1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বাগদাদে সিরিজ বোমা হামলা : নিহত অন্তত ৪০

একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, হঠাৎ করেই আমরা একটা বিকট শব্দ শুনতে পাই এবং এই ভবনটি ধসে পড়ে৷ তিনি বলেন, ধ্বংসস্তুপের নীচে অনেক মানুষ আটকা পড়ে আছেন৷

default

বাগদাদে বোমা হামলা, ফাইল ফটো

ইরাকে গত পাঁচ দিনের মধ্যে এই নিয়ে চতুর্থবারের মত একের পর এক বোমা হামলার ঘটনা ঘটলো৷ গত শুক্রবার থেকে এই সব হামলায় এ পর্যন্ত শতাধিক ব্যক্তি প্রাণ হারিয়েছেন৷

বাগদাদের অপারেশন কমান্ড কেন্দ্র থেকে ইরাকের সামরিক মুখপাত্র মেজর জেনারেল কাশিম আল-মুসাবি বলেন, হামলাকারীরা বাড়িতে তৈরি বোমা ব্যবহার করেছে৷ এছাড়া তিনি বলেন, একটি হামলায় গাড়ি বোঝাই বিস্ফোরক ব্যাবহার করা হয়েছে৷ মেজর মুসাবি মঙ্গলবার সাতটি বিস্ফোরণের কথা জানালেও বাগদাদের মার্কিন দূতাবাস পাঁচটি বিস্ফোরণের কথা নিশ্চিত করেছে৷ শুক্রবার থেকে এই পর্যন্ত হওয়া বিস্ফোরণগুলোর জন্যে মুসাবি আল-কায়েদা এবং ক্ষমতাচ্যুত সাদ্দাম হোসেনের নিষিদ্ধ ঘোষিত বাথ পার্টিকে দায়ী করেছেন৷ তিনি সরকারি টেলিভিশনে বলেন, ‘‘আমরা যুদ্ধক্ষেত্রেই আছি এবং যেকোন ধরণের হামলা হতে পারে বলে আশঙ্কা করছি৷'' নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশ এবং চিকিৎসকরা জানিয়েছেন যে, নিহতদের মধ্যে নারী ও শিশুও রয়েছে৷

মঙ্গলবারের অন্তত তিনটি বিস্ফোরণে সাতটি ভবন ধ্বংস হয়ে গেছে৷ এর মধ্যে বাগদাদের উত্তরাঞ্চলের কয়েকটি আ্যপার্টমেন্ট ভবন ধ্বংস হয়েছে৷ বোমা হামলায় শহরের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের একটি ভবনও ধ্বংস করা হয়েছে৷ হামলায় আরো ধ্বংস হয়েছে শহরের কেন্দ্রস্থলের কাছের একটি রেস্তোরাঁ৷ হামলায় ধসে পড়া বাগদাদের কেন্দ্রস্থলের আলাবি অঞ্চলের একটি তিনতলা ভবনের ধ্বংসস্তুপ সরিয়ে জীবিতদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে উদ্ধারকর্মীরা৷ একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, হঠাৎ করেই আমরা একটা বিকট শব্দ শুনতে পাই এবং এই ভবনটি ধসে পড়ে৷ তিনি বলেন, ধ্বংসস্তুপের নীচে অনেক মানুষ আটকা পড়ে আছেন৷ মঙ্গলবারের হামলার বেশিরভাগ এলাকাই মেহদি আর্মির শক্ত ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত৷ মেহদি আর্মির সদস্যরা শিয়া নেতা মুকতাদা আল সাদরের ‘সাদরিস্ট' আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত৷

Iyad Allawi

ইরাকের সাবেক প্রধানমন্ত্রী আইয়াদ আলাওয়ি

গত ৭ই মার্চের সংসদীয় নির্বাচনের পরই এই বোমা হামলার ঘটনাগুলো বেড়ে গেছে৷ নির্বাচনে সাবেক প্রধানমন্ত্রী আইয়াদ আলাওয়ি এগিয়ে থাকলেও ইরাকের পরবর্তী সরকার কে গঠন করবেন তা নিয়ে এখনও অনিশ্চয়তা রয়েছে৷ আলাওয়ি নির্বাচনে এগিয়ে থাকলেও প্রকৃত বিজয়ী কে তা এখনও নিশ্চত নয়৷ কোয়ালিশন আলোচনা শেষ হতে অরো কয়েক মাস লেগে যেতে পারে৷ একটি নতুন সরকার গঠনে আলোচনা চালাচ্ছে ইরাকের প্রধান সবগুলো কোয়ালিশন৷ শেষবার অর্থাৎ ২০০৫ সালের সংসদীয় নির্বাচনের পরও উপদলীয় সংঘাত বেড়ে গিয়েছিল৷ কেননা তখনও সরকার গঠনের জন্যে ঐক্যমত্যে পৌঁছাতে সময় লেগেছিল পাঁচ মাস৷

প্রতিবেদক : ফাহমিদা সুলতানা

সম্পাদনা : দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়