1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘বাংলাদেশের উন্নয়নে পাশে থাকবে জার্মানি'

জার্মানির পুনরেকত্রীকরণ দিবস উপলক্ষ্যে বাংলাদেশে নিযুক্ত জার্মান রাষ্ট্রদূত ড. আলব্রেশট কনসে বলেন, জার্মানি এবং বাংলাদেশের মধ্যে আস্থার সম্পর্ক আরো গভীর হয়েছে৷ উন্মোচিত হয়েছে দুই দেশের বন্ধুত্ব ও সহযোগিতার নতুন ক্ষেত্র৷

default

বাংলাদেশে নিযুক্ত জার্মান রাষ্ট্রদূত ড. আলব্রেশট কনসে (ফাইল চিত্র)

দুই জার্মানি এক হওয়ার ২৩ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে ঢাকার একটি হোটেলে আয়োজন করা হয় জমকালো এক অনুষ্ঠানের৷ এতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং জার্মান রাষ্ট্রদূত ড. আলব্রেশট কনসে ছাড়াও সরকারের অন্যান্য পদস্থ কর্মকর্তা, বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি এবং সাংবাদিকরা উপস্থিত হন৷ সন্ধ্যায় শুরু হয়ে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠান, চলে রাত পর্যন্ত৷ দুই দেশের জাতীয় সংগীত, পতাকা আর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজনকে ভিন্ন মাত্রা দেয়৷

অনুষ্ঠানে জার্মান রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে জার্মানির সম্পর্ক এখন বহুমাত্রিক৷ এর সর্বশেষ অগ্রগতি হলো বাংলাদেশের মধ্যবিত্ত তরুণরা এখন জার্মানিতে উচ্চশিক্ষায় আগ্রহী হচ্ছেন৷ কয়েক হাজার আবেদন এখন বিবেচনার অপেক্ষায় আছে৷ তাঁর মতে, এই তরুণরাই বাংলাদেশ-জার্মানির সম্পর্ককে আরো এগিয়ে নিয়ে যাবে৷

রাষ্ট্রদূত ড. কনসের কথায়, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হতে চায়৷ এ জন্য বাংলাদেশকে সুশাসন এবং বিনিয়োগের পরিবেশ নিশ্চিত করে অর্থনীতির সুপ্ত সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে হবে৷ তবে তিনি মনে করেন, ২০১৫ সাল নাগাদ সহস্রাব্দের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশ সঠিক পথেই এগিয়ে যাচ্ছে৷

জার্মান রাষ্ট্রদূত মনে করেন, বাংলাদেশের সামনে সমৃদ্ধ অর্থনীতি অপেক্ষা করছে৷ তাই তাঁর আশা, সব বাধা দূর করে বাংলাদেশ তৈরি পোশাক রপ্তানিতে বিশ্বের এব নম্বর দেশে পরিণত হবে৷ এছাড়া তাঁর আশা, আগামীতে বাংলাদেশ গণতন্ত্রের পথে এগিয়ে যাবে এবং তাতে সব সময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে জার্মানি৷

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি বাংলাদেশ-জার্মানির ঐতিহাসিক সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে অবাধ এবং নিরপেক্ষ৷ আর এই গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে দুই দেশের সম্পর্ক আরো দৃঢ় হবে বলে মনে করেন তিনি৷ শুধু তাই নয়, এক্ষেত্রে জার্মানির অব্যাহত সহায়তারও প্রশংসা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী৷

এদিকে, জার্মানি বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিদ্যুৎ সুবিধা পৌঁছে দিতে একটি ঋণ চুক্তি করেছে৷ এই চুক্তির আওতায় জার্মানি বাংলাদেশকে ১,০০৮ কোটি টাকা (৯৭.০ মিলিয়ন ইউরো) দেবে৷ দেশের পশ্চিমাঞ্চলীয় বিদ্যুৎ গ্রিড উন্নয়নে এই ঋণের টাকা ব্যবহার করা হবে৷ এর উদ্দেশ্য হলো, সুবিধা বঞ্চিত যাঁরা এখনো বিদ্যুৎ পাননি, তাদের বিদ্যুৎ সুবিধা পৌঁছে দেয়া৷ গত রবিবার এই চুক্তি সই অনুষ্ঠানে জার্মান রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশের বিদ্যুৎ এবং জ্বালানি খাতে জার্মানির সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে৷ বিশেষ করে, নবায়নযোগ্য জ্বালানির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ-জার্মানি অনেক বছর ধরে কাজ করছে৷

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরের বছর ১৯৭২ সালেই জার্মানি বাংলাদেশে তাদের দূতাবাস খোলে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন