1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বিএনপিকে বাদ দিয়েই সর্বদলীয় সরকার

বাংলাদেশের প্রধান বিরোধী দল বিএনপিকে বাদ দিয়েই নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকার গঠনের চিন্তা করা হচ্ছে৷ তবে বিএনপি বলেছে, আন্দোলন আরো তীব্র করে সরকারকে নির্দলীয়, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে বাধ্য করবে তারা৷

নির্বাচন কমিশন মোটামুটিভাবে জানুয়ারির প্রথম দিকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে৷ আর তাই যদি হয়, তাহলে চলতি নভেম্বরেই নির্বাচনকালীন সরকার গঠন হবে৷ এর আগে, মন্ত্রিসভার বড়জোর আর একটি বৈঠক হতে পারে৷ মন্ত্রীরা সচিবদের সেরকম আভাসই দিয়েছেন বলে জানা গেছে৷ সরকার নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের প্রক্রিয়া শুরু করেছে বলে তিন দিন আগে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা তোফায়েল আহমেদ৷ এরপর শুক্রবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দিন খান আলমগীর বলেছেন, বিএনপি না এলে অন্যান্য রাজনৈতিক দল নিয়ে নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় অন্তর্বর্তী সরকার গঠন করা হবে৷ তিনি বলেন, আওয়ামী লীগই সেই সরকার পরিচালনা করবে৷

Bangladeshi riot policemen stand guard on a street outside the office of the main opposition Bangladesh Nationalist Party (BNP) as a man walks past them during a general strike in Dhaka, Bangladesh, Monday, Oct. 28, 2013. At least 13 people have died since Friday in violence as the government of Prime Minister Sheikh Hasina and an 18-party alliance led by opposition leader Khaleda Zia disagree over forming a caretaker government. The opposition began the three-day general strike on Sunday to force the government to quit and form an independent government to oversee an election due by early next year. (AP Photo/A.M. Ahad)

তীব্র আন্দোলনের জন্য কি দেশ প্রস্তুত?

নিজের নির্বাচনি এলকা চাঁদপুরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আরো বলেন যে, সর্বদলীয় সরকারই বাংলাদেশে সঠিক সময়ে সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নির্বাচনের আয়োজন করবে৷ আর এই প্রক্রিয়ার যারা বিরোধিতা করবে, তারা গণতন্ত্র ও দেশের শত্রু৷

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ ডয়চে ভেলেকে বলেন, নির্বাচনের জন্য হাতে বেশি সময় নেই৷ তাই সর্বদলীয় সরকার গঠনে খুব বেশি দেরিও নেই৷ সেই সরকারের প্রধান হবেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ বিএনপি চাইলে এখনও আলোচনা করতে পারে৷ পারে সর্বদলীয় সরকারে যোগ দিতে৷ তবে সংবিধানের বাইরে কিছু করা হবে না৷

এর জবাবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলেছেন, নির্বাচন হতে হবে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে৷ কোনো দলীয় সরকারের অধীনে একতরফা নির্বাচনের কোনো সুযোগ নেই৷ তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের কোনো বৈধতা নেই৷ আর তাদের আজ্ঞাবহ নির্বাচন কমিশনও মানে না বিএনপি৷ তাই তারা কি সিদ্ধান্ত নিল তাতে কিছু যায় আসে না৷ তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠন হলে নির্বাচন কমিশনও পুনর্গঠন হবে৷ তাঁর কথায়, সংলাপের নামে সরকার নাটক করছে৷ তাই আন্দোলনে কোনো ছাড় দেয়া হবে না৷ আন্দোলন আরো তীব্র থেকে তীব্র করা হবে৷ আন্দোলনের মাধ্যমেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায় করা হবে৷

এদিকে, আগামী সোমবার থেকে তিন দিন টানা হরতাল না অবরোধ কর্মসূচি দেয়া হবে – তা চূড়ান্ত করতে পারেনি বিএনপির নেতৃত্বে বিরোধী ১৮ দলীয় জোট৷ এ নিয়ে জোট নেতাদের মধ্যে ভিন্নমত আছে৷ তবে শুক্রবার রাতে অথবা শনিবার কর্মসূচি চূড়ান্ত হতে পারে বলে খবর৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন