1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বাবরি মসজিদকে নিয়ে রায়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

ভারতের বাবরি মসজিদ এলাকার বিরোধপূর্ণ জমি নিয়ে রায় দিলেন এলাহাবাদ হাইকোর্টের লক্ষ্ণৌ বেঞ্চ৷ আদালতের রায় অনুযায়ী, বিতর্কিত জমি ভাগ করা হবে তিনভাগে৷ এই রায় নিয়ে দেখা দিয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া৷

default

ভারতজুড়ে কড়া নিরাপত্তা

৬১ বছরের বিরোধ

৬১ বছর ধরে চলছিল বিরোধ৷ হিন্দুদের দাবি অযোধ্যার বাবরি মসজিদ প্রাঙ্গনেই বহু আগে জন্ম হয় রাম-এর৷ তাই সেখানে থাকবে মন্দির৷ অন্যদিকে, বাবরি মসজিদের কারণে মুসলমানদের কাছে সে জায়গার গুরুত্ব ভিন্ন৷ এই মসজিদ-মন্দির নিয়ে সৃষ্ট সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় ১৯৯২ সালে প্রাণ হারায় দু'হাজার মানুষ৷ বৃহস্পতিবার বাবরি মসজিদ এলাকার সেই বিরোধপূর্ণ জমি নিয়ে রায় দিয়েছেন আদালত৷

বিতর্কিত জমি তিনভাগ

বর্তমান রায়ে বিতর্কিত জমিকে তিনভাগে ভাগ করার কথা বলা হয়েছে৷ এর এক-তৃতীয়াংশ পাবে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড, অন্যদিকে বাকি দু'অংশের মালিক রামলালা গোষ্ঠী, হিন্দু মহাসভা ইত্যাদি হিন্দু সংগঠন, এবং নির্মোহী আখড়া৷ তবে, এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার কথা জানিয়েছে হিন্দু-মুসলমান দু'পক্ষই৷

মিশ্র প্রতিক্রিয়া

রায় নিয়ে খুব একটা সন্তুষ্ট নন বিশেষজ্ঞরাও৷ বিশিষ্ট আইনজ্ঞ রাজীব ধাওয়ান এর মতে, জমি যদি ভাগ করতে হয় তাহলে প্রথমেই ঠিক করতে হবে, যে জমিটা আসলে কার৷ আমার মতে, আদালত এই রায়ে যা করেছেন, তা হওয়া উচিত ছিল না, কারণ জমির মালিকানা নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের কোন উত্তর দেয়া হয়নি৷

তবে ভারতীয় বিজেপি পার্টি'র নেতা লাল কৃষ্ণ আদভানি আদালতের এই রায়কে সমর্থন জানিয়েছেন৷ তাঁর মতে, এই রায় অযোধ্যার রাম জন্মস্থানে একটি বড় মন্দির নির্মাণের পক্ষে৷ তিনি বলেন, আদালতের রায় হিন্দুদের অধিকারকে সমর্থন করেছে৷ এখন আমরা রামের জন্মস্থানে বড় মন্দির বানানোর দিকে এগোতে পারবো৷

হতাশ মুসলিম সম্প্রদায়

এদিকে, মুসলমান সম্প্রদায় আদালতের রায়ে হতাশা প্রকাশ করেছে৷ বিশেষ করে আদালতের রায়ে, বাবরি মসজিদের সঙ্গে বাবরের সম্পৃক্ততাকে স্বীকার করা হয়নি বলে মত মুসলিম নেতাদের৷ হায়দ্রাবাদের মুসলিম নেতা আসাদউদ্দিন ওডেসি এই প্রসঙ্গে বলেন, মুসলিম সম্প্রদায় এই রায়ে হতাশ৷ আমরা এই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আপিল করব৷

উল্লেখ্য, এই রায়কে কেন্দ্র করে ভারতজুড়ে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়৷ সেদেশের প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং রায় ঘোষণার পর সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন৷ তবে, রায় ঘোষণার পর ভারতে কোন ধরণের সংহিসতার তথ্য পাওয়া যায়নি৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়