1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বাংলাদেশের বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে জাতিসংঘ

জাতিসংঘের একটি প্রেস ব্রিফিংয়ের ভিডিও ফেসবুক এবং টুইটারে শেয়ার করেছেন অনেকে৷ এতে বাংলাদেশে বিরোধী দলীয় শীর্ষ নেতাদের গ্রেপ্তার যে ‘স্বৈরাচারী' নয় তা সরকারের নিশ্চিত করা উচিত বলে জানানো হয়েছে৷

ইউটিউব-এ ভিডিওটি শেয়ার করা হয়েছে ‘বিএনপি অনলি' নামক একটি অ্যাকাউন্ট থেকে৷ জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি-মুনের মুখপাত্র স্টেফান ডুইয়ারিচ এক সাংবাদিকের বাংলাদেশ বিষয়ক প্রশ্নের জবাবে জাতিসংঘের অবস্থান তুলে ধরেছেন৷

ভিডিওটি ফেসবুকেও শেয়ার করা হয়েছে ‘বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট পার্টি' নামের একটি ফেসবুক পাতা থেকে৷ পাতাটি ফেসবুক ভিরিফাইড করেনি৷ তাই এটি বিএনপির আনুষ্ঠানিক পাতা কিনা নিশ্চিত নয়৷ এতে লেখা হয়েছে, ‘‘বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ বিরোধী দলের শীর্ষ নেতাদের গ্রেফতার এবং দেশে অব্যাহত মানবাধিকার লংঘনে উদ্বেগের কথা জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিবের মূখপাত্র স্টেফান ডুইয়ারিচ৷''

জাতিসংঘের প্রেস ব্রিফিং-এর এই ভিডিও টুইটারেও শেয়ার করেছেন অনেকে৷ ডয়চে ভেলের অনুসন্ধানে ভিডিও-টির সত্যতা নিশ্চিত হওয়া গেছে৷ গত ২২শে জানুয়ারি আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংটির টেক্সট রয়েছে জাতিসংঘের ওয়েবসাইটে

বাংলাদেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে জাতিসংঘ মুখপাত্র জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক কমিশনারের অবস্থানের কথা পুর্নব্যক্ত করেন৷ একইসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘বাংলাদেশের সরকারকে এটা প্রমাণ করতে হবে যে, শীর্ষ বিরোধী নেতাদের গ্রেপ্তার এবং আটক কখনই ‘স্বৈরাচারী' নয় এবং আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে দেশে যেসব উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে, তা আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনের সঙ্গে সঙ্গতি রেখেই করা হচ্ছে৷''

বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি তাঁর কাছে অত্যন্ত ‘ডিস্টার্বিং' বলে মনে হয়েছে৷ জাতিসংঘের কাছে মানবাধিকার লঙ্ঘনের দিকটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় বর্তমান ‘বিশৃঙ্খলা' স্বাভাবিকভাবেই নজর কেড়েছে তাঁর৷ বলাবাহুল্য, বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে নিয়মবহির্ভূতভাবে বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের নির্যাতন, হত্যার অভিযোগ রয়েছে৷ এ সব অভিযোগ জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে দেশটির অবস্থানের উপর কোনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে কিনা – এমন এক প্রশ্নের জবাবে মুখপাত্র জানান, এক্ষেত্রে ‘স্টান্ডার্ড হিউম্যান রাইটস স্ক্রিনিং পলিসি' অনুসরণ করা হবে বলে তিনি মনে করেন৷

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে জানুয়ারি মাসের চলমান অবরোধে ইতোমধ্যেই প্রাণ হারিয়েছে বেশ কয়েক ডজন মানুষ৷ এর মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে কথিত ‘ক্রসফায়ারে' নিহতের সংখ্যা কমপক্ষে সাত৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়