1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

বাড়ছে ব্লগ, বাংলা ভাষায় ব্লগ

বর্তমানে, ব্লগিং হয়ে উঠেছে বাংলাদেশে ইন্টারনেটে ব্যবহারের অন্যতম কারণ৷ আর তাই বাংলাদেশ থেকে ভিজিট করা হয় এমন ১০০ ওয়েবসাইটের মধ্যে গোটা সাতেক রয়েছে ব্লগ সাইট৷ স্বভাবতই প্রশ্ন আসতে পারে, কেনই বা এত ব্লগিং?

default

মাননীয় ভিসি আরও একটা লাশ পড়লো৷ মাত্র কিছুক্ষণ আগে৷ পবিত্র শিক্ষাঙ্গনে... ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাম্প্রতিক ছাত্র সংঘর্ষ নিয়ে আমার ব্লগে লিখেছেন মুনীর উদ্দীন শামীম৷

চলুন আরেকটু এগিয়ে যাই ...

পরশু আমার বন্ধুটি দেখা হতেই কেঁদে ফেলল৷ দৃষ্টিতে যেন হতাশার নীল গহ্বরে ডুবতে থাকা এক মানুষের আর্তনাদ৷ আমার বোনটাকে আর বাঁচাতে পারলাম না দোস্ত! ... আজমেরীকে বাঁচাতে সাহায্যের আকুতি নিয়ে সামহোয়্যার ইন ব্লগে লিখেছেন স্বপ্নকথক৷

ইন্টারনেটের এই লেখালেখি কিন্তু জায়গা করে নিচ্ছে বইয়েও৷

প্রথমে সবাইকে বাংলা নতুন বছরের শুভেচ্ছা৷ এই আনন্দের দিনে একটাই-বই প্রকাশের সিদ্ধান্ত নেয় সচলায়তন৷ বিষয় নির্ধারিত হয় জীবনের আনন্দ, রঙ আর ফুর্তি ... সচলায়তনের প্রকাশিত ই-বুক রঙ পবনের নাও এর ভূমিকার কথা এগুলো৷

এগুচ্ছে বাংলা ব্লগ

গুটি গুটি পায়ে এভাবেই এগিয়ে যাচ্ছে বাংলা ব্লগিং৷ উইকিপিডিয়া এর ব্যাখ্যা দিচ্ছে এভাবে, ‘ব্লগ শব্দটি ইংরেজি ব্লগ এর বাংলা প্রতিশব্দ, যা এক ধরণের অনলাইন জার্নাল৷ ইংরেজি ব্লগ শব্দটি আবার ওয়েব্লগ এর সংক্ষিপ্ত রূপ৷ যিনি ব্লগে পোস্ট করেন তাকে ব্লগার বলার হয়৷ ব্লগাররা প্রতিনিয়ত তাদের ওয়েবসাইটে কনটেন্ট যুক্ত করেন আর ব্যবহারকারীরা সেখানে তাদের মন্তব্য করতে পারেন৷'

বাংলা ব্লগের শুরুটা ঠিক কবে তা নিয়ে খানিকটা মতবিরোধ রয়েছে৷ তবে, একাধিক ব্লগারের মতে, ব্যক্তি পর্যায়ে বাংলা ব্লগিং শুরু হয়েছে বেশ আগেই৷ কিন্তু কমিউনিটি ব্লগের সুচনা ২০০৫-এ সামহোয়্যার ইন ব্লগের হাত ধরে৷ জানালেন সামহোয়্যার ইন ব্লগের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা গুলশান ফেরদৌস জানা৷ তিনি বলেন, ২০০৫ সালে এবং এখান থেকেই বাংলা ব্লগিং শুরু৷ বাংলা ব্লগিংয়ের হাঁটা৷

আর কমিউনিটি ব্লগিংর সাথে সাথে বাংলা ব্লগিং বেশ খানিকটা এগিয়েছে ২০০৬ এ গিয়ে৷ বললেন জনপ্রিয় ব্লগার আরিফ জেবতিক৷ তিনি বলেন, ২০০৬ এর ডিসেম্বর থেকে আমরা ধরতে পারি বাংলা ব্লগের একটা মাইলফলক৷ সে সময় ব্যাপক আকারে জনগনের কাছে ব্লগিংটা চলে যায়৷

কারণ যখন ব্লগিং

বর্তমানে, ব্লগিং হয়ে উঠেছে বাংলাদেশে ইন্টারনেটে ব্যবহারের অন্যতম কারণ৷ আর তাই বাংলাদেশ থেকে ভিজিট করা হয় এমন ১০০ ওয়েবসাইটের মধ্যে গোটা সাতেক রয়েছে ব্লগ সাইট৷ স্বভাবতই প্রশ্ন আসতে পারে, কেনই বা এত ব্লগিং? কেনইবা এত আগ্রহ? আরিফ জেবতিক এর মতে, প্রথম কথা হচ্ছে আমাদের দেশে বিনোদনের অভাব৷ সুতরাং বিনোদনের জায়গা থেকে আমরা এটিকে পাচ্ছি৷ দ্বিতীয়ত হচ্ছে, আমাদের মতো তৃতীয় বিশ্বের দেশে অনেক সময় মিডিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করা হয়৷ সাধারণ মানুষের কথা মিডিয়াকে পৌঁছে দেয়া হয়না৷ এই দিক থেকে মানুষ নিজের কথা বলার মতো একটা জায়গা খুঁজে পাচ্ছে এবং ইন্টারনেট সহজলভ্য হয়ে যায় মানুষ সেদিকে ঝুঁকছে এবং নিজের বক্তব্য প্রচার করতে চাচ্ছে৷

