1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

বাঙালির গর্বের মানুষ সত্যজিত রায়

যে কজন বাঙালিকে নিয়ে আমাদের গর্ব চিরকালীন, তাঁদেরই একজন সত্যজিত রায় আজ বেঁচে থাকলে নব্বই বছরে পড়তেন৷বিংশ শতাব্দের সিনেমা যে নামগুলিকে স্বর্ণাক্ষরে লিখে রেখেছে, তাঁদের মধ্যে বাঙালি সত্যজিত অন্যতম৷

default

সত্যজিত রায়

সত্যজিত রায়ের জন্ম পরাধীন ভারতবর্ষের কোলকাতায়৷ এক সংস্কৃতিমোদী পরিবারে৷ যে রায় পরিবার বাংলা সাহিত্য, শিল্পকে দিয়েছে বহুকিছু৷ সময়টা হল দোসরা মে, ১৯২১৷ অল্প বয়সে প্রখ্যাত লেখক পিতা সুকুমার রায়কে হারান সত্যজিত৷ পড়শোনা করেন শান্তিনিকেতনে রবীন্দ্রনাথের গভীর সান্নিধ্যে আর সাংস্কৃতিক পরিবেশে৷

যুবক বয়সে তাঁর আগ্রহ ছিল ছবি আঁকায়৷ শুরু করেন কমার্শিয়াল আর্টিস্টের কাজ৷ অ্যাড এজেন্সিতে৷ এরপর লন্ডন যাত্রা এবং সেখানেই পাশ্চাত্ত্যের নব্যধারার বা নিও রিয়ালিজমের ছবির সঙ্গে তাঁর পরিচয়৷ ফরাসি নির্দেশক জঁ রেনোয়ার সঙ্গে পরিচয় হয় ইউরোপে৷ ইটালিয় পরিচালক ভিতোরিও দে সিকার ‘দ্য বাইসাইকল থিফ' নামের নব্য বাস্তবতার ছবিটি ১৯৪৮ সালে লন্ডনে দেখে মুগ্ধ হন সত্যজিত৷ খুঁজে পান তাঁর নিজের কাজের পথ৷

দেশে ফিরে শুরু হয় সংগ্রাম৷ ছবি বানানোর জন্য৷ প্রথম ছবি পথের পাঁচালি৷ বিভূতিভূষণের ধ্রুপদী উপন্যাস ছিল যার উত্স৷ এই ছবিটিই বিশ্বের আঙিনায় ভারতীয় ছবিকে পৌঁছে দেয়৷ শোনা যায়, বিশ্বের কোথাও না কোথাও আজও প্রতিদিন যে ছবিটি অন্তত একবার করে দেখেন কেউ না কেউ, তার নাম ওই পথের পাঁচালি৷ ১৯৫৫সালে তৈরি এই ছবি মোট ১১টি আন্তর্জাতিক পুরস্কার জিতেছে৷

Rabindranath Tagore.jpg

রবীন্দ্রনাথের সান্নিধ্যে শান্তিনিকেতনে সত্যজিত কাটিয়েছিলেন তাঁর শৈশবের অনেকটাই৷

অপু ট্রিলজি সত্যজিতের এক অসামান্য কাজ৷ তার বাইরে রবীন্দ্রনাথের কাহিনী নির্ভর চারুলতা বা ঘরে বাইরে ছাড়াও ছবি বানিয়েছেন প্রায় আমৃত্যু৷ পথের পাঁচালি দিয়ে যে যাত্রা শুরু হয়েছিল, ১৯৯১ সালে নিজের কাহিনী নির্ভর আগন্তুক ছবি দিয়ে সেই যাত্রার সমাপ্তি৷ মৃত্যু ১৯৯২ সালের ২৩ এপ্রিল৷

বাঙালিকে সত্যজিত তাঁর মেধা আর চিন্তনের যে ফসল উপহার দিয়ে গেছেন, তা সর্বকালের গর্ব৷ সত্যজিতের পিতামহ উপেন্দ্রকিশোরের সৃষ্টি দুটি চরিত্র গুপী বাঘা আর তাদের কার্যকলাপকে তিনি নিজে ছবিতে রূপ দিয়েছেন৷

একের পর এক কাহিনী সৃষ্টি করেছেন এই দুটি কিশোরপ্রিয় চরিত্র নিয়ে৷ বস্তুত, কিশোর বা শিশুদেরই নয়, গুপী বাঘা হয়ে উঠেছে সব বয়সের মানুষের কাছেই সমান গ্রহণযোগ্য৷ তাছাড়া বাঙালিকে দেওয়া তাঁর আরও উপহার এক একশোভাগ বাঙালি গোয়েন্দা ফেলুদা বা প্রদোষ মিত্র৷ ছবি করেছেন ফেলুদাকে নিয়েও৷

জন্মদিন আসে জন্মদিন ফিরে যায়৷ যেমন এই দোসরা মে৷ এই দিনটায় বেঁচে থাকলে তাঁর নব্বই হত৷ সেটা তো শুধুই একটা সংখ্যার হিসাব মাত্র৷ হয়তো আরও অনেক কাজ করতেন তিনি৷ পাওনা হত সেটাও আমাদের মননের৷ কিন্তু, যা করে গেছেন, তা আমাদের সকলের কাছেই আত্মার প্রিয় সম্পদ হয়ে রয়ে গেছে৷ থাকবেও৷ যতদিন বাংলা ভাষা থাকবে, থাকবে সুস্থ সংস্কৃতি, রুচি আর সৃজনের মূল্য, ততদিন এই সম্পদ আমাদের ঘুরেফিরেই ঋদ্ধ করবে৷ আনন্দ দেবে৷

প্রতিবেদন- সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সম্পাদনা - সাগর সরওয়ার

সংশ্লিষ্ট বিষয়