1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বাচ্চা তোলা থাকবে ডিপ ফ্রিজে?

একটু বুঝিয়ে বলা যাক: মার্কিন মুলুকে ফেসবুক কিংবা অ্যাপল-এর মতো বড় বড় কোম্পানি তাদের মহিলা-কর্মীদের নিজেদের ডিম্বাণু জমিয়ে রাখার জন্য টাকা দিচ্ছে, যা-তে তারা পরে মা হতে পারেন৷ আগে কেরিয়ার, পরে বাচ্চা৷

প্রথমে প্রস্তাবটা বেশ যুক্তিযুক্ত, এমনকি ফ্যাশানদুরস্ত মনে হতে পারে: এমন এক মহিলা-কর্মী, যার প্রশিক্ষণে কোম্পানি বেশ কিছু অর্থ বিনিয়োগ করেছে, তিনি সন্তানসম্ভবা হয়ে পড়লে বেশ কিছুদিন কাজে আসতে পারবেন না৷ জন্মানোর পরেও সেই শিশুর কারণে মহিলার পক্ষে ওভারটাইম করা, বিজনেস ট্রিপ কিংবা ককটেল পার্টিতে যাওয়া, এ সব মুশকিল হয়ে পড়বে৷ অর্থাৎ মহিলার কেরিয়ারে একটা বিরতি, অন্তত বিঘ্ন ঘটবে, কম করে হলেও ঢেঁড়া পড়বে৷ অন্যদিকে কোম্পানিও মহিলার কাছ থেকে যে পরিমাণ কাজ ও প্রেরণা পেতে পারতো, তার সবটা পাবে না৷

কেরিয়ার আগে, সন্তান পরে

সেই কারণেই অনেক মার্কিন কোম্পানি উচ্চ যোগ্যতা সম্পন্ন, তরুণ মহিলাদের তাঁদের মা হবার ইচ্ছা ভাঁড়ারে তুলে রাখতে সাহায্য করতে চায়৷ ফেসবুক ইতিমধ্যেই যা করছে এবং অ্যাপল আগামী বছর থেকে যা করতে চায়, তা হলো: মহিলা-কর্মীরা যদি তাঁদের ডিম্বাণু হিমায়িত করে রাখতে চান, তবে কোম্পানি তার খরচ দেবে৷ দু'টি সংস্থাই নাকি ডিম্বাণু বের করে তা জমিয়ে রাখার জন্য কর্মী প্রতি ২০ হাজার ডলার পর্যন্ত ব্যয় করতে প্রস্তুত৷

কোম্পানির যুক্তি হলো: মহিলারা কোম্পানির ‘হায়ারার্কি' বা ক্রমাধিপত্যের পর্যায়ক্রমে একটি আকর্ষণীয় ও স্থায়ী অবস্থান নিশ্চিত করে ফেলার পরেই তাঁদের সন্তানধারণের কথা ভাবা উচিত৷ ডিম্বাণু হিমায়িত করার কারণ হলো, ত্রিশের মাঝামাঝি থেকে মহিলাদের সুস্থ ডিম্বাণু উৎপাদনের ক্ষমতা দ্রুত হ্রাস পায়৷ তরুণ বয়সে ডিম্বাণু জমিয়ে রাখলে, পরেও সন্তানের জন্ম দেওয়া যায়৷ এটা কি বাস্তবিক একটা ভালো পরিকল্পনা? দেরিতে সন্তানধারণ করলেও, বিজনেস ট্রিপ, ওভারটাইম, সন্ধ্যায় নানা বিজনেস অ্যাপয়েন্টমেন্ট – এ সবের সঙ্গে যে সন্তান প্রতিপালনের সংঘাত দেখা দেবে না, তার কি কোনো গ্যারান্টি আছে? ডিম্বাণু হিমায়িত করার অর্থ কি শুধু সমস্যাটাকে জমিয়ে রাখা নয়? তার পরিবর্তে সমস্যার তাৎক্ষণিক ও বুনিয়াদি সমাধানই কি কাম্য নয়? সে সমাধান হলো: কি করে মহিলারা সন্তান এবং কেরিয়ার, দু'টোই রাখতে পারেন, যা-তে তাদের দু'টির মধ্যে একটিকে বেছে নিতে, কিংবা একটির ক্ষতি করতে বাধ্য না হতে হয়৷

Kommentarfoto Naomi Conrad Hauptstadtstudio

নাওমি কনরাড

‘পেরেন্টাল লিভ' ও ‘মেটারনিটি রাইটস'

প্রথমটি বলতে বোঝায়, শিশুর জন্মের পর প্রথম কিছুদিন তার দেখাশোনার জন্য মা কিংবা বাবাকে যে ছুটি দেওয়া হয়; দ্বিতীয়টির অর্থ, মা হওয়ার আগে ও পরে কিছুদিন একজন মহিলা কর্মীকে বরখাস্ত করা চলে না৷ অ্যাপল এবং ফেসবুক চার মাসের ‘পেরেন্টাল লিভ' দিয়ে থাকে৷ পরে ছোট ছেলে-মেয়েদের দেখাশোনার জন্য কোম্পানির নিজের কিন্ডারগার্টেন আছে৷ কিন্তু অ্যামেরিকার অন্যত্র পরিস্থিতি আরো অনেক খারাপ – কেননা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ‘পেরেন্টাল লিভ' কিংবা ‘মেটারনিটি রাইটস' সংক্রান্ত কোনো আইনগত অধিকার নেই৷ সেখানে পুরুষ অধ্যুষিত ‘আইটি' শিল্প যে ডিম্বাণু হিমায়িত করার প্রস্তাব দিয়ে মহিলাদের আকর্ষণ করতে চাইছে, তাকে প্রগতিশীল বলতে হয় বৈকি...৷

মুশকিল হলো এই যে, প্রস্তাবের ভিত্তিটাই ভ্রান্ত: সন্তান এবং কেরিয়ার, দু'টোই রাখার অর্থ এ হতে পারে না যে, নিজের পরিবার পরিকল্পনাকে শিকেয় তুলে রাখতে হবে! বরং সন্তান ও কেরিয়ার, উভয়কে রাখতে হলে চাই এমন কাজের চুক্তি ও শর্তাবলী, যার বলে মহিলা কর্মীরা নিজেদের জীবন নিশ্চিন্ত এবং সঠিকভাবে পরিকল্পনা করতে পারবেন৷ জার্মানিতে – এবং অন্যত্র – তরুণ কর্মীদের – যেমন পুরুষ, তেমনি মহিলাকর্মীদের এক অথবা দু'বছরের বেশি ‘কনট্র্যাক্ট' দেওয়া হয় না: যার ফলে এই তরুণ প্রজন্মের নবাগত শ্রমিক-কর্মচারীদের কর্মসংস্থানের কোনো নিরাপত্তা থাকে না, যার অর্থ, তাঁরা এই অনিশ্চিত পরিস্থিতিতে সন্তানের দায়িত্ব নিতে দ্বিধা বোধ করেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন