1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বাংলাদেশ-ভারত পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক

নতুন দিল্লিতে বাংলাদেশ-ভারত পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে যোগ দিতে বৃহস্পতিবার ঢাকা ছেড়েছেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী৷ এই বৈঠকে অমীমাংসিত বিষয়গুলোর ওপর গুরুত্ব দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি৷

Bangladesch feiert Unabhängigkeitstag

প্রতীকী ছবি

গত মে মাসে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নরেন্দ্র মোদী দায়িত্ব নেয়ার পর, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ ইতিমধ্যেই ঢাকা সফর করে গেছেন৷ কিন্তু মোদী সরকার দায়িত্ব নেয়ার পরে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এটাই প্রথম দ্বিপাক্ষিক ভারত সফর৷

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী তাই বড় একটি প্রতিনিধি দল নিয়ে দিল্লি গেছেন৷ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব, পররাষ্ট্রসচিব, বাণিজ্যসচিব, নৌ-পরিবহনসচিব, বিদ্যুত্‍সচিব ও পানিসম্পদ সচিব রয়েছেন৷ সফরে তৃতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক ও যৌথ পরামর্শক কমিশনের (জেসিসি) সভায় যোগ দেবেন তিনি৷

নিরাপত্তা, বাণিজ্য, যোগাযোগ, বিদ্যুৎ, পানি সম্পদ, সীমান্ত ব্যবস্থাপনা, অবকাঠামো, দুই দেশের জনগণের মধ্যে যোগাযোগ, সংস্কৃতি, পরিবেশ ও শিক্ষাসহ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের সব ক্ষেত্রের অগ্রগতি পর্যালোচনা হবে বৈঠকটিতে৷

Indien Sushma Swaraj

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ

প্রথম দ্বিপাক্ষিক এ সফরে বৃহস্পতিবার সকালে নতুন দিল্লির উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়ার আগে বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের মন্ত্রী বলেন, ‘‘দুই দেশের বিদ্যমান সম্পর্কের গভীরতা অনস্বীকার্য৷ কিন্তু একে আরো এগিয়ে নিতে উভয়পক্ষকেই কাজ করতে হবে৷''

তিনি বলেন, ‘‘আমরা আরো গভীর সম্পর্ক চাই এবং তার জন্য অমীমাংসিত বিষয়গুলোর নিষ্পত্তি চাই আমরা৷ এটা অবশ্যই হতে হবে৷''

জানা গেছে, ঝুলে থাকা তিস্তা নদীর পানি বণ্টন চুক্তি সই এবং স্থল সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নের বিষয়ে ভারতের কাছে সুনির্দিষ্ট সময়সীমা জানতে চাইবেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী৷

এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘আমরা বিষয়গুলো নিষ্পত্তির চেষ্টা করছি৷ এটা একটা ধারাবাহিক প্রক্রিয়া৷ তবে ঢাকার এনিয়ে অবশ্যই তাগাদা আছে৷''

নতুন দিল্লিতে ২০শে সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ-ভারত জেসিসি-র বৈঠকে অংশ নেবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী৷ তাঁর কথায়, ‘‘জেসিসি-র বৈঠকে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের কাছে অভিন্ন নদীর পানি ব্যবস্থাপনার বিষয়ে আলোচনার জন্য বাংলাদেশ যৌথ নদী কমিশনের পরবর্তী বৈঠক আয়োজনের বিষয়টি তুলে ধরবো আমরা৷''

উল্লেখ্য, স্থল সীমান্ত চুক্তি ভারতের পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে৷ আর পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরোধিতার পর আড়াই বছরেরও বেশি সময় ধরে আটকে আছে তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি৷

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, দুই দেশের সম্পর্ক এগিয়ে নেয়া এবং একে আরো ‘গভীর ও গতিশীল' করাই তাঁর এ সফরের লক্ষ্য৷ তিনি জানান, চার দিনের এই সফরে ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গেও সৌজন্য সাক্ষাত্‍ করবেন তিনি৷ এছাড়া দেশটির কয়েকজন মন্ত্রী, রাজনৈতিক নেতা ও বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে তাঁর দেখা হওয়ার কথা৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন