1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

‘বাংলা একাডেমির এ সিদ্ধান্ত জঙ্গিবাদকে উসকে দেবে'

শ্রাবণ প্রকাশনী নামে একটি প্রকাশনা সংস্থাকে দু'বছরের জন্য বইমেলায় নিষিদ্ধের সিদ্ধান্তে অটল বাংলা একাডেমি৷ একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান বলেন, ‘‘এই প্রকাশনীকে বইমেলায় স্টল দেয়ায় সুযোগ দিলে বইমেলা চালানো যাবে না৷''

শামসুজ্জামান খানের কথায়, ‘‘শ্রাবণ প্রকাশনীর মালিক শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন৷ গত বইমেলায় আমরা ব-দ্বীপ প্রকাশন নামে একটি প্রকাশনা সংস্থার বই নিষিদ্ধ করি এবং স্টল বন্ধ করে দিই৷ তাদের একটি বইয়ে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স.) জীবন নিয়ে অশ্লীল এবং আপত্তিকর লেখা ছিল৷ বাংলা একডেমির সেই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে শ্রাবণ প্রকাশনীর মালিক আন্দোলন করেন, বক্তব্যও দেন৷ কলো কাপড় মুখে বেধে প্রতিবাদ করেন তিনি৷ তাই বইমেলায় এই প্রকাশনীর স্টল থাকলে বইমেলা চালানো যাবে না৷ আমরা তাই একাডেমির পরিচালনা পর্ষদে আগামী দু'বছরের জন্য শ্রাবণ প্রকাশনীকে নিষিদ্ধ করেছি৷''

অডিও শুনুন 02:40

‘ব-দ্বীপ প্রকাশনের বই নিষিদ্ধ ও স্টল বন্ধ করা ছিল অন্যায়’

শ্রাবণ প্রকাশনীর কর্ণধার রবিন আহসান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলা একাডেমির এই সিদ্ধান্ত জঙ্গিবাদকে উসকে দেবে৷ এটা করে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক বইমেলায় ৪০টিরও বেশি নতুন বই এবং চার শতাধিক লেখককে রুদ্ধ করে দিলেন৷ এটা বাকস্বাধীনতা, মুক্তচিন্তা এবং লেখকের স্বাধীনতার বিরুদ্ধে অবস্থান৷ মহাপরিচালক যা করেছেন তাতে জঙ্গিরা উৎসাহিত হবে৷''

রবিন আহসান বলেন, ‘‘ব-দ্বীপ প্রকাশনের বই নিষিদ্ধ ও তাদের স্টল বন্ধ করা ছিল অন্যায়৷ আমি এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছি৷ মালিকসহ যাঁদের আটক করা হয়েছে, তাঁদের মুক্তি দাবি করেছি৷ শাহবাগে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছি৷ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ক্যাম্পেইন করেছি৷ কিন্তু আমি কোনো অন্যায় করিনি৷ অথচ এই অপরাধেই সাংস্কৃতিক প্রতিমন্ত্রী এবং বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক মিলে বইমেলায় আমার শ্রাবণ প্রকাশনীকে নিষিদ্ধ করেছেন৷ এটা করে তাঁরা বিষয়টিকে উসকে দিয়েছেন৷''

অডিও শুনুন 02:09

‘বইমেলায় এই প্রকাশনীর স্টল থাকলে মেলা চালানো যাবে না’

তিনি আরো বলেন, ‘‘বই নিষিদ্ধ হতে পারে৷ এর পক্ষে-বিপক্ষে কথাও হতে পারে৷ কিন্তু নিষিদ্ধ বইয়ের পক্ষে কথা বলা যাবে না, এটা হয় না৷ এটা বাকস্বাধীনতা ও মুক্তচিন্তার হরণ৷''

বাকস্বাধীনতা ও মুক্তবুদ্ধির চর্চার প্রতি আঘাতের ব্যাপারে জানতে চাইলে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক ডয়চে ভেলের কাছে টেলিফোনে সরাসরি কোনো মন্তব্য করতে চাননি৷ তাঁর দাবি, ‘‘তারা এমন কিছু করেছে যা টেলিফোনে বলা সম্ভব নয়৷ আপনি এসে দেখে যান৷''

এদিকে পরিচালনা পর্ষদের সর্বসম্মত সিদ্ধান্তে শ্রাবণ প্রকাশনীকে দু'বছরের জন্য নিষিদ্ধের কথা বলা হলেও, সাবাই তা জানেন না৷ পরিচালানা পর্ষদের সদস্য লেখিকা সেলিনা হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমি পরিচালনা পর্ষদের সভার সময় দেশের বাইরে ছিলাম৷ কেউ আমাকে পরে বিষয়টি জানায়নি৷ বৈঠকের কার্যবিবরণী দেখলে আসলে বলতে পারব কী কারণে ওদের নিষিদ্ধ করা হয়েছে৷''

এ ব্যাপারে জানতে সাংস্কৃতিক প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাঁকে পাওয়া যায়নি৷

অডিও শুনুন 00:24

‘আমি বাইরে ছিলাম, কেউ আমাকে বিষয়টি জানায়নি’

মঙ্গলবার বিকেলে শ্রাবণ প্রকাশনীর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞার প্রতিবাদে লেখক-শিল্পী-সংস্কৃতিকর্মী ও নাগরিকবৃন্দের ব্যানারে বাংলা একাডেমির সামনে মানববন্ধন হয়৷ মানববন্ধনে বক্তারা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবি জানান৷ তাঁদের কথায়, ‘‘বাংলা একাডেমির এই সিদ্ধান্ত বেআইনি এবং মুক্তবুদ্ধি চর্চার ওপর আঘাত৷''

প্রসঙ্গত, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার মতো লেখা আছে, এই অভিযোগে অমর একুশে বইমেলা চলাকালে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি রাতে ব-দ্বীপ প্রকাশনের স্টল থেকে ‘ইসলাম বিতর্ক' নামের বইটির সব কপি জব্দ করে পুলিশ৷ আটক করে বইয়ের লেখক ও ব-দ্বীপ প্রকাশনের মালিক শামসুজ্জোহা মানিক, ছাপাখানা শব্দকলি প্রিন্টার্সের মালিক তসলিম উদ্দিন কাজল ও ব-দ্বীপ প্রকাশনের বিপণন শাখার প্রধান শামসুল আলমকে৷ তাঁদের বিরুদ্ধে তখন তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭(২) ধারায় মামলা করা হয়৷ শামসুজ্জোহা মানিক এখনো কারাগারে আছেন৷ মামলায় চার্জশিট দেয়া হয়েছে, অর্থাৎ বিচার শুরু হবে যে কোনো সময়৷ এঁদের আটকের পর থেকে ব-দ্বীপ প্রকাশন বন্ধ আছে৷ শ্রাবণ প্রকাশনীর মালিক রবিন আহসান প্রকাশনা সংস্থাটি খুলে দেয়া এবং শামসুজ্জোহা মানিকের মুক্তির দাবি জানিয়ে আসছিলেন৷

আপনি কী মনে করেন? শ্রবণ প্রকাশনীকে নিষিদ্ধ করা কি সত্যিই বাকস্বাধীনতা হরণ করা? লিখুন মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়