1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

বায়ার্ন তাহলে মার্কো রয়েসের দিকে তাক করছে না?

বলতে কি, নতুন বুন্ডেসলিগা মরশুম শুরু হওয়ার আগে বায়ার্ন মিউনিখের কোচ পেপ গুয়ার্দিওলার অবস্থা হলো: কা-কে ছেড়ে কা-কে রাখি? তাঁর আর নতুন প্লেয়ারের দরকার নেই, বলেছেন পেপ: তিনি তাঁর বর্তমান স্কোয়াডেই খুশি৷

DFB Pokal Finale 17.05.2014

মার্কো রয়েস (বামে)

একদিকে একাধিক প্লেয়ারের ইনজুরি, অন্যদিকে বিশ্বকাপ (জয়ের) উল্লাসের পর অবসাদ ও ক্লান্তি অন্তত ছ'জন প্লেয়ারের৷ তবে গুয়ার্দিওলা আশাবাদী৷ টিয়াগো আলকান্তারা, রাফা রাফিনিয়া এবং ফ্রাংক রিবেরি, সকলেই নাকি নিরাময়ের পথে৷ আলকান্তারার হাঁটুর লিগামেন্টে অস্ত্রোপচার হয় গত মে মাসে৷ জার্মান পত্র-পত্রিকার খবর অনুযায়ী, অক্টোবরের আগে তাঁর মাঠে ফেরার কথা নয়৷ কিন্তু গুয়ার্দিওলা বলেছেন: ‘‘লোকে যা ভাবছে, থিয়াগো তার আগেই ফিরে আসবে, সে ব্যাপারে আমি নিশ্চিত৷''

অন্যদিকে তাঁর দলের ছ'জন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন সম্পর্কে গুয়ার্দিওলা বলেছেন: ‘‘ওটা স্বভাবতই এই সব প্লেয়ারদের পক্ষে এবং সেই সঙ্গে ক্লাবের জন্য একটা বিরাট ব্যাপার৷ ওদের সময় আছে৷ আমি জানি ওদের কী ক্ষমতা, কিন্তু ওদের সময় লাগবে৷'' এবং গুয়ার্দিওলা ফিলিপ লাম, বাস্টিয়ান শোয়াইনস্টাইগার অ্যান্ড কোম্পানিকে সে' সময় দিতে প্রস্তুত৷

আসল কথা হলো, ট্রান্সফার উইনডো বন্ধ হলো কিনা, তা নিয়ে পেপ গুয়ার্দিওলার আদৌ মাথাব্যথা নেই৷ বায়ার্নের প্লেয়ার কেনা-বেচার ‘হাই পয়েন্টগুলো' তো এর আগেই সমাপ্ত হয়েছে: যেমন ডর্টমুন্ড থেকে পোলিশ ন্যাশনাল রবার্ট লেভান্ডোভস্কির – বিনা ট্রান্সফার ফি-তে! – বায়ার্নে আগমন৷ তারপর একটির পর একটি ম্যাচে লেভান্ডোভস্কি দেখিয়েছেন, তিনি বায়ার্নের হয়ে স্কোর করতে পারেন, স্কোর করছেন এবং করবেন৷ ওদিকে টোনি ক্রোসকে ভালো দামেই রেয়াল মাদ্রিদকে বেচা গেছে – এবং ক্রোসের কেরিয়ারের পক্ষে তা ভালো বৈ খারাপ নয়৷ আর ক্রোয়াট স্ট্রাইকার মারিও মাঞ্চুকিচ তো প্রায় নিজেই সেধে বিদায় নিয়েছেন, অর্থাৎ অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদে গেছেন৷ বুদ্ধিমান মাঞ্চুকিচ আগে থেকেই আন্দাজ করেছিলেন যে, বায়ার্নের সাবস্টিটিউট বেঞ্চে এবার অনেককে সাজগোজ করে বসে থাকতে হবে৷

জার্মানিতে ‘হোম-গ্রোন ট্যালেন্ট' বা ‘নিজের বাগানে গজানো প্রতিভা' বলতে যা কিছু বোঝায়, তা কালে ঠিকই বায়ার্নে এসে পৌঁছায়৷ এই বিশ্বকাপের পর বাকি রয়েছেন ডর্টমুন্ডের প্লেমেকার মার্কো রয়েস, যাঁর সম্পর্কে বেকায়দায় মুখ খুলে ফেলে বায়ার্ন প্রেসিডেন্ট কার্ল-হাইঞ্জ মুশকিলে পড়েছেন৷ তাই তাঁর দলের কোচ পেপ গুয়ার্দিওলা পরিস্থিতি পরিষ্কার করে দিয়েছেন (?): ‘‘আমি মার্কো রয়েসের ব্যাপারে কার্ল-হাইনৎস রুমেনিগের সঙ্গে কথা বলিনি৷ আমাদের ইতিমধ্যেই আটটা মিডফিল্ডার আছে -–আটটা! ঐ যথেষ্ট৷''

এসি/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন