1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

বাবা-মায়ের হাতে এক বছরে ৬৪ শিশু নিহত

বাংলাদেশে শিশুর প্রতি সহিংসতা কমছে না৷ গত বছর সারাদেশে ২৬৫ জন শিশু হত্যার শিকার হয়৷ এদের মধ্যে ৬৪ জন নিহত হয় নিজ বাবা-মায়ের হাতে৷ বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন মানবাধিকার ও শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞরা৷

বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরাম প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়৷ মঙ্গলবার প্রকাশিত ঐ প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘‘গত বছরের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ৩ হাজার ৫৮৯টি শিশু সহিংসতা ও নির্যাতনের শিকার হয়েছে৷ তাদের মধ্যে ১ হাজার ৪৪১টি শিশু অপমৃত্যু এবং ৬৮৬টি যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে৷

প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, আগের বছর, অর্থাৎ ২০১৫ সালে ৫ হাজার ২১২টি শিশু বিভিন্ন ধরনের সহিংসতা ও নির্যাতনের শিকার হয়েছিল৷ ২০১৬ সালে সংখ্যার দিক দিয়ে শিশু নির্যাতন কমেছে শকতরা ৩১ দশমিক ১৪ শতাংশ৷

প্রতিবেদনে বলা হয়, গত বছর ৩৬টি শিশু হত্যার মামলার রায়, ২৫টি শিশু ধর্ষণ মামলার রায়, তিনটি শিশু অপহরণ মামলার রায় এবং একটি শিশুর ওপর অ্যাসিড নিক্ষেপ ঘটনার রায় হয়েছে৷ এ সব সহিংসতার দু-তিনটি ছাড়া বাকি সব ঘটনা ঘটেছিল ২০১০-২০১৪ সালে অথবা তারও আগে৷

অডিও শুনুন 03:33

‘বাবা-মায়ের নিজের শিশু হত্যার প্রধান কারণ পারিবারিক কলহ, অর্থনেতিক দুরবস্থা এবং অনৈতিক সম্পর্ক’

মঙ্গলবার প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে উপস্থিত মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান রিয়াজুল হক বাবা-মায়ের হাতে সন্তান নিহতের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘দেশে ২০১৫ সালের চেয়ে ২০১৬ সালে শিশু হত্যা কমেছে৷ অথচ বাবা-মায়ের হাতে শিশু নিহতের ঘটনা বেড়েছে৷ এটা আশঙ্কাজনক৷''

তিনি বলেন, ‘‘মানবাধিকার কমিশন শিশু নির্যাতন কমাতে সভা-সেমিনারের আয়োজন করে মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করছে৷ সেই সঙ্গে সাধারণ মানুষকে সচেতন করে তুলতে গণমাধ্যমের ভূমিকা রয়েছে৷''

শিশু অধিকার ফোরামের চেয়ারম্যান এমরানুল হক চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাবা-মায়ের হাতে নিজেদের শিশু সন্তান হত্যার প্রধান কারণ পারিবারিক কলহ, অর্থনেতিক দুরবস্থা এবং অনৈতিক সম্পর্ক৷ আমাদের সমাজ ব্যবস্থার নেতিবাচক দিক এখানে প্রভাব ফেলছে৷ শিশু হত্যাকে বাবা-মা প্রতিশোধের হাতিয়ার হিসেবে বেছে নিচ্ছে কখনো৷ আবার কখনো মনে করছে নিজে কষ্ট পাবে না, আবার সন্তনকেও কষ্ট থেকে মুক্তি দেবে৷ তাই তাদের হত্যা করে পরে নিজেরা আত্মহত্যা করে৷ এই ভয়ংকর মানসিক অবস্থা শিশুদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করছে৷''

তিনি জানান, ‘‘পরিবারের বাইরে শিশু হত্যার কারণ জমিজমা নিয়ে বিরোধ, শত্রুতা, অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়, বিকৃত মানসিকতা, ধর্ষণ প্রভৃতি৷''

মায়ের হাতে সন্তান হত্যার উদাহরণ হিসেবে গত ১১ জানুয়ারি রাজধানীর দিয়াবাড়িতে মা তার এক সন্তানকে পাশে বসিয়ে রেখে অন্য সন্তানকে হত্যা করে৷ পরে নিজেও আত্মহত্যা করে সেই মা৷ এক্ষেত্রে দারিদ্র্যকে দায়ী করে এমরানুল হক চৌধুরী বলেন, ‘‘শিশু হত্যার পেছনে দারিদ্র্য অনেকখানি দায়ী৷ আমাদের তাই সবার আগে দারিদ্র্যমুক্ত সমাজ গড়ে তুলতে হবে, শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে সবাইকে সচেতন করতে হবে৷''

তিনি বলেন, ‘‘শিশুরা সবচেয়ে দুর্বল, তাই তারাই সবার আগে সহিংসতার শিকার হয়৷ আমাদের সমাজ ও মানসিকতা শিশুবান্ধব নয়৷ আইন আছে, কিন্তু তার কার্যকর প্রয়োগ নেই৷ তাই ব্যাপক গণসচেতনতা ও মানসিকতার পরিবর্তন আনা না গেলে শিশুর প্রতি সহিংসতা কমবে না৷''

এছাড়া শিশুর প্রতি সহিংসতার তেমন বিচার হয় না৷ এখানে বিচারহীনতার এক স্থায়ী সংস্কৃতি লক্ষ্য করা যায়৷ পরিসংখ্যান বলছে, শিশুর প্রতি এক বছরে সহিংসতার যে ঘটনা ঘটে তার শতকরা পাঁচ ভাগেরও বিচার হয় না৷ তাই এমরানুল হক চৌধুরীর কথায়, ‘‘এই বিচারহীনতার সংস্কৃতি দূর করতে হবে৷''

বন্পধু, আপনার কি কিছু বলার আছে? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়