1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভেনেজুয়েলা

বিক্ষোভকারীদের মিলিটারি ট্রাইব্যুনালে পেশ করা হচ্ছে

খনিজ তেল সমৃদ্ধ দেশটি এক মাসের বেশি সময় ধরে বিক্ষোভে উত্তাল৷ দৃশ্যত ক্রমেই আরো বেশি বিক্ষোভকারীকে সামরিক আদালতে পেশ করা হচ্ছে, বিরোধীদের কাছে যা প্রেসিডেন্ট মাদুরোর ক্ষমতা হ্রাসের লক্ষণ৷

এ বছরের মার্চ মাসে ভেনেজুয়েলার সুপ্রিম কোর্ট সংসদের ক্ষমতা কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করে৷ পয়লা এপ্রিল থেকে দেশ জুড়ে বিক্ষোভ শুরু হয় নতুন নির্বাচনের দাবিতে৷ সে দাবি মেনে না নিয়ে সমাজতন্ত্রী প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো একটি নতুন সংবিধান রচনার জন্য একটি সাংবিধানিক সম্মেলন আহ্বানের অভিপ্রায় ঘোষণা করেন৷

মাদুরোর পূর্বসূরি উগো চাভেজ ঠিক এভাবেই ১৯৯৯ সালে সংবিধান সংস্কারের ব্যবস্থা করেছিলেন৷ বর্তমান ‘‘পুঁজিবাদ বিরোধী'' সংবিধানটি তখনই গৃহীত হয়৷ চাভেজ প্রেসিডেন্টের কর্মকাল বাড়ান ও কংগ্রেসের দু'টি কক্ষকে একটি কক্ষে পরিণত করেন৷ ক্যানসার রোগে আক্রান্ত চাভেজ ২০১৩ সালে তাঁর মৃত্যুর আগে মাদুরোকে তাঁর উত্তরসূরি হিসেবে মনোনীত করে যান৷

মাদুরো যে সংবিধান পালটানোর পন্থা ধরেছেন, তার যুক্তি হিসেবে তিনি বলেছেন যে, তিনি ওয়াশিংটনের প্ররোচিত একটি ‘‘ফ্যাসিবাদী অভ্যুত্থান'' রোখার চেষ্টা করছেন৷ নতুন সংবিধান রচনায় রাজনৈতিক দলগুলি সংশ্লিষ্ট থাকবে না, এই সাংবিধানিক সম্মেলন সাধারণ নাগরিকদের নিয়ে গঠিত হবে, বলে মাদুরো ঘোষণা করেন৷

ভেনেজুয়েলায় প্রায় প্রতিদিনই প্রতিবাদ চলেছে৷ বিক্ষোভে এ যাবৎ প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ৩৮ জন মানুষ, আহত হয়েছেন শত শত, গ্রেপ্তার হয়েছেন ১,৩০০ জনের বেশি বিক্ষোভকারী৷ একদিকে প্রেসিডেন্টের বিভিন্ন পদক্ষেপ, অন্যদিকে খাদ্য, ওষুধপত্র ও অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় বস্তুর অনটন – এ বছর মুদ্রাস্ফীতি নাকি পৌঁছাবে ৭২০ শতাংশে৷ ভেনেজুয়েলার সমাজের প্রতিটি স্তর থেকে আসা হাজার হাজার মানুষ প্রতিবাদে ফেটে পড়ছেন৷

ভিডিও দেখুন 01:48

মিলিটারি ট্রাইব্যুনাল

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলছে, ২৫০ জনের বেশি বিক্ষোভকারীকে গ্রেপ্তার করে সামরিক বিচার বিভাগের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে৷ এটা নাকি ঘটেছে মাত্র গত এক সপ্তাহে, বলছেন মানবাধিকার আন্দোলনকারীরা৷ প্রেসিডেন্ট মাদুরোর প্রশাসন বলছে যে, মিলিটারি ট্রাইব্যুনালগুলি জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য আবশ্যক, কেননা বিদেশি সাহায্যে ভেনেজুয়েলার সমাজতন্ত্রী সরকারভাবে সহিংসভাবে ক্ষমতা থেকে বিতাড়ন করার প্রচেষ্টা করা হচ্ছে৷

মিলিটারি আদালতে যাদের পেশ করা হচ্ছে, তাদের প্রায় সকলের বিরুদ্ধেই আইন অমান্য ও সামরিক কর্মকর্তাদের অবমাননা করার অভিযোগ আনা হচ্ছে৷ এ ধরনের অধিকাংশ ঘটনা দৃশ্যত ঘটেছে উত্তরের কারাবোবো প্রদেশে, যেখানে লুণ্ঠনকারীরা গত সপ্তাহে বিয়ারের ক্রেট ও নুডলসের বাক্স লুট করে৷ একজন বিক্ষোভকারী নিহত হওয়ার ঘটনাও ঘটে৷

এসি/ডিজি (এপি, এএফপি, রয়াটার্স, ডিপিএ)

ভেনেজুয়েলার অবস্থার সঙ্গে বাংলাদেশের তুলনা করতে পারেন? লিখুন মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন