1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

বিচারকদের তোলা নিতে নিষেধ প্রধান বিচারপতির

সেনানিবাসের বাড়ি ছাড়ার প্রস্তুতি বেগম জিয়ার, প্রধান বিচারপতির সাবধান বাণী, ঈদে ঘরমুখো মানুষের ভোগান্তি, বর্ষসেরা নারীর তালিকায় শেখ হাসিনা, তুর্কি প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফর - এসব খবরই প্রাধান্য পেয়েছে আজকের পত্রিকায়৷

supreme, court, বাংলাদেশ, সুপ্রিম, কোর্ট, বিচারক, প্রধান বিচারপতি, সেনানিবাস, খালেদা জিয়া,

বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট (ফাইল ছবি)

প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হক বিচারিক আদালতের জজদেরকে সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, আমার কাছে প্রমাণ আছে কর্মচারীদের সঙ্গে আপনারা আর্থিক লেনদেন করে থাকেন৷ আমি অনেকের নামও বলতে পারি৷ আপনারা নাজিরের সঙ্গে টাকাপয়সা লেনদেন করেন৷ বিচার বিভাগ এখন কাঠগড়ায়৷ এমনভাবে কাজ করুন যাতে জনগণ বিচার বিভাগের প্রতি আস্থা ফিরে পায়৷ শুক্রবার জেলা জজদের তিনদিনের কাউন্সিলের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি অধীনস্থদের এ ধরনের পরামর্শ দেন৷ দৈনিক জনকণ্ঠ, সমকাল, কালের কণ্ঠ, নিউ এইজ, ডেইলি স্টার, যুগান্তরসহ প্রায় সব পত্রিকার শিরোনাম হয়েছে খবরটি৷ এতে বলা হচ্ছে, আদালত কর্মচারীদের কাছ থেকে টাকা নেয়ার ধরন তুলে ধরে প্রধান বিচারপতি বলেন, আপনারা বদলির সময় ডিমান্ড করেন, তোমরা তো আমাকে একটা কিছু দিবে৷ কোরআন শরিফ আর লাঠি না দিয়ে একটা ডিপফ্রিজ দিও৷ এ কাজটি করবেন না৷

সেনানিবাসের বাড়ি ছাড়ার প্রস্তুতি খালেদা জিয়ার

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া সেনানিবাসের বাড়ি ছেড়ে দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন৷ ইতিমধ্যে ঐ বাড়ির মালামাল স্থানান্তর করা শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে৷ দৈনিক প্রথম আলো, সমকাল, ডেইলি স্টারসহ বেশ কিছু পত্রিকা প্রথম পাতায় প্রকাশ করেছে এমন খবর৷ সেনাবাহিনীর একজন পদস্থ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে প্রথম আলো লিখেছে, সেনানিবাসের বাড়ি থেকে ২৯ মিন্টো রোডের বাসভবনে মালামাল স্থানান্তরের জন্য বেগম জিয়ার পক্ষ থেকে সেনা প্রশাসনের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে৷ সেনাসূত্র আরো জানায়, আদালতের আদেশ পাওয়ার পর থেকেই বিরোধীদলীয় নেত্রী বাড়িটি ছেড়ে দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন৷ গত ১ নভেম্বর থেকে তাঁর বাসার মালামাল সরানো শুরু হয়৷ একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, বেগম জিয়া শিগগিরই সেনানিবাসের বাড়ি ছাড়বেন বলে মনস্থির করেছেন৷ আজ শনিবারও বাড়ি ছাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে একই সূত্রের খবর৷

ঈদ উপলক্ষ্যে ঘরমুখো মানুষের ভোগান্তি

ভাড়া নিয়ে রীতিমতো বাড়াবাড়ির শিকার হচ্ছেন ঈদে ঘরমুখো যাত্রীরা৷ নৌপথ ও সড়কপথের ভাড়া দেড় থেকে দ্বিগুণ, কোনো কোনো ক্ষেত্রে তারচেয়েও বেশি আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করছেন যাত্রীরা৷ তবে পরিবহনের লোকজনের বক্তব্য, বছরের অন্যসময় নির্ধারিত হারের চেয়ে ভাড়া কম নেয়া হয়৷ কিন্তু ঈদের সময় যাত্রীর চাপ বেশি থাকে বিধায় সরকার নির্ধারিত ভাড়া নেয়া হয়৷ এই কারণে মনে হয় যে, ঈদ উপলক্ষে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে৷ এদিকে, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে তীব্র যানজটের কারণে যাত্রীরা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন৷ এক ঘণ্টার রাস্তা পার হতে ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা পর্যন্ত যানজটে আটকে থাকতে হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে৷ দৈনিক ইত্তেফাক, প্রথম আলো, নিউ এইজ, কালের কণ্ঠ, যায়যায়দিন, জনকণ্ঠসহ অধিকাংশ পত্রিকায় ফুটে উঠেছে ঘরমুখো মানুষের দুর্ভোগের চিত্র৷

গ্রন্থনা: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: ফাহমিদা সুলতানা

নির্বাচিত প্রতিবেদন