1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বাংলাদেশের প্রায় ৩০ লক্ষ পোশাক শ্রমিক ঝুঁকিতে

রানা প্লাজায় দুর্ঘটনার পর পেরিয়ে গেছে আড়াই বছর৷ এই সময়ে বাংলাদেশের পোশাক কারখানাগুলোতে শ্রমিকদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ও তাঁদের কাজের পরিবেশের উন্নয়নে কয়েকটি উদ্যোগ নেয়া হয়েছে৷

ইউরোপ ও অ্যামেরিকার রিটেইলারদের উদ্যোগে ‘বাংলাদেশ অ্যাকর্ড ফর ফায়ার অ্যান্ড বিল্ডিং সেফটি' এবং ‘অ্যালায়েন্স ফর বাংলাদেশ ওয়ার্কার সেফটি' নামে দুটি শ্রমিক নিরাপত্তা কর্মসূচি চালু হয়৷ এর আওতায় পশ্চিমা ব্র্যান্ডগুলোর কাছে যেসব কারখানা পোশাক রপ্তানি করে সেসব কারখানার কর্মপরিবেশ ও শ্রমিক নিরাপত্তা নিশ্চিতের উদ্যোগ নেয়া হয়৷

তবে নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘স্টার্ন সেন্টার ফর বিজনেস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস'-এর এক প্রতিবেদন বলছে, বাংলাদেশের সাত হাজারেরও বেশি কারখানা রপ্তানির জন্য পোশাক তৈরি করে৷ এর মধ্যে অর্ধেক অর্থাৎ প্রায় সাড়ে তিন হাজার কারখানা আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ডগুলোর জন্য পোশাক তৈরি করে৷ কিন্তু ঐ দুটি নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় রয়েছে মাত্র ১,৮০০টির মতো কারখানা৷ সে হিসেবে বাকি কারখানাগুলোর শ্রমিকদের নিরাপত্তা ঝুঁকির মুখে রয়েছে প্রতিবেদনে জানানো হয়৷

এদিকে, গত নভেম্বরে বাংলাদেশ সরকার প্রায় দেড় হাজার পোশাক কারখানা পরিদর্শনের ফল প্রকাশ করে৷ এতে তারা ৮১ শতাংশ কারখানাকে ‘নিরাপদ' বলে উল্লেখ করে৷

রানা প্লাজা দুর্ঘটনার পর বাংলাদেশের পোশাক শ্রমিকদের জীবনে কী পরিবর্তন এসেছে সে বিষয়ে একটি ভিডিও প্রতিবেদন তৈরি করে থমসন রয়টার্স ফাউন্ডেশন৷ সেখানে একজন বলেন, ‘‘... ইউরোপীয় ক্রেতারা আমাদের কাছে আইসা দুনিয়ার সবচেয়ে ভালো কমপ্লায়েন্স দাবি করবে আর দুনিয়ার সবচেয়ে কম টাকা দেবে, এটা কীভাবে সম্ভব?'' রয়টার্স-এর প্রতিবেদনে বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট-এর পরিচালক সারা হোসেন এরও মন্তব্য নেয়া হয়৷ তিনি বলেন, রানা প্লাজা ঘটনার পর বিশ্বে বাংলাদেশের পোশাক খাত নিয়ে যে ধরণের নেতিবাচক ক্যাম্পেন শুরু হয়েছিল যেমন ‘মেড ইন বাংলাদেশ মিনস মেড উইথ ব্লাড' – সেটা শ্রমিকদের জন্য সহায়ক ছিল না৷

সারা হোসেন বলেন, কারখানা বন্ধ করে দেয়া কোনো সমাধান না, শ্রমিকদের বিক্ষোভের জন্য রাস্তায় নামিয়ে দেয়াটাও কোনো সমাধান নয়৷ ‘‘আমরা নারী শ্রমিকদের তাঁদের গ্রামে পাঠিয়ে দিতে চাই না৷ আমরা কোনো নেগেটিভ ক্যাম্পেনও চাই না৷ বরং আমরা এমনটা বলতে সমর্থ হতে চাই যে, ‘মেড ইন বাংলাদেশ মিনস মেড উইথ প্রাইড'৷''

জেডএইচ/ডিজি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন