1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

বার্লিনের নির্বাচনে পরিবর্তনের হাওয়া

১৩ সেপ্টেম্বর বার্লিন মেয়র নির্বাচন৷ এই নির্বাচন যেন জাতীয় নির্বাচনের চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ৷ পুরোনো মুখের প্রশাসন, না হাওয়া বদল? ভোটার দোলায়িত৷

default

বৈচিত্র্যময় শহর বার্লিন

ইংরেজি শব্দটি হঠাৎ গজিয়ে ওঠেনি৷ দেড় হাজার বছর আগে অ্যাংলো-স্যাক্সন যুগেও ছিল৷ কিন্তু মার্কিন মুলুকে নির্বাচন অভিযানে বারাক ওবামা চেঞ্জ তথা পরিবর্তনের মাত্রা দ্যোতনা এমনই প্রসারিত করেন, যে সর্বত্রই এখন হুজুগ চাই পরিবর্তন৷ এই স্লোগান সমাজ-রাজনীতির হাটেবাজারে-লোকালয়ে-প্রান্তরে তুমুল জনপ্রিয়৷ বিশেষতঃ ভোট প্রচারাভিযানে৷ কেন পরিবর্তন চাই, কীসে পরিবর্তন প্রয়োজন এবং পরিবর্তনে কতটাই-বা পরিবর্তিত রাজনীতির ভিতরমহল, তা নিয়ে বিচার নেই, বিশ্লেষণ নেই, মাথা চুলকানিও নেই৷ কিন্তু চাই পরিবর্তন৷

চেঞ্জের কোরাস এখন পৃথিবীর নানা দেশে৷ আরব-আফ্রিকান দেশে ইতোমধ্যেই জোয়ার৷ অথচ ফায়দা তুলছে অন্য দেশ৷ পশ্চিমবঙ্গে আসন্ন নির্বাচনেও এই স্লোগান মুখরিত৷ ভোটের মাধ্যমে পরিবর্তন চায়৷ গতমাসে জার্মানির দুই গুরুত্বপূর্ণ রাজ্য নির্বাচনে ভোটাররা এমনই আমূল পরিবর্তন করেছেন, যে পরাজিত দল তো বটেই, বিজয়ী দলও হতবাক, বিস্মিত৷

চলতি বছরে বিশ্বের নানা দেশে, নানান রাজ্যে নির্বাচন৷ জার্মানিতেও৷ ১৩ সেপ্টেম্বরে বার্লিনে৷ যদিও মেয়র এবং সেনেটর নির্বাচন, কিন্তু গোটা দেশের চোখ বার্লিনের দিকে৷ কারণও আছে৷ গত দশ বছর ধরে বার্লিনে ত্রিদল ঐক্যজোট সরকার৷ শাসক-মেয়র সামাজিক গণতন্ত্রী দল বা এসপিডি-র ক্লাউস ভোভেরাইট৷ এবারও তিনি প্রতিদ্বন্দ্বী৷ বিপরীতে সবুজ দল বা গ্রিন পার্টির প্রাক্তন কৃষিমন্ত্রী রেনাটে কুনাস্ট৷ এই দুই দলের মধ্যেই মূল লড়াই৷ সিডিইউ এবং এফডিপি কোণঠাসা, বিশেষতঃ বার্লিনে৷

কেউ বলেন, ঐক্যজোট সরকারের পরিবর্তন চাই৷ কেউ বলেন, বার্লিনের জন্যে ঐক্যজোট সরকারই প্রয়োজন৷ আবার কারো মন্তব্য, ঐক্যজোট সরকার গত ১০ বছরে বার্লিনের কিছুই করেনি৷ যে তিমিরে ছিল সে তিমিরেই আছে৷

প্রতিবেদন: দাউদ হায়দার, বার্লিন

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন