1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

বায়ার্নের দুর্গ ধসিয়ে রেয়াল ফাইনালে

রোনাল্ডো, রামোসদের মধুর প্রতিশোধ৷ গত মৌসুমে যে আলিয়ানৎস আরেনায় ডুবেছিল তাদের স্বপ্নতরী, বায়ার্ন মিউনিখের সেই দুর্গেই রেয়াল উড়িয়েছে বিজয় নিশান৷ সেমিফাইনালে বায়ার্নকে ৫-০ গোল পার্থক্যে উড়িয়ে রেয়াল উঠে গেছে ফাইনালে৷

মঙ্গলবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগ সেমিফাইনালে পেপ গুয়ার্দিওলার দুঃসময় আরো প্রলম্বিত হলো৷ নিজেদের মাঠে বায়ার্ন এই রেয়ালকেই গত মৌসুমে হারিয়েছিল ৩-০ গোলে৷ ৪-০ গোল পার্থক্যে সেমিফাইনাল উতরে ফাইনালে বোরুসিয়া ডর্টমুন্ডকেও হারিয়ে কাটিয়েছিল ১২ বছরের চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খরা৷ সঙ্গে বুন্ডেসলিগাসহ তিনটি ঘরোয়া টুর্নামেন্ট জিতে রীতিমতো আকাশে উড়ছিল বাভেরিয়ানরা৷ এমন দলের দায়িত্ব নিয়েছলেন পেপ গুয়ার্দিওলা৷ চ্যাম্পিয়ন্স লিগে তাঁর আশার ভরাডুবি হলো৷ ‘অ্যাওয়ে' ম্যাচে তবু সিংহভাগ সময়ে ম্যাচ নিয়ন্ত্রণে রাখার সান্ত্বনা ছিল৷ মঙ্গলবার তা-ও গেল৷ আলিয়ানৎস আরেনার দর্শকঠাসা গ্যালারি হতবাক হয়ে দেখলো প্রিয় দলের টানা দ্বিতীয়বার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের স্বপ্নটাকে ভেঙে চুরমার হতে৷

গ্যারেথ বেল জাল ছেঁড়ার বাসনায় জোরালো শট না নিলে প্রথম গোলটা হয়ত ১৫ মিনিটেই পেয়ে যেত রেয়াল৷ সে যাত্রা বার উঁচিয়ে চলে গেলেও পরের মিনিটেই অবশ্য জাল খুঁজে পায় বল৷ মডরিচের কর্নার, রামোসের হেড এবং গোল! পরের গোলটিও রেয়ালের তিন ফরোয়ার্ড রোনাল্ডো, বেল বা বেনজেমার নয়৷ ডি মারিয়ার ফ্রি কিকে মাথা ছুঁইয়ে সেই রামাসোর দিকেই বল বাড়িয়েছিলেন পেপে, রেয়াল ডিফেন্ডার গোলরক্ষক নয়ারকে বোকা বানাতে সেবারও ভুল করেননি (২-০)৷

তৃতীয় গোলে আর অন্যদের কিছু করতে দেননি বেনজেমা, বেল আর রোনাল্ডো৷ নিজেদের সুন্দর বোঝাপড়ার নমুনা দেখিয়ে ৩৪ মিনিটে তাঁরাই ঠুকেছেন বায়ার্নের কফিনের তৃতীয় পেরেক৷ বেনজেমার পাস বেল-এর পায়ে, বিশ্বের সবচেয়ে দামি খেলোয়াড়ের পা থেকে বল গেল ফিফা বিশ্ব সেরার পায়ে, তারপর রোনাল্ডোর পায়ের ছেলেখেলা (৩-০)!

Champions League Halbfinale FC Bayern München - Real Madrid CF Cristiano Ronaldo

রেয়ালকে ফাইনালে নিতে রোনাল্ডো করেছেন দুই গোল, চ্যাম্পিয়ন্স লিগের এক আসরে সবচেয়ে বেশি গোলের রেকর্ডটি এখন তারই দখলে

রোনাল্ডোর চমকের তারপরও খানিকটা বাকি ছিল৷ ম্যাচ শেষ হতে তখন এক মিনিট বাকি৷ ফ্রি কিক নেবেন রোনাল্ডো৷ সামনে পা ফাঁক করে দুর্ভেদ্য প্রাচীর গড়েছেন বায়ার্নের খেলোয়াড়রা৷ ঠিক পায়ের ফাঁক দিয়েই মাটি কামড়ানো শটে জার্মান চ্যাম্পিয়নদের বোকা বানালেন পর্তুগিজ সুপারস্টার৷

২০০১-২০০২ মৌসুমের পর আবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের আশায় আনন্দে ভাসছে মাদ্রিদ৷ স্পেনের শহরটিতে যখন আনন্দবন্যা, বায়ার্নে তখন শোকের ছায়া৷

এসিবি/ডিজি (রয়টার্স,এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন