1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

বাংলাদেশ ব্যাংকের আগুন নিয়ে প্রশ্ন

কেন্দ্রীয় ব্যাংক ভবনের ১৪ তলায় আগুন লাগে বৃহস্পতিবার৷ আধ ঘণ্টার মধ্যে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসলেও, এ ঘটনা বহু প্রশ্নের জন্ম দেয়৷ বিশেষ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির পর, এবার বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগে আগুনের ঘটনার কারণে৷

বৃহস্পতিবার রাতে আগুন লাগার পর বাংলাদেশ ব্যাংকে গিয়ে সে কথাই বলেছেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম. এ. মান্নান৷ রিজার্ভ চুরির সময়ও বাংলাদেশ ব্যাংকে তিন দিনের ছুটি ছিল আর এবার আগুনের ঘটনার সময়ও বাংলাদেশ ব্যাংকে বন্ধ ছিল তিন দিনের জন্য৷ বিষয়টির মধ্যে কোনো যোগসাজশ আছে কিনা – সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘কাকতালীয় হোক আর যা-ই হোক, এভাবে আগুন লাগার পেছনে অন্য কোনো কারণ আছে কিনা, তা খতিয়ে দেখা হবে৷ আমাদের আইসিটি বিভাগ, বুয়েট ও কম্পিউটার সায়েন্সের বিশেষজ্ঞদের দেখানো হবে৷ ঘটনা যা-ই ঘটুক, প্রকৃত ঘটনা সবাইকে জানানো হবে৷ এখানে ঢেকে রাখার কিছু নেই৷'' তবে বৃহস্পতিবার অর্থমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ঘটনাস্থলে গেলেও, সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেননি তাঁরা৷

অডিও শুনুন 01:25

‘ব্যাংকের অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা খুবই নড়বড়ে’

৩০ তলার বাংলাদেশ ব্যাংক ভবনের ১৪ তলায় বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগের মহাব্যবস্থাপকের (জিএম) কক্ষের দক্ষিণ-পূর্ব দিকে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে আগুনের সূত্রপাত হয়৷ ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে তারা পরাবর্তী ৩০ মিনিটের মধ্যে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে৷ এই ঘটনা তদন্তে ফায়ার সার্ভিসের নিয়মিত তদন্ত কমিটি ছাড়াও বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক আহমেদ জামালের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে৷ দু'টি কমিটি এরইমধ্যে তদন্ত শুরু করেছে বলে খবর৷ তারা আগুন লাগার কারণ এবং এটা উদ্দেশ্য প্রণোদিত কিনা, তার খতিয়ে দেখার কাজ করছেন৷

শুক্রবার পরিদর্শন শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের তদন্ত কমিটি জানায়, ‘আগুনে ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগের জেনারেল ম্যানেজার জিএম মাসুদ বিশ্বাসের কক্ষের কাগজপত্র এবং তাঁর পিএস-এর টেবিলে রাখা কাগজপত্র পুড়ে গেছে৷'

কিন্তু কী ধরনের কাগজপত্র পুড়েছে, তা এখনো নিশ্চিত হতে পারেনি তদন্ত কমিটি৷ সেটা নিশ্চিত হলেই প্রকৃত ক্ষতির পরিমাণ জানা যাবে৷ কারণ এর আগে গত ১৪ই মার্চ বাংলাদেশ ব্যাংকের এই বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগেরই ই-মেল হ্যাক করেছিল হ্যাকাররা৷

অডিও শুনুন 00:56

‘রিজার্ভ চুরির পর বাংলাদেশ ব্যাংক আস্থার সংকটে আছে’

এর আগে গত বছরের ৪ঠা ফেব্রুয়ারি হ্যাকাররা বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার হাতিয়ে নেয়৷ বাংলাদেশ ব্যাংকে রিজার্ভ বিভাগ আলাদা থাকলেও তাদের নিয়ন্ত্রক এই বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগই৷

ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আলী আহমেদ শুক্রবার আগুনের ঘটনা পরিদর্শনের পর ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশ ব্যাংকের কেউ আমাদের আগুনের খবর দেয়নি৷ বাইরে থেকে আগুন দেখে স্থানীয়রা খবর দিয়েছে৷ তাছাড়া ব্যাংকের অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা খুবই নড়বড়ে৷ তাদের ফায়ার অ্যালার্মও কাজ করেনি৷ বাংলাদেশ ব্যাংকের অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা দেখে আমরা হতাশ৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘আগুনে কিছু ফার্নিচার ছাড়াও অনেক ফাইল এবং কাগজপত্র পুড়ে গেছে৷ আর আগুন লাগার কারণ সম্পর্কেও এখনো নিশ্চিত কিছু বলা যাচ্ছে না৷''

ফায়ার সার্ভিসের পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রধান সমরেন্দ্র নাথ বিশ্বাস ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশ ব্যাংকের ঐ জায়গায় আগুন লাগার কথা নয়৷ ব্যাংকের ভেতরে এটাই প্রথম আগুন, যা নিভাতে ফায়ার সার্ভিসকে যেতে হয়েছে৷ এই আগুন নিয়ে নানা প্রশ্ন এবং নানা কথা আছে৷ তাই আমরা এটাকে গভীরভাবে তদন্ত করে দেখব৷ আমাদের তদন্ত দলের দুই সদস্য আগুনের সময়ই ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন৷ এখন আমরা সিসিটিভি ফুটেজ ধরে তদন্ত করব৷ তাহলেই স্পষ্ট হবে আগুন লেগেছে না, লাগানো হয়েছে৷''

অডিও শুনুন 01:09

‘ব্যাংকের ঐ জায়গায় আগুন লাগার কথা নয়’

বাংলাদেশ ব্যাংকের তদন্ত দলের প্রধান বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক আহমেদ জামাল অবশ্য মনে করেন, ‘‘বৈদ্যুতিক শট সার্কিট থেকে আগুনের ঘটনা ঘটে থাকতে পারে৷''

ফায়ার সাভির্সের সাবেক মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) জেনারেল আবু নাঈম মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশ ব্যাংক একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা৷ তাই সেখানে এই আগুনের ঘটনা বিস্ময়কর৷ এছাড়া ফায়ার সার্ভিস কেন, তাদের নিজস্ব অগ্নিনির্বাপন ব্যাবস্থারই তো তা নেভানোর কথা ছিল৷ কিন্তু সেটা হয়নি৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘রিজার্ভ চুরির পর বাংলাদেশ ব্যাংক আস্থার সংকটে আছে৷ আর এই ঘটনায় সংকট আরো বাড়ল৷ তাই এই আগুনের ঘটনার উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি দিয়ে নিরপেক্ষ তদন্ত হওয়া প্রয়োজন৷''

বন্ধু, আপনার মনেও কি এই ঘটনা নিয়ে কোনো প্রশ্ন আছে? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়