাপের মুখেও ভয়হীন সাংবাদিকতার জন্য ২০১৬ সালে রাইট লাইভলিহুড অ্যাওয়ার্ড পায় জুমহুরিয়েত৷ ‘বিকল্প নোবেল প্রাইজ' হিসেবেও পরিচিতি আছে এই অ্যাওয়ার্ডের৷

ক্যার্স্টেন ক্নিপ/এডিকে

নির্বাচিত প্রতিবেদন