অবশ্য ব্লগারদের এই বগবগানি বিফলেও যাচ্ছে না৷ বিশেষত বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারসহ নানা ইস্যুতে ব্লগারদের সোচ্চার কন্ঠ শোনা গেছে প্রায়ই৷ বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনেও নাকি ব্লগারদের মতামত গুরুত্ব পাচ্ছে৷ আর তাই, গত নির্বাচনে রাজনৈতিক দলগুলোর প্রচার প্রচারণাতেও দেখা গেছে ব্লগারদের নানা দাবির প্রতিফলন৷ বললেন আরিফ, গত নির্বাচনে ব্লগারদের একটা বিশাল ভূমিকা ছিল যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ইস্যুতে৷ এবং ব্লগের অনেক লেখা থেকে নেয়া তথ্য বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রচার প্রচারণাতে দেখা গেছে৷

অবাধ তথ্য প্রবাহে ব্লগ

শুধু তাই নয়, বাংলাদেশে অবাধ তথ্য প্রবাহের এক অন্যতম মাধ্যম হয়ে উঠেছে বাংলা ব্লগিং৷ ফলে, যেকোন বড় ঘটনার খবর পাওয়ার পর পত্রপত্রিকার পাশাপাশি মানুষ ছুটছে ব্লগের দিকে৷ গত বছরের বিডিআর বিদ্রোহ তার এক বড় উদাহরণ, বললেন জানা, গত বছর বিডিআর হত্যাকান্ড ছিল সর্বোচ্চ আলোচনার বিষয়৷ সর্বোচ্চ সংখ্যক পোস্ট এসেছে এটা নিয়ে এবং সর্বোচ্চ হিট ছিল৷ এমনকি সর্বোচ্চ সংখ্যক ব্লগারের উপস্থিতিও ছিল এই ইস্যুকে কেন্দ্র করে৷

আলোচনায় সবদিক, সবাই

রাজনৈতিক আলোচনার পাশাপাশি বাংলা ব্লগিংয়ে উঠে আসে বিভিন্ন কারিগরি বিষয়ও৷ কম্পিউটার ব্যবহার করতে গিয়ে কে সমস্যায় পড়লো, আর তার সমাধানই বা কি কিংবা নতুন কি প্রযুক্তি এলো ইন্টারনেট জগতে - সবই স্থান পাচ্ছে ব্লগারদের আলোচনায়৷ অনেকের সাহিত্য চর্চারও অন্যতম মাধ্যম এটি৷

ইন্টারনেট ব্যবহারে তরুণ প্রজন্মের আধিক্য বেশি থাকলেও বাংলা ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে বিষয়টি পেয়েছে একটু ভিন্ন মাত্রা৷ অন্তত ব্লগারদের দাবি, সব বয়সের, সব শ্রেণীর মানুষকে নাকি খুঁজে পাওয়া যাবে বাংলা ব্লগিং আঙ্গিনায়৷ বললেন আরিফ, এটার পেছনে আসলে সমাজের সব শ্রেণির মানুষই আছে৷ আমি নিজে যেটা দেখছি, যদি আপনি আর্থিক শ্রেণিকরণের কথা বলেন তাহলে, মধ্যবিত্ত এবং উচ্চমধ্যবিত্ত শ্রেণি ব্লগের সঙ্গে অনেক জড়িত৷ আর পেশাজীবির দিক থেকে দেখলে আমি বলবো ছাত্র, শিক্ষক, বিভিন্ন পেশাজীবী অর্থাৎ আমি কোন পেশার লোক পাইনি যিনি ব্লগিং করছেন না৷

কতজন ব্লগায়?

ঠিক কতজন বাংলা ব্লগ লেখেন তার সঠিক বা সম্ভাব্য হিসেব এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করেনি কোন সংস্থা৷ তবে, সামহোয়্যার ইন ব্লগের দাবি, তাদের সাইটে নিবন্ধিত ব্লগারের সংখ্যা ৪০ হাজারের বেশি৷ আর এর মধ্যে সক্রিয় ব্লগার ১৬ হাজারের মতো৷ অন্যান্য ব্লগ সাইট বিশেষত, আমারব্লগ, সচলায়তন, প্রথমআলো ব্লগ কিংবা টেকটেউনসেও সবসময়ই ব্লগারদের ভিড় দেখা যায়৷

বাংলা ভাষায় এই ব্লগিং গুরুত্ব পাচ্ছে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও৷ সম্প্রতি জার্মানির আন্তর্জাতিক সম্প্রচার কেন্দ্র ডয়চে ভেলে সেরা বাংলা ব্লগ প্রতিযোগিতার ঘোষণা দিয়েছে৷ এজন্য চলছে নিবন্ধণ গ্রহণ প্রক্রিয়া৷ এই বিষয়ে আরো বিস্তারিত জানা যাবে: dw-world.de/bengali ঠিকানায়৷

প্রতিবেদক: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারুক

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়