1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বাঘ বাঁচাতে শুরু হলো সেইন্ট পিটার্সবার্গ সম্মেলন

বাঘ বাঁচাতে রাশিয়ায় মিলিত হলেন বিভিন্ন দেশের শীর্ষ নেতারা৷ বাঘের অস্তিত্ব বিপন্ন হওয়া ঠেকাতে কয়েক কোটি ডলারের তহবিল গঠন করা হতে পারে বৈঠকে৷ এছাড়া ২০২২ সালের মধ্যে বাঘের সংখ্যা দ্বিগুণ করার পরিকল্পনা নিয়েও চলছে আলোচনা৷

tiger, cave, China, Garden, বাঘ, সেইন্ট পিটার্সবার্গ, রাশিয়া, ভারত, চীন, বাংলাদেশ

ফাইল ছবি

বাঘের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ পাচার এবং বাঘের আবাসস্থান ধ্বংস করে ফেলার কারণে মাত্র একশ' বছর আগে এদের সংখ্যা এক লাখ থাকলেও এখন তা নেমে দাঁড়িয়েছে তিন হাজার দুইশ'তে৷ তাই বাঘের অস্তিত্ব রক্ষায় ২০২২ সালকে ঘোষণা করা হয়েছে আন্তর্জাতিক বাঘ বর্ষ হিসেবে৷ অথচ এখনই বাস্তব পদক্ষেপ না নিলে ২০২২ সাল নাগাদ বাঘের গোটা প্রজাতিই উজাড় হতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে আন্তর্জাতিক সংস্থা ডাব্লিউডাব্লিউএফ৷ সংস্থাটির মহাপরিচালক জেমস লিয়াপের মতে, ‘‘তাই বাঘ রক্ষায় এখন প্রয়োজন রাজনৈতিক সদিচ্ছা৷''

এই পরিপ্রেক্ষিতে স্বঘোষিত প্রাণীপ্রেমী রুশ প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুটিনের উদ্যোগেই বাঘ সম্মেলনের আয়োজন৷ ১৩ টি দেশ থেকে নেতারা জড়ো হয়েছেন সেইন্ট পিটার্সবার্গে৷ বিশেষ করে যেসব দেশে বাঘের অবাধ বিচরণ ক্ষেত্র রয়েছে এবং সেগুলো সংকুচিত হওয়ার পথে সেসব দেশ থেকে নেতাদের অংশগ্রহণকেই বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে আমন্ত্রণের ক্ষেত্রে৷

চার দিনের এই সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশনে বিশ্বব্যাংকের পূর্ব-এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ঊপ-প্রধান জিম অ্যাডামস বলেন, ‘‘বাঘের সংখ্যা দ্বিগুণ করার প্রয়াস নিয়ে বিশ্ব নেতাদের এটা অভূতপূর্ব সমাগম৷ বাঘ বিষয়ে আন্তর্জাতিক এই উদ্যোগ প্রকৃতি সুরক্ষাসহ বিশ্বের ভারসাম্যপূর্ণ অর্থনৈতিক উন্নয়নের একটি উদাহরণ৷'' বিশ্বব্যাংকের হিসাব অনুযায়ী, বাঘ রক্ষায় সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর সমন্বিত উদ্যোগকে এগিয়ে নিতে আগামী পাঁচ বছরে কমপক্ষে ৩৫ কোটি ডলার তহবিল প্রয়োজন হবে৷ তাই এই তহবিল গড়তে সেইন্ট পিটার্সবার্গ সম্মেলন বড় ভূমিকা রাখবে বলে প্রত্যাশা সংশ্লিষ্টদের৷

এছাড়া বিশ্ব উষ্ণায়নের মতো অন্যান্য প্রাকৃতিক হুমকিসমূহ মোকাবিলার ক্ষেত্রেও এই সম্মেলন একটি উদাহরণ হিসেবে থাকবে বলে মনে করেন রুশ প্রাকৃতিক সম্পদ মন্ত্রী ইয়ুরি ট্রুটনেভ৷ চীনা প্রধানমন্ত্রী ওয়েন জিয়াবাও এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ ভারত, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, মিয়ানমার, নেপাল, ভূটান, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, লাওস এবং কম্বোডিয়ার নেতারা সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন বলে খবরে প্রকাশ৷

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: ফাহমিদা সুলতানা

নির্বাচিত প্রতিবেদন