1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

বাঘের পর এবার শুরু হচ্ছে হাতি সংরক্ষণ প্রকল্প

বাঘ রক্ষায় সরকারের সহায়তায় বর্তমানে একটি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে৷ এবার শুরু হচ্ছে হাতি সংরক্ষণ প্রকল্প৷ এ লক্ষ্যে একটি ‘অ্যাকশন প্ল্যান' তৈরির কাজ চলছে৷

‘ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অফ নেচার' আইইউসিএন-এর উদ্যোগে এই পরিকল্পনা তৈরির কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত আশরাফুল হক৷ তিনি আশা করছেন এ বছরের মধ্যেই প্রকল্পটি বাস্তবায়নের কাজ শুরু করা যাবে৷ দশ বছর মেয়াদি এই প্রকল্প শেষ হবে ২০২৫ সালে৷

আইইউসিএন বাংলাদেশের কর্মকর্তা আশরাফুল হক জানান, মানুষের সংখ্যা বাড়ায় দিন দিন বনের পরিমাণ কমে যাচ্ছে৷ আর এটাই হাতির জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি৷ কারণ এর ফলে বাসস্থানের পাশাপাশি খাবার সংকটেও পড়ছে হাতিরা৷

তিনি বলেন, জনসংখ্যা বাড়ার কারণে এখন অনেক মানুষ বনের খুব কাছে বসতি স্থাপন করছে৷ ফলে প্রায়ই দেখা যায় বণ্য হাতিরা মানুষের বসতি এলাকায় ঢুকে পড়ছে৷ এতে করে হাতির সঙ্গে স্থানীয়দের একটি সংঘাত তৈরি হচ্ছে৷ ফলে মারা যাচ্ছে মানুষ, কখনও কখনও প্রাণ হারাচ্ছে হাতিও৷ বন বিভাগের হিসেবে, গত ১৩ বছরে বণ্য হাতির হামলায় কমপক্ষে ৯৩ জন প্রাণ হারিয়েছে৷

মানুষ ও হাতির মধ্যে এই সংঘাত কমাতে স্থানীয়দের নিয়ে ‘এলিফেন্ট রেসপন্স টিম' গঠন করা হবে বলে জানালেন আশরাফুল হক৷ হঠাৎ করে হাতি লোকালয়ে চলে এলে কীভাবে তাকে পোষ মানিয়ে আবার বনে ফেরত পাঠানো যায় সে বিষয়ে রেসপন্স টিমের সদস্যদের প্রশিক্ষণ দেয়া হবে৷ হাতি-মানুষের সংঘাত বেশি ঘটে এমন ২৬টি এলাকা চিহ্নিত করা হয়েছে৷ ঐসব জায়গায় এমন টিম গঠন করা হবে বলে জানান আইইউসিএন কর্মকর্তা৷

হাতির সংখ্যা

বাংলাদেশে হাতির সংখ্যা নিয়ে সবশেষ ২০০৪ সালে একটি সমীক্ষা হয়েছিল৷ আইইউসিএন সেটা করেছিল৷ ঐ হিসেবে বাংলাদেশে হাতির সংখ্যা ছিল ২২৭ থেকে ২৪০ এর মধ্যে৷ প্রকল্পের আওতায় নতুন করে হাতি গণনার কাজ চলছে৷ এ বছরই সেটা প্রকাশ করা হবে৷

চট্টগ্রামের লোহাগড়ার চুনতি অভয়ারণ্য, বাঁশখালী; কক্সবাজারের টেকনাফ, উখিয়া, ডুলহাজরা; বান্দরবনের লামা, আলিকদম; রাঙ্গামাটির কাপ্তাই, পাবলাখালী এসব এলাকায় বেশি হাতি বাস করে৷ এছাড়া নেত্রকোনা, শেরপুরের ভারতীয় সীমান্ত সংলগ্ন কামালপুর, দুর্গাপুর, বক্সীগঞ্জ, নলিতাবাড়ি এবং মৌলভীবাজারের জুরি রেঞ্জ এলাকায়ও হাতি দেখতে পাওয়া যায়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়