1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

বাংলাদেশে নেটবুকের ব্যবহার বাড়ছে

বাংলাদেশে কম্পিউটারের মূল চর্চাটা শুরু হয় নব্বইয়ের দশকে৷ ছোট আকারের মনিটর আর বড় আকারের সিপিইউ তখন দখল করে নিয়েছিল পুরো টেবিল৷ অবশ্য নামটাই যখন ডেস্কটপ, তখন টেবিল জুড়ে তার অবস্থান অবাক করার মতো নয়৷

Netbook

তরুণ প্রজন্মের কাছে নেটবুকের চাহিদা বাড়ছে

ডেস্কটপ থেকে নেটবুক

কিন্তু অবস্থা এখন দিনে দিনে বদলাচ্ছে৷ ডেস্কটপ কম্পিউটারের জায়গা নিচ্ছে ল্যাপটপ৷ কিংবা আরো সহজ করে বললে হালের নেটবুক৷ বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের কাছে নেটবুকের চাহিদা খুব দ্রুতই বাড়ছে৷ এর কারণ কী শুধুই ব্যবহারের সহজলভ্যতা? না, কেউ বলছে নেটবুক চাই অফিসের কাজে, কেউবা শিক্ষার কাজে চাই ল্যাপটপ৷ আবার ফটোসাংবাদিকদের কথায়, যখন তখন অফিসের কাজে নেটবুক চাই-ই চাই৷

ল্যাপটপ মেলা

কম্পিউটার পণ্যের এই প্রসারে কাজ করছে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান৷ নিয়মিত আয়োজন করা হচ্ছে বিভিন্ন ধরণের তথ্য প্রযুক্তি মেলা৷ এসব কিন্তু আবার শুধু ঢাকা কেন্দ্রিক নয়, বরং বিভাগীয় শহরগুলোতেও শোনা যায় নানা কম্পিউটার মেলার কথা৷ ল্যাপটপের প্রসারে কতটা ভূমিকা রাখছে এসব আয়োজন? গ্লোবাল ব্র্যান্ড-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল ইসলাম এই প্রসঙ্গে জানান, এধরণের মেলা তরুণদের ক্রেতাদের সঙ্গে বিক্রেতাদের সরাসরি যোগাযোগ করিয়ে দেয়৷ তাই, ল্যাপটপের প্রসারে এধরনের মেলার গুরুত্ব অনেক৷

Netbook

ছোট্ট এই সঙ্গী সহজেই বহন করা যায়

ল্যাপটপ নেটবুকের কম দামও কিন্তু এর প্রসারে বেশ কাজ করছে৷ বাংলাদেশে এখন নেটবুক মিলছে ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকার মধ্যে৷ ল্যাপটপ পাওয়া যাচ্ছে ৩৫ হাজার টাকাতেই৷ ভবিষ্যতে এই দাম নাকি আরো কমতে পারে৷ জানালেন রফিকুল ইসলাম, প্রতিনিয়তই কম্পিউটার পন্য আপগ্রেড হচ্ছে৷ এই ধারা চলতে থাকলে ভবিষ্যত ল্যাপটপ-নেটবুকের দাম আরো কমবে৷

বেকারদের কর্মসংস্থানে নেটবুক

রফিকুল ইসলাম দিলেন আরেকটি মজার তথ্য৷ তরুণ প্রজন্মের মধ্যে যারা বেকার তাদের মধ্যে নাকি নেটবুকের ব্যবহার বাড়ছে৷ মূল কারণ শেয়ার ব্যবসা৷ নেটবুকে ইন্টারনেট সংযোগ নিয়ে খুব সহজেই নিজেকে যোগ করা যায় শেয়ার বাণিজ্যে৷ তাই, নেটবুক হয়ে উঠছে বেকারদের কর্মসংস্থানের এক হাতিয়ার৷ এমনই এক শেয়ার ব্যবসায়ী তরুণের কথায়, আসলে আমার নির্দিষ্ট কোন অফিস নেই৷ যখন যেখানে বসি সেখানেই অফিস করতে হয়৷ তাই নেটসহ নেটবুক শেয়ার বাজারের সর্বশেষ খবর রাখতে বেশ সহায়তা করে৷

জানতে চান, ল্যাপটপের বেচাবিক্রির কী দশা বাংলাদেশে? এই বছরের শুরুতেই ঢাকায় একটি ছোট্ট ল্যাপটপ মেলার আয়োজন করা হয়েছিল৷ তিনদিনের সেই মেলায় ল্যাপটপ বিক্রি হয় ৩ হাজার! তথ্য প্রযুক্তি ব্যবসায়ীদের হিসেবে, বর্তমানে প্রতিমাসে আট থেকে দশ হাজার ল্যাপটপ-নেটবুক বিক্রি হয় বাংলাদেশে৷ বাৎসরিক হিসেবে তা লক্ষাধিক৷ তবে, এই হিসেব একেবারে নিখুঁত নয়৷

Pressebild Netbook Pionier Asus Eee PC T91 vorgestellt auf CeBit 2009

নেটবুক’এর গুণাগুণও বেড়ে চলেছে

নেটবুক কী?

আচ্ছা, এতক্ষণ ধরে যে নেটবুক নেটবুক করছি, এটা সম্পর্কে কোন বিভ্রান্তি তৈরি হচ্ছে না৷ জানতে চান না তো, ল্যাপটপ বা নোটবুক এবং নেটবুকের মধ্যে পার্থক্যটা কী? আসলো দুটোর কাজ অনেকাংশেই একই৷ তবে, নেটবুকের মূল ব্যবহারটা ইন্টারনেট ঘিরে৷ আরো সহজ করে বললে, নেটবুক আসলে বিশেষায়িত ল্যাপটপ৷ যেটি আকারে খানিকটা ছোট এবং হালকা৷ একটু বিচক্ষণতার সঙ্গে বলতে গেলে, নেটবুককে হালকা করতে গিয়ে বাদ দেয়া হয়েছে সিডি-ডিভিডি ড্রাইভসহ কয়েকটি হার্ডওয়ার৷ তাই এটি যেমন হালকা, তেমনি দামও সস্তা৷

ও হ্যাঁ, নেটবুক যখন চলে এলো তখন ইন্টারনেটের কথাই বা বাদ থাকবে কেন৷ নেটবুক বা ল্যাপটপে ইন্টারনেট সংযোগও নাকি এখন খুব সস্তায় পাওয়া যায় বাংলাদেশে৷ আর সেবাও মোটের উপর খারাপ নয়৷ তাই, যখন যেখানে খুশি সেখানে বসে ইন্টারনেট চর্চায় নেটবুকের বিকল্প কী!

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম
সম্পাদনা: দেবারতি গুহ