1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বাংলাদেশে ব্রিজ বানালো এডিবি

এশিয়া ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক বাংলাদেশে অবকাঠামোর উন্নতি সংক্রান্ত একাধিক প্রকল্পে অর্থায়ন করছে৷ তারই একটি দেখতে বাংলাদেশে গিয়েছিলেন ডয়চে ভেলের বেটিনা স্টেহক্যাম্পার৷

যশোর থেকে ৩০ কিলোমিটার গেলে নারিকেলবাড়ি৷ বাসে শীততাপ এমনই বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল যে, বেটিনার রীতিমতো শীত করছিল৷ বাইরে মোটরবাস, রিকশা আর মানুষের স্রোত৷ রাস্তার অবস্থাও খুব ভালো নয় – জার্মানি থেকে আসা বেটিনার যা মনে হওয়া স্বাভাবিক৷ ঘণ্টা দেড়েক পরে যখন গাড়ি থামল, তখন বেটিনা দেখলেন, রাস্তার মাঝখানে রঙিন কাপড় দিয়ে সাজিয়ে একটি মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে৷ স্টেজে ও রাস্তায় বহু লোক বসে রয়েছে৷ ঐ রোদেই৷

বেটিনা প্রথমে ভেবেছিলেন, বোধহয় কোনো বিয়েবাড়িতে এসে পড়ছেন৷ পরে বুঝলেন, এ আয়োজনের উপলক্ষ্য তিনি ও তাঁর সঙ্গিসাথীরা নিজেই – জার্মানি থেকে আসা একটি ছোট দল, যে দলে বেটিনার মতো সাংবাদিক, জার্মানির সরকারি উন্নয়ন ব্যাংক কেএফডাবলিউ আর এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক এডিবি-র প্রতিনিধিরা রয়েছেন৷ চিত্রা নদীর ওপর ৯০ মিটার দৈর্ঘের যে সেতুটি নির্মাণ করা হয়েছে, তার অর্থায়ন করেছে এই সব সংস্থা৷

নদীর দু'ধারে প্রায় দেড় লাখ মানুষের বাস৷ ১৫ বছর বয়সের মেয়ে রুমি তাদের একজন৷ এসেই মাননীয় অতিথিদের সঙ্গে আলাপ করে ফেলল৷ সে দশম শ্রেণিতে পড়ে আর ডাক্তার হতে চায় – জানাল সে৷ কিন্তু তার বাড়ি নদীর এক পারে, আর স্কুল নদীর অপর পারে৷ কাজেই স্কুলে পৌঁছতে দেরি হয়ে যায়; জামাকাপড়, খাতাপত্র ভিজে যায়৷ বর্ষায় ঘোর বৃষ্টিতে সরু বাঁশের সাঁকোয় করে ফেরিতে উঠতে হয়৷ কাজেই রুমির কাছে এই নতুন ব্রিজ যে কতটা আনন্দের ব্যাপার, তা কল্পনা করা শক্ত নয়৷

চাষি আর ব্যাপারিদের জীবনেও বড় পরিবর্তন এসেছে৷ ব্রিজ তৈরি ছাড়াও, এডিবি আর কেএফডাবলিউ স্থানীয় রাস্তাঘাট, ঘাটবাজার মেরামতের টাকা দিয়েছে৷ সেই সব প্রকল্পে ২০১৪ সাল যাবৎ হাজার হাজার দিনমজুর কাজ পেয়েছে৷ এখন নদীর এপার থেকে ওপার মাল নিয়ে যাওয়ার, অথবা প্রবল বর্ষণেও মালপত্র যাতে না ভেজে, বাজারেই তার ব্যবস্থা করা রয়েছে৷ বাজারের কয়েকটি দোকান মহিলাদের জন্য সংরক্ষিত – জার্মান উন্নয়ন ব্যাংকটি এর জন্য জোর দিয়েছিল৷

বাংলাদেশের আয়তন জার্মানির অর্ধেক, কিন্তু জনসংখ্যা জার্মানির দ্বিগুণ৷ ১৬ কোটি মানুষের বাস এদেশে৷ নদীমাতৃক দেশ, জমি সাগরের পানির চেয়ে সামান্য কিছু উঁচুতে৷ বন্যা প্রতিরোধের প্রায় কোনো ব্যবস্থাই নেই বললে চলে৷ ‘‘যার ফলে গাছপালা, বাজার-হাট, বাড়ি-ঘর অনেক সময়েই জলে আটকা পড়ে থাকে'', জানালেন এলমা মোরশেদ, যিনি খুলনা শহরে বন্যা প্রতিরোধের দায়িত্বে রয়েছেন৷ বর্ষায় খুলনার ভৈরব নদীর জল বাড়ে ছয় মিটার৷ মানুষজনের জীবিকা, রোজগার খোয়া যায়৷ এডিবি আর কেএফডাবলিউ ব্যাংক এখানেও নদী বরাবর বাঁধ দেওয়ায় অর্থায়ন করেছে৷ শহরের রাস্তা আরো উঁচু করা হয়েছে, দু'লাখ মানুষ যা থেকে উপকৃত হয়েছেন ও হচ্ছেন৷

বাংলাদেশ-জার্মানি সহযোগিতার আর কোনো উদাহরণ কি আপনার জানা আছে? লিখুন আমাদের৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন