1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

বার্লিনে টেলিযোগাযোগ মিউজিয়াম

মোবাইল ফোন ছাড়া আজকাল আমরা প্রায় অন্ধ হয়ে পড়ি, কারণ এই সঙ্গী দৈনন্দিন জীবনের অনেক কাজে সাহায্য করে৷ কিন্তু প্রথম মোবাইল ফোন এত কাজ করতে পারতো না৷

জার্মানিতে প্রথম মোবাইল ফোনের দাম ছিল চার হাজার ডয়চে মার্ক৷ আজ সেই মোবাইল একটি অমূল্য বস্তু, যা বার্লিনের টেলিযোগাযোগ মিউজিয়ামে শোভা পাচ্ছে৷ মিউজিয়ামের প্রতিনিধি অলিভার গ্যোটসে বলেন, ‘‘কারণটা সহজেই বোঝা যায়৷ এটা পকেটে ঢুকিয়ে রাখা যেতো; ইনস্টলেশন নিয়ে ঝামেলা ছিল না; বাড়িতে চার্জ করে নেওয়া যেতো: এটা সত্যিই ছিল জার্মানির প্রথম মোবাইল টেলিফোন, আমরা আজ মোবাইল বলতে যা বুঝি৷ যা দিয়ে আরো অনেক কিছু করা যেতো, যেমন এসএমএস পাঠানো যেতো৷''

এর আগের মোবাইল যন্ত্রগুলোকে দেখলে বোঝা যায়, প্রযুক্তি হিসেবে প্রথম মোবাইল টেলিফোন এমন একটা বিশাল প্রগতি কেন৷ কালে কালে মোবাইল টেলিফোনের সাইজ কমেছে, ওজন কমেছে – আর তা দিয়ে আরো অনেক কিছু করা যায়৷

ইতিমধ্যে মোবাইল ফোনের নাম বদলে হয়েছে স্মার্টফোন, যে বস্তুটিকে বাদ দিয়ে আমাদের দৈনন্দিন জীবন কল্পনাই করা যায় না৷ মোবাইল ফোন দিয়ে ই-মেল পাঠানো যায়, খবর পড়া যায়, গাড়ির রুট বাছা যায়, ট্যাক্সি ডাকা যায়৷

বার্লিনের কলা বিশ্ববিদ্যালয়ে মোবাইল ফোনের ভবিষ্যৎ নিয়ে গবেষণা চলেছে৷ ডিজাইন গবেষক ফাবিয়ান হেমার্ট সহজ সব প্রোটোটাইপ তৈরি করে দেখেন, আগামীতে বিভিন্ন বস্তুর আকৃতি-প্রকৃতি কীভাবে বদলে যেতে পারে৷ ভবিষ্যতে ফেসবুকের মতো অনেক অ্যাপ্লিকেশন চশমা কিংবা ঘড়িতেই লাগানো থাকবে৷ এবং সেটা যে খুব ভালো হবে, এমন নয়, বলে ফাবিয়ানের ধারণা৷ তিনি বলেন, ‘‘তথ্য যদি একটা মাদক হয়, তবে ফেসবুক হল তার দালাল৷ স্মার্টফোন, স্মার্টগ্লাসেস, স্মার্টওয়াচের মাধ্যমে আমরা এই দালালকে ক্রমেই আরো কাছে আসতে দিচ্ছি৷ আজকে আমাদের যে বস্তুটির অভাব, সেটা সময় নয় – সেটা হল মনোযোগ৷''

আজকের তরুণ সমাজ তাদের মনোযোগের একটা বড় অংশ দিচ্ছে এই সব নয়া নয়া যান্ত্রিক উদ্ভাবনকে৷ নানা অ্যাপ-যুক্ত ঘড়ি কিংবা চশমা একদিন আমাদের পক্ষে স্বাভাবিক হয়ে উঠতে পারে৷ মোবাইল টেলিফোনকে তখন মনে হবে যেন অতীত যুগের কোনো স্মৃতি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক