1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

বাংলাদেশে চালের সঙ্গে আর্সেনিকের যোগসূত্র পেলেন বিজ্ঞানীরা

বাংলাদেশের অনেক এলাকায় ভূগর্ভস্থ পানিতে আর্সেনিকের উপস্থিতির কথা আগেই জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা৷ এবার তাদের গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, পানি থেকে বিষাক্ত আর্সেনিক চালের মাধ্যমেও পৌঁছচ্ছে মানবদেহে৷

default

ক্যালোরির উৎস হিসেবে ভাতের উপর থেকে নির্ভরতা কমিয়ে গম খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা

বিজ্ঞানীরা তাদের গবেষণায় ১৮,৪৭০ জন স্বেচ্ছাসেবীর দেওয়া নমুনা পরীক্ষা করেছেন৷ তারা সবাই আর্সেনিক-দূষিত এলাকায় বসবাস করছেন৷ গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, স্বেচ্ছাসেবীদের মধ্যে যারা বেশি করে ভাত খান তাদের প্রস্রাবে আর্সেনিকের মাত্রা বেশি৷ অপেক্ষাকৃত কম ভাত খাওয়া ব্যক্তিদের সঙ্গে এই তুলনা করেছেন গবেষকরা৷

উদ্বেগের কথা হচ্ছে, ভাত বেশি খাওয়া ব্যক্তিদের শরীরে আর্সেনিক দূষণের ক্ষতিকর প্রভাবও শনাক্ত হয়েছে৷ যেমন অনেকের চামড়ায় ক্ষত রয়েছে৷ ‘‘প্লোস ওয়ান'' জার্নালের চলতি সংখ্যায় গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছে৷ ভূগর্ভস্থ পানিতে থাকা আর্সেনিক যে চালের মাধ্যমে মানবদেহে প্রবেশ করতে পারে, তা নিয়ে এটাই এখন অবধি সবচেয়ে বড় গবেষণা৷ বাংলাদেশের মানুষের প্রধান খাদ্য ভাত৷

ব্রিটেনের লিচেস্টারে অবস্থিত ডি মোন্টফোর্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিসিন বিশেষজ্ঞ পারভেজ হারিস বলেন, ‘‘গবেষণায় পানিতে আর্সেনিক দূষণ এবং ‘ফুড চেইনে' তার প্রভাবের বিষয়টি প্রাধান্য পেয়েছে৷ একইসঙ্গে এটাও পরিষ্কার যে চালের মাধ্যমে পরিবাহিত আর্সেনিক মানবদেহের ক্ষতির কারণ হতে পারে৷ বিশেষ করে চামড়ায় ক্ষতের সঙ্গে এটির সম্পর্ক পাওয়া গেছে৷''

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, বাংলাদেশের কিছু অঞ্চলের ভূগর্ভস্থ পানিতে আর্সেনিকের উপস্থিতি উদ্বেগজনক পর্যায়ে পৌঁছেছে৷ পানিতে প্রাকৃতিকভাবেই এই বিষাক্ত উপাদানের মিশ্রন ঘটে৷ কিন্তু সমস্যা হচ্ছে বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলে সত্তরের দশকে ‘সবার জন্য পানি' সংক্রান্ত এক প্রকল্পের আওতায় অনেক অগভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়৷ ফলে আর্সেনিকযুক্ত পানি সহজে সাধারণ মানুষের নাগালে চলে আসে৷

ঢাকা বিভাগের আড়াইহাজার এলাকায় সর্বশেষ গবেষণাটি করা হয়েছে৷ আর্সেনিক সংক্রান্ত আগেকার গবেষণাগুলোতে মূলত পানীয় জলের মাধ্যমে মানবদেহে এই বিষ সংক্রমণের বিষয়টি গুরুত্ব পেয়েছে৷ এবারই প্রথম চালে আর্সেনিকের প্রভাব নিয়ে বিস্তৃত গবেষণা করা হয়৷ কেননা অনেক অঞ্চলে সেচের পানিতে আর্সেনিকের প্রভাব রয়েছে৷

তবে স্থানীয় চালে আর্সেনিক দূষণের পরিমাণ এখনো নির্ধারণ করতে পারেননি গবেষকরা৷ সংশ্লিষ্ট এলাকার পানিতে দূষণের পরিমাণ অবশ্য গবেষকদের জানা আছে৷ গবেষণাস্থলের পঁচিশ বর্গকিলোমিটার জায়গার মধ্যে নলকূপ রয়েছে প্রায় ছয় হাজার৷ হারিস বলেন, ‘‘আড়াইহাজার এবং আর্সেনিক দূষণের শিকার অন্যান্য অঞ্চলের মানুষদের মধ্যে যারা প্রতিদিন গড়ে ১ দশমিক ছয় কেজির বেশি ভাত খান, তাদের প্রতি আমাদের পরামর্শ হচ্ছে আপনারা ক্যালোরির উৎস হিসেবে ভাতের উপর থেকে নির্ভরতা কমিয়ে দিন৷ এক্ষেত্রে বিকল্প হতে পারে গম এবং কম আর্সেনিক দূষণযুক্ত এলাকায় উৎপাদিত চাল৷ এর আগে আমরা গবেষণা করে দেখেছি, সিলেট অঞ্চলের চালে আর্সেনিকের মাত্রা কম৷''

গবেষকরা বলছেন, তাদের এই গবেষণা আর্সেনিক দূষণের ঝুঁকিতে থাকা পৃথিবীর অন্যান্য অঞ্চলেও কাজে লাগানো যেতে পারে৷ সুনির্দিষ্টভাবে বলতে গেলে কম্বোডিয়া, চীন, ভারত এবং ভিয়েতনামে আর্সেনিক নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে৷

হারিস এবং তাঁর দল এর আগে ব্রিটেনে বসবাসরত অল্প কিছু বাংলাদেশির শরীরে আর্সেনিকের সংক্রমণের সঙ্গে চালের সম্পর্ক খুঁজে পেয়েছিলেন৷ তাঁর বর্তমান গবেষণায় বাংলাদেশে আর্সেনিকের বিস্তৃত প্রভাব সম্পর্কে একটি চিত্র ফুটে উঠেছে৷

এদিকে, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ৪১৭টি গ্রামে পরিচালিত এক গবেষণায় সেখানকার মানুষের প্রস্রাবের নালীর কোষের জেনেটিকে ক্ষতির নমুনা পাওয়া গেছে৷ এরফলে একটি কোষ থেকে আরেকটি কোষে ডিএনএ কোড সঠিকভাবে স্থানান্তর হতে পারছে না৷ এধরনের জটিলতা ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায় বলে মনে করেন গবেষকরা৷

এর আগে প্রকাশিত আরেক গবেষণা থেকে জানা যায়, দীর্ঘ সময় ধরে স্বল্প পরিমাণে আর্সেনিক নিয়মিত শরীরে প্রবেশ করলে মূত্রাশয়, কিডনি, ফুসফুস অথবা চামড়ায় ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি থাকে৷

এআই / জেডএইচ (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়