1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বাংলাদেশে বারবার ফিরে যান যে জার্মান আলোকচিত্রী

গত ২৫ বছর ধরে বাংলাদেশের ছবি তুলছেন তিনি৷ একসময় তুলতেন ‘ম্যানুয়েল’ ক্যামেরায়, পরে তুলেছেন ডিজিটাল ক্যামেরায়৷ বাংলাদেশের ছবিগুলো তাঁর কাছে অমুল্য সম্পদ৷ সেই সম্পদ তিনি দিচ্ছেন জার্মান একটি বিশ্ববিদ্যালয়কে৷

বলছি সিগফ্রিড স্মিড্ট-এর কথা৷ প্রথমবার বাংলাদেশে গিয়েছিলেন সেই ১৯৮৯ সালে৷ সেবার সেদেশ ত্যাগ করেছিলেন আর কখনো না যাওয়ার প্রতিজ্ঞা করে৷ কিন্তু সেই প্রতিজ্ঞা রক্ষা করা যায়নি৷ বরং পরবর্তীতে নিয়মিতই গেছেন বাংলাদেশে৷ এখন প্রতিবার ফেরার সময় বিমানবন্দরে নাকি চোখের পানি ফেলেন তিনি৷ দেশটাকে অনেক আপন করে নিয়েছেন মধ্য ইউরোপের এই শিক্ষক, যাঁর শখ ছবি তোলা৷

সিগফ্রিড, যাঁর ডাক নাম সিগি, বাংলাদেশের মানুষের, সমাজের, প্রকৃতির, স্থাপত্যের অসংখ্য ছবি তুলেছেন৷ বাঙালির উষ্ণ আতিথিয়তা তাঁকে স্পর্শ করেছে গভীরভাবে৷ ছবি তোলার অভিজ্ঞতা জানাতে গিয়ে তিনি স্মরণ করেন সেদেশের শারীরিক প্রতিবন্ধীদের দুর্দশার কথা৷ প্রথমদিকে বাংলাদেশে গিয়ে যখন দেখেছেন প্রতিবন্ধী ভিক্ষুক রাস্তায় চাকার মতো ঘুরে ঘুরে যাতায়াত করে, সহ্য করতে পারেননি৷ হাতে ক্যামেরা থাকলেও সেই দৃশ্যের ছবি তাঁর তোলা হয়নি৷ বরং সেই স্মৃতি তাঁকে তাড়িয়ে বেরিয়েছে দিনের পর দিন৷ পরে অবশ্য অভ্যস্থ হয়েছেন৷

সিগির ভিডিও সাক্ষাৎকার দেখতে ক্লিক করুন নীচের লিংকে:

শুক্রবার হাইডেলব্যার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের দক্ষিণ এশিয়া ইন্সটিটিউট আয়োজিত ‘বাংলাদেশ দুপুরে' নিজের তোলা বাংলাদেশের কিছু ছবি প্রদর্শন করেন সিগি৷ তিনি মনে করেন, পর্যটন খাতে বাংলাদেশের সম্ভবনা অনেক৷ দেশটির রয়েছে পৃথিবীর দীর্ঘতম বালুকাময় সমুদ্র সৈকত৷ সেই সৈকতের কিছু অসাধারণ দৃশ্য তিনি ক্যামেরাবন্দি করেছেন৷ গিয়েছেন পার্বত্য চট্টগ্রামে৷ তবে সেখানে বিদেশিদের যাতায়াতে বিশেষ অনুমতি লাগে, যা তাঁর পছন্দ হয়নি৷ তাঁর কথায়, অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা গেলে পর্যটন খাতে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে যাবে৷

সিগির ছবি মুগ্ধ চোখে দেখেছেন ‘বাংলাদেশ দুপুরে' আগত অতিথিরা৷ জার্মান ভাষায় দেয়া তাঁর প্রজেন্টেশনের তাৎক্ষণিক বাংলা ভাষান্তর করেন ডয়চে ভেলে বাংলা বিভাগের প্রাক্তন প্রধান আব্দুল্লাহ আল-ফারূক৷ সিগি জানান তাঁর হতাশার কথাও৷ তাঁর পরিচিত সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি খুনি হয়েছেন ২০১২ সালে৷ সেই হত্যাকাণ্ডের আজও বিচার হয়নি৷ এখন কেউ সেই দম্পতি কথা বলেও না৷ সাংবাদিক দম্পতির এই পরিণতি কষ্ট দেয় তাঁকে৷ সেই কথা তিনি উল্লেখ করেন প্রদর্শনীর সময়৷

Siegfried Schmid Fotograf

হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হান্স হার্ডারের (ডানে) সঙ্গে সিগফ্রিড স্মিড্ট

বর্তমানে অবসর জীবনের অনেকটা সময় সিগি কাটান ছবির পেছনে৷ ম্যানুয়াল ক্যামেরায় তোলা ছবিগুলো ডিজিটাল করেছেন তিনি৷ সেগুলো সম্পাদনা করেছেন৷ এখন দশ হাজার বাংলাদেশের ছবি, যেগুলো তিনি হাইডেলব্যার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের দক্ষিণ এশিয়া ইন্সটিটিউটে দিয়ে দেবার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, সেগুলোর ক্যাপশন লিখছেন৷ সিগি জানান, বাংলাদেশে থাকা প্রতিটি দিনের স্মৃতি তিনি তাৎক্ষণিক লিখে রেখেছিলেন ডায়েরিতে৷ সেই ডায়েরি এখন তাঁকে ছবির ক্যাপশন লিখতে সাহায্য করছে৷

সিগি আশা করছেন, তাঁর তোলা ছবি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বাংলাদেশ সম্পর্কে সঠিক ধারণা দেবে৷ দেশটি সম্পর্কে বিদেশিদের জানায় এখনো অনেক ঘাটতি রয়ে গেছে৷ সেই ঘাটতি ছবি দিয়ে কিছুটা হলেও পুরণ করতে চান এই শখের আলোকচিত্রী৷

সিগিকে আপনি কী কিছু বলতে চান? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন