1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

বাংলাদেশে ফেসবুক আবার উম্মুক্ত

জনপ্রিয় সামাজিক নেটওয়ার্কিং সাইট ফেসবুকের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নিয়েছে বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ৷ ফলে এক সপ্তাহ পর আবার ফেসবুকে ঢুকে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে বাংলাদেশী ব্যবহারকারীরা৷

default

ফাইল ফটো

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে জার্মান বার্তা সংস্থা ডিপিএ জানায়, বাংলাদেশের বেসরকারি ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান ম্যাঙ্গো টেলিকম শনিবার রাতে ফেসবুক আবার খুলে দেয়৷ সরকারি নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি'র নির্দেশ পাবার এক মিনিট পরই ম্যাঙ্গো টেলিকম ব্লক তালিকা থেকে ফেসবুককে সরিয়ে নেয়৷

বাংলাদেশের অনলাইন পত্রিকা বিডিনিউজটোয়েন্টি ফোর ডট কম জানাচ্ছে, শনিবার রাত ১১টা ৩৮ মিনিটে ফেসবুক উম্মুক্ত করা হয়েছে৷

এদিকে, এই ঘোষণার পরপরই বাংলাদেশের ফেসবুক ব্যবহারকারীরা ফেসবুকেই তাদের উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন৷ জনপ্রিয় ফেসবুকার মাহবুব মানিক লিখেছেন, ‘‘ওয়াও!!! ফেসবুক উম্মুক্ত!!!''

বাংলাদেশে ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রায় ৯ লাখ৷ স্বভাবতই সংস্থাটির ওপর এহেন নিষেধাজ্ঞার প্রতিবাদ করা হয় বিভিন্ন মহল থেকে৷ ফেসবুক উম্মুক্ত হবার পর আলোকচিত্রী আসাদ আব্দুল্লাহ তাই বলছেন, ‘‘মাঝখান থেকে ফেসবুকের একটা চরম মার্কেটিং হয়ে গেলো বাংলাদেশে৷ বুঝা গেলো ফেসবুক কতটা পপুলার৷''

তবে, এখন পর্যন্ত সবচেয়ে ভিন্ন মতটি প্রকাশ করেছেন ব্লগার এবং লেখক আরিফ জেবতিক৷ ফেসবুক স্ট্যাটাসে তাঁর মন্তব্য, ‘‘আমি বলিলাম, ‌‘এক সপ্তাহ পর উহারা বুঝিতে পারিয়াছে৷' প্রভু জিজ্ঞাসিলেন, ‘কী বুঝিয়াছে? ফেসবুক তরুণদের রোজকার বিষয়, উহাকে ব্যান করিয়া লাভ নাই?' আমি বলিলাম,‘ফেসবুকের না আছে চ্যানেল ওয়ানের মতো যন্ত্রপাতির ঝামেলা, না আছে আমার দেশের মতো প্রকাশকের ঝামেলা৷ এক সপ্তাহ খুঁজাখুঁজির পর উহারা বুঝিতে পারিয়াছে, ফেসবুক আসলে বিদেশী প্রতিষ্ঠান, এটি ফকিরাপুলের প্রতিষ্ঠান নহে৷'''

উল্লেখ্য, গত ২৯ মে হঠাৎই বাংলাদেশে ফেসবুক বন্ধ করে দেয়া হয়৷ এই বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক কোন বিবৃতি প্রকাশ করা হয়নি৷ তবে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো দাবি করে, মূলত দুই নেত্রীর ব্যঙ্গাত্বক ছবি প্রকাশসহ ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানে, এমন কার্টুন প্রতিযোগিতা আয়োজনের কারণে ফেসবুককে নিষিদ্ধ করা হয়৷ এই বিষয়ে বিটিআরসি ফেসবুক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে এবং বিতর্কিত পাতা ও কার্টুনগুলো সরিয়ে নেয়ার অনুরোধ জানায়৷ বিটিআরিসি'র দাবি, ফেসবুক তাদের অনুরোধ রক্ষা করেছে৷ তবে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ এই বিষয়ে এখনো কোন মন্তব্য করেনি৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়