1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ফিলিপাইন্স

বাংলাদেশের ঘটনায় ফিলিপাইন্সে আইন পরিবর্তন?

বাংলাদেশ ব্যাংকের চুরি যাওয়া অর্থ ফিলিপাইন্সের ক্যাসিনোতে ব্যবহৃত হওয়ায় দেশটির আইনপ্রণেতারা ভবিষ্যতে এ ধরনের পরিস্থিতি এড়াতে অ্যান্টি-মানি লন্ডারিং আইনে পরিবর্তন আনার পরিকল্পনা করছেন৷

ফিলিপাইন্সের সেনেটের প্রেসিডেন্ট একুইলিনো পিমেন্টেল সাংবাদিকদের বলেন, তাঁরা যে বিলের খসড়া তৈরি করেছেন তাতে অ্যান্টি-মানি লন্ডারিং আইনের ফাঁক-ফোকরগুলো বন্ধ করার কথা বলা হয়েছে৷ আগামী মে মাসে বিলটি অনুমোদন পেতে পারে৷ এরপর এই বছরের মধ্যেই প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতার্তেকে দিয়ে বিলটি স্বাক্ষর করানোর পরিকল্পনা করা হচ্ছে৷

আইনে পরিবর্তন আসলে ক্যাসিনোগুলোকে প্রতি ২৪ ঘণ্টায় কোনো বাজির দর ৬০ হাজার ডলার বা তার বেশি ধরা হলে সেই তথ্য দেশটির অ্যান্টি-মানি লন্ডারিং সংস্থাকে জানাতে হবে৷ এছাড়া ক্যাসিনো কর্তৃপক্ষকে ক্রেতাদের পরিচয় সম্পর্কে আরও বেশি তথ্য জানতে হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

পিমেন্টেল বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের চুরি যাওয়া অর্থ নিয়ে তদন্তের প্রেক্ষিতেই নতুন বিল আনা হচ্ছে৷ বর্তমানে বলবৎ থাকা অ্যান্টি-মানি লন্ডারিং আইন ও কঠোর ব্যাংক সিক্রেসি আইনের কারণে চুরির অর্থ কোথায়, কীভাবে, কার সাহায্যে খরচ হয়েছে তা খুঁজে পাওয়ার কাজটি বেশ জটিল হয়ে উঠেছে৷

নিউ ইয়র্কের ফেডারাল রিজার্ভ ব্যাংকে থাকা বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে চুরি যাওয়া ৮১ মিলিয়ন ডলারের মাত্র এক পঞ্চমাংশ অর্থ এখন পর্যন্ত উদ্ধার করা গেছে৷

উল্লেখ্য, এশিয়ার মধ্যে ফিলিপাইন্সে ক্যাসিনোর বড় বাজার রয়েছে৷ গত বছর এই খাত থেকে প্রায় ২ দশমিক ৯৭ বিলিয়ন ডলার আয় হয়েছে৷

ক্যাসিনোর মালিকদের প্রভাবের কারণে এতদিন প্রস্তাবিত বিষয়গুলোর অনুমোদন নেয়া যায়নি৷ তবে প্রেসিডেন্ট দুতার্তে মাদক পাচারকারীদের অর্থের প্রবাহ ধরতে ব্যর্থ হওয়ায় অ্যান্টি-মানি লন্ডারিং কর্তৃপক্ষের কাজ নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন তিনি৷ এই ব্যাপারটিও আইনে সংশোধনী আনার বিষয়টি সহজ করেছে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন৷

জেডএইচ/ডিজি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন