1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘বাঘের প্রজাতি কমিয়ে সংরক্ষণ বৃদ্ধি সম্ভব'

এ কথা বলেছেন জার্মানি রাজধানী বার্লিনের লাইবনিৎস চিড়িযাখানা ও বন্যপ্রাণী গবেষণা প্রতিষ্ঠানের আন্তর্জাতিক গবেষকরা৷ তাঁরা সকলেই চান, বাঘেদের উপপ্রজাতি বর্তমানের নয়টি থেকে কমিয়ে মাত্র দু'টি করা হোক৷

প্রস্তাবটা তাত্ত্বিক হলেও ব্যাঘ্র সংরক্ষণের ক্ষেত্রে তার প্রভাব হবে ব্যাপক ও সুদূরপ্রসারী, এই হলো বিজ্ঞানীদের আশা৷ তাঁরা চান ‘সুন্দা' টাইগার – অর্থাৎ ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা, জাভা ও বালি দ্বীপে যে ধরনের বাঘ পাওয়া যায় – আর কন্টিনেন্টাল টাইগার, মাত্র এই দু'টি স্বতন্ত্র উপপ্রজাতি বজায় রেখে বাকিগুলো (পুঁথিপত্র এবং হিসেব থেকে) তুলে দেওয়া হোক৷

গবেষণাটি করা হয় বার্লিনের লাইবনিৎস চিড়িয়াখানা ও বন্যপ্রাণী গবেষণা কেন্দ্রের তরফ থেকে৷ আন্তর্জাতিক গবেষকরা প্রকল্পটিতে অংশগ্রহণ করেন৷ গবেষণার ফলাফল প্রকাশিত হয় মার্কিন ‘সায়েন্স অ্যাডভান্সেস' জার্নালে৷ গবেষকরা বাঘের ন'টি চলতি উপপ্রজাতি বিশ্লেষণ করেছেন: যার মধ্যে তিনটি উপপ্রজাতি ইতিমধ্যেই বিলুপ্ত হয়েছে এবং চতুর্থ একটি উপপ্রজাতি শুধুমাত্র চিড়িয়াখানায় বেঁচে রয়েছে৷

প্রায় ২০০টি বাঘের মাথার খুলি, ১০০টির বেশি বাঘের চামড়া, এছাড়া রসায়ন ও পরিবেশগত নানান তথ্য বিচার করে গবেষকরা এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন যে, ‘প্যানথেরা টাইগ্রিস সনডাইকা' এবং ‘প্যানথেরা টাইগ্রিস টাইগ্রিস' ছাড়া আর কোনো উপপ্রজাতিকে স্বীকৃতি দেবার প্রয়োজন নেই৷

তার মধ্যে দ্বিতীয়, অর্থাৎ কন্টিনেন্টাল টাইগার উপপ্রজাতিটিকে দুটি ‘কনজারভেশন ম্যানেজমেন্ট ইউনিট' বা সংরক্ষণ সংক্রান্ত কর্মক্ষেত্রে ভাগ করা চলবে: যেমন উত্তরে সাইবেরিয়ার আমুর টাইগার ও দক্ষিণে রয়াল বেঙ্গল টাইগার৷

এশিয়ার জঙ্গলগুলোতে আজ মাত্র ৩,২০০ থেকে ৩,৬০০ বাঘ বেঁচে রয়েছে, বলে বিজ্ঞানীদের অনুমান৷ বাঘেদের আদত হ্যাবিট্যাট বা বাসস্থান কমে মাত্র সাত শতাংশে এসে দাঁড়িয়েছে৷ এমন অবস্থায় ব্যাঘ্র সংরক্ষণের ক্ষেত্রে নানা ধরনের উপপ্রজাতির উপর নজর রাখতে গেলে কাজের ক্ষতি হবে, বলে বার্লিনের গবেষকদের ধারণা৷ তাঁরা চান, বিভিন্ন দেশের টাইগার পপুলেশন বা ব্যাঘ্র গোষ্ঠীকে এক করে দেখা হোক, এমনকি ‘হাইব্রিড' বা মিশ্র উপপ্রজাতির বাঘেও তাঁদের আপত্তি নেই – যেহেতু তাতে ‘জিন পুল' বা বংশগত সংমিশ্রণ বাড়বে৷ এক্ষেত্রে মুখ্য গবেষক টোমাস ভিল্টিং দক্ষিণ চীন তথা ইন্দোচীনের প্রায় অবলুপ্ত ব্যাঘ্র গোষ্ঠীগুলির উদাহরণ দিলেন: মালয় এবং বেঙ্গলের ‘‘সাদার্ন কন্টিনেন্টাল'' টাইগারদের সঙ্গে তাদের যোগ করলে সংরক্ষণের কাজ অনেক সহজ হবে, বলে বিজ্ঞানীদের ধারণা৷

টাইগার কনজারভেশন বা ব্যাঘ্র সংরক্ষণের কাজও সর্বত্র একহারে এগোচ্ছে না৷ নেপাল, ভারত অথবা রাশিয়ার মতো দেশে বাঘের সংখ্যা বাড়ছে – যেমন ভারতে বিগত তিন বছরে বাঘের সংখ্যা প্রায় ৩০ শতাংশ বেড়ে ২০১৪ সালের শেষে দাঁড়িয়েছে ২,২২৬-এ৷ অপরদিকে ইন্দোনেশিয়া কিংবা মালয়েশিয়ার মতো দেশে বাঘেদের আদমশুমারি পর্যন্ত করা হয় না৷ কাম্বোডিয়া, লাওস ও ভিয়েতনাম-এ বাঘেরা প্রায় নিশ্চিহ্ন হয়েছে৷ অপরদিকে থাইল্যান্ড এবং মিয়ানমারে স্বল্প মেয়াদে বাঘের সংখ্যা বাড়ানো সম্ভব৷

এসি/ডিজি (ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়