1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বিএনপির মাঠ গরমের আন্দোলন

বিএনপির নেতৃত্বে ২০ দলীয় জোট এই আগষ্ট মাসেই সরকার বিরোধী আন্দোলন শুরু করবে৷ তবে এই আন্দোলন হবে মাঠ গরম করার৷ চূড়ান্ত আন্দোলন হবে ঈদ-উল-আজহার পর৷

জানা গেছে ১৫ আগষ্টের আগে এবং পরে বিএনপি ধারাবাহিক কিছু আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করবে৷ আর এই কর্মসূচির প্রধান লক্ষ্য থাকবে দেশের মানুষের কাছে আন্দোলনের বার্তা পৌছে দেয়া৷ সাধারণ মানুষকে আন্দোলনে সম্পৃক্ত করা৷ তবে চূড়ান্ত আন্দোলন হবে ঈদ-উল-আজহার পরে৷

বিএনপির নীতি নির্ধারকরা মনে করছেন ঈদ-উল-ফিতর মাত্র শেষ হয়েছে৷ আর দেখতে দেখইে পবিত্র হজ এবং ঈদ-উল-আজহা এসে যাবে৷ তাই এই সময়ের মধ্যে কোন কঠিন কর্মসূচি না দিয়ে আন্দোলনের মাঠ গরম করা এবং সরকারকে সংলাপ ও পদত্যাগ করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের জন্য সময় বেধে দেয়া হবে৷ আর সরকার যদি এরসমধ্যে নমনীয় হয়তো ভাল৷ নয় কোরবানির ঈদের পরই সরকার বিরোধী চূড়ান্ত আন্দোলন শুরু হবে৷

বিএনপির সিনিয়র নেতারা এরইমধ্যে কর্মসূচি নিয়ে নিজেদের মধ্যে বৈঠক করেছেন৷ তবে কর্মসূচি চূড়ান্ত হয়নি৷ কর্মসূচি চূড়ান্ত করার আগে জোটের মহাসচিব পর্যায়ে বৈঠক হবে৷

বিএনপির নীতিনির্ধারকরা চান চূড়ান্ত আন্দোলন শুরুর আগে আবার বিদেশি কূটনীতিকদের সক্রিয় করতে৷ এজন্য তাদের সঙ্গে যোগাযোগও শুরু করেছেন তারা৷ কারণ ৫ জানুযারির একতরফা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তারা সরকার বিরোধীদের সহিংস আন্দোলনের সমালোচনা করেছেন৷ তাই তারা চাইছেন কূটনীতিকরা যেন বুঝতে পারেন বিএনপি সহিংস আন্দোলন চায় না৷ আর তারাও যেন সরকারকে বোঝান যে সহিংসতা এড়াতে সংলাপ এবং নির্বাচনের কোন বিকল্প নেই৷

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এরইমধ্যে জানিয়েছেন, বিএনপি শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক আন্দোলন চায়৷ দেশের মানুষকে এই আন্দোলনে সম্পৃক্ত করে সরকারকে দাবি মানতে বাধ্য করা হবে৷

আর বিএনপির যুগ্ম মহাসচি রুহুল কবির রিজভি শনিবার বলেছেন, ‘‘আমরা পুরোপুরি শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের কর্মসূচি দিচ্ছি৷ আর এই আন্দেলন আগস্টেই শুরু হবে৷''

কবে থেকে আন্দোলন শুরু হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘দু'একদিনের মধ্যেই দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যরা বৈঠকে বসবেন৷ এরপর জোট নেতারা বৈঠক করবেন৷ আর এই বৈঠক থেকেই আন্দোলন কর্মসূচি চূড়ান্ত হবে৷''

তিনি বলেন, ‘‘সরকার যদি আমাদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন কর্মসূচি ঠেকাতে শক্তি বা অস্ত্রের ভাষা ব্যবহার করে তাহলে আমরাও বসে থাকব না৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়