1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

বার্লিনে গ্রাফিটি প্রদর্শনী

তারা কাজ করে গোপনে, রাতের আঁধারে৷ পাতাল রেল বা ট্রেনের গায়ে কিংবা বাড়ি ঘরের দেয়ালে দেখা যায় তাদের আঁকা ভিন্ন ধরণের চিত্র বা গ্রাফিটি৷ নিজেদের পরিচয় দেয় তারা স্প্রেয়ার বলে৷

default

বার্লিনের দেয়ালে নানা রং-এর গ্রাফিটি

সম্প্রতি বার্লিনে এই সব গ্রাফিটি শিল্পী ও তাদের শিল্পকর্ম নিয়ে ‘‘অপরিচিত'' নামে একটি আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে৷

অনেকের কাছে গ্রাফিটি একধরণের শিল্প, অনেকের কাছে হাবিচাবি আঁকাজোকা৷ গ্রাফিটি স্প্রেয়ারদের অনেকে মনে করেন শিল্পী, অনেকের কাছে তারা অপরাধী৷

Graffiti in Berlin Kreuzberg

বার্লিনের ক্রয়েৎসবের্গে দেখা যাবে এই গ্রাফিটি

এ প্রসঙ্গে টিমো শ্টামব্যার্গার বলেন,‘‘তারা তোমার আমার মতই মানুষ৷ সমাজের নানা স্তর থেকে এসেছেন৷ আমি মনে করি, বিষয়টি খুব আকর্ষণীয় ও বৈচিত্র্যপূর্ণ৷''

৩০ বছর বয়সী আলোকচিত্রশিল্পী টিমো নিজেও অনেক বছর গ্রাফিটি আঁকায় ব্যস্ত ছিলেন৷ বহু দেয়াল ও ট্রেনের গায়ে স্প্রে করেছেন তিনি৷ এখন তিনি শিল্পের ক্ষেত্র পরিবর্তন করেছেন, ঝুঁকেছেন আলোকচিত্রের দিকে৷ তবে অতীতের সঙ্গে সংযোগটাএকেবারে বিছিন্ন হয়নি৷ গ্রাফিটি শিল্প ও শিল্পীরাই তার আলোকচিত্রের মূল বিষয়৷ টিমোর তোলা এই ধরণের বেশ কিছু আলোকচিত্র স্থান পেয়েছে বার্লিনের গ্রাফিটিচিত্র প্রদর্শনী ‘‘অপরিচিততে''৷ ২০ থেকে ৩০ বছরের তরুণদের ছবি৷ কারো কারো মুখ কাপড় দিয়ে ঢাকা৷ কেউ বা নিজেদের শিল্পকর্মের কাছে সগৌরবে ক্যামেরার সামনে পোজ দিয়েছেন৷ স্টেশনের আশে পাশে, ট্রেনের বগিতে বা বন্ধ হয়ে যাওয়া কারখানার দেয়ালে দেখা যায় তাদের শিল্পকর্ম৷ তবে এই সব শিল্পীরা নামটা প্রকাশ করতে চাননা৷ এ প্রসঙ্গে টিমো শ্টামব্যার্গার বলেন,‘‘আমি মনে করি, আমার কাজের শৈল্পিক আবেদনটা সেখানেই, যেখানে আমি দেখাতে পারি, অন্তরালে কী ঘটছে, কী ভাবে তা শহরগুলির অবয়বে গভীর ছাপ রাখছে৷ ''

Graffiti in Hanoi, Vietnam

জার্মানি ছাড়িয়ে গ্রাফিটি পৌছে গেছে এশিয়ায়, ভিয়েতনামে

এই তরুণ গ্রাফিটি শিল্পীরা দিনে সমবয়সী অন্যান্যদের মতই স্বাভাবিক কাজকর্ম বা পড়াশোনা করেন৷ রাত হলেই আঁকাজোকার তাড়না পেয়ে বসে তাদের৷ পাতাল রেল ও বাড়িঘরের দেয়াল কোন কিছুই রক্ষা পায়না তাদের হাত থেকে৷ এখনও বিশ্বের নানা দেশ থেকে শয়ে শয়ে স্প্রেয়ার আসছেন বার্লিনে গ্রাফিটি আঁকার তাগিদে৷ ৯০এর দশকে নিউইয়র্কে বিস্তার লাভ করলেও আজ গ্রাফিটির কেন্দ্রবিন্দু জার্মানির রাজধানী বার্লিন৷

তবে সবাই কিন্তু গ্রাফিটিকে শিল্পকলা বলে মনে করেনা৷ বার্লিনের এক গ্যালারি পরিচালক গুডরুন ফিট্স গ্রাফিটি প্রদর্শনীর জন্য কয়েকটি রুম ছেড়ে দিলেও তাঁর কাছে গ্রাফিটি এক ধরণের ধংসাত্মক কার্যকলাপ৷ তিনি বলেন,

‘‘বাড়িঘরের দেয়ালে আঁকা কিছু কিছু গ্রাফিটিকে আমি শিল্প বলে মনে করি৷ সেখানে হয়তো বাড়ির মালিকরা নিজেরাই শিল্পীদের উদ্বুদ্ধ করেন, যাতে দেয়ালটা ভিন্নরকমের দেখায়৷ তা না হলে এটা আমার কাছে শিল্প নয়৷''

Graffiti im Graffiti Labor The Graff Lab Los Angeles

লস এঞ্জেলেসের একটি দেয়াল

বিশ্বখ্যাত এক গ্রাফিটি স্প্রেয়ার নিউইয়র্কের ভ্যান৷ তার নিজের প্রতিকৃতিও দেখা যায় বার্লিনের প্রদর্শনীটিতে৷ প্রায় ৪০ বছর বয়সী এক ব্যক্তি৷ ছোট চুল, পরনে টুপিওয়ালা টি শার্ট, গুরু গম্ভীর দৃষ্টি৷ পরিত্যক্ত এক কারখানার হলে দাঁড়িয়ে তিনি৷ পেছনে কাঁচভাঙা জানালা৷ ভ্যান এখন বসবাস করছেন বার্লিনে৷ চালিয়ে যাচ্ছেন স্প্রে শিল্পের কাজও৷ টিমো স্টামব্যার্গার জানান,

‘‘তিনি ৮০র দশকে শহরের ও নিকট পাল্লার যানবাহনের চিত্রে একটা আমূল পরিবর্তন এনেছেন৷ অন্তরের তাগিদ থেকেই তিনি এ শিল্পে আত্মনিয়োগ করেছেন৷ বিনিময়ে কোন কিছুই পাননি৷ এ ক্ষেত্রে প্রচুর অর্থ ও পরিশ্রম ব্যয় করলেও কিছু পাওয়া যায় না৷ তবে ঠিক ভাবে করতে পারলে পার্থিব কিছু না পাওয়া গেলেও অনেক দূর পর্যন্ত পৌঁছানো যায়৷''

বার্লিন ও নিউইয়র্কের পাতাল রেলের টানেলের দেয়ালে কিংবা ট্রেনের বগির ওপরে আবছা আলোয় অনেক ঝুঁকি নিয়েই স্প্রে করতে হয় গ্রাফিটি শিল্পীদের৷ সেই সাথে থাকে পুলিশের হাতে ধরা পড়ার ভয়৷ বার্লিনের প্রদর্শনীতে তার খানিকটা আঁচ করতে পারবেন দর্শকরা৷

লেখক: ক্রিশ্টোফ রিখটার/ভাষান্তর: রায়হানা বেগম

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়