1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

বাংলাদেশের সহস্রাধিক স্কুলে কম্পিউটার ল্যাব

তথ্য প্রযুক্তির প্রসারে এবার সরাসরি মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ সরকার৷ স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার ল্যাব তৈরি করা হচ্ছে সরকারি খরচায়৷ প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে শিক্ষকদের৷ একইসঙ্গে থাকছে ইন্টারনেট সংযোগ৷

default

ফাইল ফটো

গত বছর প্রাথমিক পর্যায়ে বাংলাদেশের ৬৪টি জেলায় ১২৮টি কম্পিউটার ল্যাব তৈরি করা হয়৷ এসব ল্যাবের প্রতিটিতে ১৬টি কম্পিউটার সহ রয়েছে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর এবং প্রিন্টার৷ সঙ্গে ইন্টারনেট সংযোগ৷ তবে, শুধু কম্পিউটার দিয়েই ক্ষান্ত নয় সরকার৷ বরং প্রতি জেলায় কম্পিউটার সায়েন্স গ্র্যাজুয়েট প্রশিক্ষকও নিয়োগ করা হয়েছে৷ প্রশিক্ষকরা মূলত স্কুল-কলেজের শিক্ষকদের কম্পিউটার শেখাচ্ছেন৷ সেইসঙ্গে কম্পিউটার ল্যাবগুলোর দেখভালের দায়িত্বেও রয়েছেন তাঁরা৷

এত ল্যাব কেন?

প্রশ্ন জাগে, সরকারের এত কম্পিউটার ল্যাব তৈরির পেছনে উদ্দেশ্যটা আসলে কী? জবাব দিলেন, বাংলাদেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের পরামর্শক মুনির হাসান: সবাই যেন কম্পিউটার চালাতে পারে, ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারে - এটাকে আমরা তৃণমূল পর্যায়ে সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে চাচ্ছি৷

১৪০০ স্কুলে কম্পিউটার

এতক্ষণ যেসব কম্পিউটার ল্যাবের কথা শুনলেন, সেগুলো হয়ে গেছে গত বছরই৷ এবছর সরকারের উদ্যোগ আরো বড় পরিসরে৷ লক্ষ্য, বিভিন্ন উপজেলার ১৪০০ স্কুলে কম্পিউটার ল্যাব তৈরি৷ এসব ল্যাবে থাকবে ৬টি করে কম্পিউটার, প্রিন্টার এবং ইন্টারনেট সংযোগের জন্য ২টি করে ইউএসবি মোডেম৷

ঐশী'র গল্প

চলুন কথা বলি, সরকারের কম্পিউটার ল্যাব থেকে প্রশিক্ষণ নেয়, এরকম এক শিক্ষার্থীর সঙ্গে৷ নাম ঐশী, পড়ছেন গাইবান্ধা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণিতে৷ তিনি বলেন, প্রথম দিকে আমাদেরকে কম্পিউটারের ইতিহাস এবং ব্যবহার সম্পর্কে জানানো হয়েছে৷ এরপর মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, উইন্ডোজ শেখানো হয়৷

এই কম্পিউটার শিক্ষা কী কোন কাজে লাগবে ঐশীর৷ তিনি জানালেন, এখনতো কম্পিউটার ছাড়া চলাফেরা করা অনেক কঠিন৷ পড়াশোনা, ভাল চাকরি থেকে যেকোন কাজে কম্পিউটার দরকার৷ তাই, ভবিষ্যতে এই শিক্ষা অনেক কাজে দেবে৷

ঐশীর কথায়, তাদের কম্পিউটার ল্যাবে ইন্টারনেট থাকলেও তা শিক্ষার্থীরা ব্যবহার করতে পারছে না৷

ডিজিটাল বাংলাদেশ

মুনির হোসেন জানালেন, সরকারের এই উদ্যোগে সাড়া মিলছে বেশ৷ কম্পিউটার ল্যাবের সুবিধা কাজে লাগিয়ে ময়মনসিংহের একটি বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীকে কম্পিউটার শেখাচ্ছে স্কুল কর্তৃপক্ষ৷ দেশের অন্যান্য স্কুল কলেজেও নাকি দেখা যাচ্ছে এমন উদ্যোগ৷

তবে, বিষয়টি নিয়ে ভিন্ন মতও রয়েছে৷ বিশেষ করে সরকারের প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হলে এসব কম্পিউটারের ভবিষ্যৎ কি, তা নিয়ে সন্দেহ পোষণ করেছেন উন্নয়ন সংস্থা ডি.নেট এর নির্বাহী পরিচালক ড. অনন্য রায়হান৷ তিনি বলেন, এখন প্রকল্প শেষ হবার পরে ল্যাবগুলো কিভাবে চলবে, স্কুলের দায়িত্ব কি হবে এবং কিভাবে তারা ব্যবহার করবে - এসব বিষয়ে এখনো কোন সিদ্ধান্ত হয়নি বলে আমি জানি৷ সেক্ষেত্রে একটা আশঙ্কা থেকে যায় যে, ল্যাবগুলো যে উদ্দেশ্যে তৈরি হয়েছে সেই উদ্দেশ্য সফল হবে কিনা৷

মুনির হাসান এই প্রসঙ্গে বলেন, এই কম্পিউটারগুলো শুধু শিক্ষার্থীদের জন্যই নয়, বরং সংশ্লিষ্ট এলাকার বাসিন্দারাও সেটি ব্যবহার করতে পারবেন৷ পাশাপাশি বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ছাড়াও কমিউনিটির দায়িত্ব থাকবে ল্যাবগুলো দেখভালের৷

উল্লেখ্য, বর্তমান সরকার স্কুল-কলেজ ছাড়াও কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে সাইবার সেন্টার তৈরি করছে৷ ইন্টারনেট সংযোগসহ ৩০টি করে কম্পিউটার দিয়ে তৈরি এসব সেন্টারে ব্যবহার করা হবে ওপেন সোর্স সফটওয়্যার৷ এখন দেখা যাক, সরকারের এসব উদ্যোগ ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে কতটা সহায়ক হয়৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সংশ্লিষ্ট বিষয়