1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

বাংলাদেশে সন্ত্রাসবাদের ঝুঁকি বেড়েই চলেছে

হিসেবটা গত বছরের হলেও বাংলাদেশের জন্য তা আশঙ্কাজনক৷ ২০১৫ সালেই সবচেয়ে বেশি সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে দেশে৷ আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ সূচকে তারই প্রতিফলন৷ সন্ত্রাসবাদের ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর তালিকায় বাংলাদেশ এখন আরো ওপরে৷

২০১৫ সালে এ সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ২৫তম৷ এবার আরো তিন ধাপ অবনতির ফলে হয়েছে ২২তম৷ তবে প্রতিবেশী ভারত ও পাকিস্তানের চেয়ে বাংলাদেশের অবস্থা এখনো অনেক ভালো৷

সন্ত্রাসবাদের এই সূচক প্রকাশ করেছে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিভিত্তিক আন্তর্জাতিক গবেষণা সংস্থা ‘ইন্সটিটিউট ফর ইকোনোমিক্স অ্যান্ড পিস'৷ গত চার বছর ধরে এ সূচক প্রকাশ করছে তারা৷ এবারের সূচক প্রকাশ করা হয় বুধবার৷

২০১৫ সালকে বাংলাদেশের জন্য একটি কঠিন বছর হিসেবে চিহ্নিত করেছে ‘ইন্সটিটিউট ফর ইকোনোমিক্স অ্যান্ড পিস'৷ তাদের হিসাবে গতবছর বাংলাদেশে মোট ৪৫৯টি সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয়৷ এতে ৭৫ জন নিহত হন৷ অধিকাংশ হামলাই চালায় জেএমবি-র মতো স্থানীয় জঙ্গি সংগঠন৷ তবে আইএস ১১টি হামলার দায় স্বীকার করে৷

অডিও শুনুন 01:48

‘অন্যান্য মুসলিম দেশে সন্ত্রাসবাদ যেভাবে ঢুকে পড়েছে, তা বাংলাদেশে হয়নি’

আর আল-কায়েদার ভারতীয় শাখা আনসার আল-ইসলাম ছয়টি হামলার দায় স্বীকার করেছে৷ বাংলাদেশ সরকার অবশ্য এ সব হামলায় কোনো বিদেশি জঙ্গি সংগঠনের জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে৷

নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল আব্দুর রশিদ (অব.) ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘তারা তাদের মানদণ্ডে এই তালিকা করেছে৷ বাংলাদেশে ২০১৫ সালে ব্যক্তির ওপর হামলা বা সন্ত্রাসী আঘাত বেশি হয়েছে৷ তবে এটা স্পষ্ট যে দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের অবস্থান সবচেয়ে ভালো৷ বিভিন্ন মুসলিম দেশে সন্ত্রাসবাদ যেভাবে ঢুকে পড়েছে সেরকম পরিস্থিতি এখানে নেই৷''

তাঁর মতে, ‘‘বাংলাদেশে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবিরোধী অভিযান যে মাত্রা পেয়েছে তা যদি অব্যাহত থাকে তাহলে বাংলাদেশ সন্ত্রাসবাদের ঝুঁকি আর বাড়ার  কথা নয়, কম ঝুঁকির দেশ হিসবেই বাংলাদেশ থাকবে৷''

তবে মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক এবং জঙ্গি বিষয়ক গবেষক নূর খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘২০১৫ সালের যে ঝুঁকি তা ২০১৬ সালে আরো বেড়েছে৷ জুলাইয়ে হোলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলা তার প্রমাণ৷ বাংলাদেশ সন্ত্রাসের ঝুঁকিতেই আছে কারণ সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সদস্যরা সমাজের বিভিন্ন পর্যায়ে প্রবেশ করেছে৷ এটা ঝুঁকির সবচেয়ে বড় কারণ৷''

অডিও শুনুন 01:09

‘সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সদস্যরা সমাজের বিভিন্ন পর্যায়ে প্রবেশ করেছে বাংলাদেশে’

২০১৫ সালে বিশ্বজুড়ে সংঘটিত সন্ত্রাসী হামলার ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা এবারের প্রতিবেদনে ১০ পয়েন্টের মধ্যে ৯ দশমিক ৯৬ পয়েন্ট নিয়ে সন্ত্রাসবাদ ঝুঁকির শীর্ষে আছে ইরাক৷ গতবছর সংঘটিত সন্ত্রাসী হামলার ২০ শতাংশই ঘটেছে যুদ্ধবিধ্বস্ত এ দেশটিতে৷ শীর্ষ দশে থাকা বাকি দেশগুলো যথাক্রমে আফগানিস্তান, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, সিরিয়া, ইয়েমেন, সোমালিয়া, ভারত, মিশর ও লিবিয়া৷ আর সারা বিশ্বে সংঘটিত সন্ত্রাসী হামলায় যে ক্ষতি হয়েছে তার আর্থিক মূল্য ৮ হাজার ৯৬০ কোটি ডলারের সমপরিমাণ৷

সারা বিশ্বে সংঘটিত মোট সন্ত্রাসী হামলার ১৪ শতাংশ আফগানিস্তানে, ৮ শতাংশ পাকিস্তানে এবং ৭ শতাংশ ভারতে ঘটেছে৷ বাংলাদেশে সংঘটিত হয়েছে ৪ শতাংশ৷

১০ পয়েন্টের মধ্যে আফগানিস্তান পেয়েছে ৯ দশমিক ৪৪৪ পয়েন্ট, নাইজেরিয়া ৯ দশমিক ৩১৪, পাকিস্তান ৮ দশমিক ৬১৩, সিরিয়া ৮ দশমিক ৫৮৭, ভারত ৭ দশমিক ৪৮৪ এবং বাংলাদেশ ৬ দশমিক ৪৭৯ পয়েন্ট৷

বাংলাদেশে সন্ত্রাসবাদের ঝুঁকি কি সত্যিই বেড়ে চলেছে বলে আপনার মনে হয়? লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও