1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘বাংলাড্রোন’ ব্যবহার করা হবে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায়

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ বা ডিএমপি ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায় দেশে নির্মিত চালকবিহীন ড্রোন বিমান ব্যবহারের চিন্তা করা হচ্ছে৷ স্থানীয় প্রকৌশলীদের তৈরি ড্রোনের পরীক্ষামূলক উড্ডয়নও হয়েছে এরই মধ্যে৷ জানিয়েছেন পুলিশ কমিশনার৷

Re:publica 2013

ফাইল ফটো

ডিএমপির মাঠে খোলা আকাশে চালকবিহীন ড্রোনের পরীক্ষামূলক উড্ডয়ন হয় বুধবার বিকেলে৷ ড্রোনটি ১০ মিনিট আকাশে ওড়ে৷ লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি চালিত এই ড্রোন ৫০০ ফুট ওপরে উড্ডয়নে সক্ষম হয়৷
বাংলাদেশের তরুণ কয়েকজন প্রকৌশলীর প্রতিষ্ঠান অ্যারো রিচার্স সেন্টার ছোট আকারের এই ড্রোন তৈরি করেছে দেশীয় প্রযুক্তি ব্যবহার করে৷ তারা এর নাম দিয়েছে ‘বাংলাড্রোন'৷

Bangladesch Streik in Dhaka

ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায় ড্রোন ব্যবহার করতে চায় পুলিশ

এছাড়া ঘুড়ি-১ এবং ঘুড়ি-২ নামে আরো দুটি ড্রোন বানিয়েছে তারা৷ অ্যারো রিচার্স সেন্টার-এর প্রকৌশলী খায়রুজ্জামান বিপ্লব জানান, তাদের তৈরি করা ড্রোন একটানা ২৫ মিনিট উড়তে পারে৷ উঠতে পারে ৫০০ ফুট ওপরে, ঘণ্টায় গতিবেগ যার ৪০ কি.মি.৷ তাদের ড্রোনের ওজন ৭.৬ কিলোগ্রাম আর এর সর্বোচ্চ পরিবহন ক্ষমতা ১০ কিলোগ্রাম ওজনের জিনিস৷ তবে তিনি জানান, তাদের ১.৬ কিলোগ্রাম ওজনের হাল্কা ড্রোনও আছে, যার বহন ক্ষমতা ১ কিলোগ্রামের কিছু বেশি৷ এ সব ড্রোন তৈরিতে সর্বনিম্ন ১০ লাখ টাকা খরচ পড়ছে৷

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার বেনজীর আহমেদ বলেন, এ সব ড্রোন দিয়ে ছবি তোলা, স্থান চিহ্নিত করা, লাইভ ছবি নেয়া এবং টার্গেট অনুযায়ী কিছু ফেলা সম্ভব৷ বিশেষ করে, ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা এবং অপরাধ দমনে এই ড্রোন বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে৷ এছাড়া নজরদারির ক্ষেত্রে এই ড্রোন কাজে আসবে৷ তিনি জানান, পুলিশের ব্যবহার উপযোগী করতে তারা আরো কিছু ‘ফিচার' সংযুক্ত করতে বলেছেন এই ড্রোনে৷ একই সঙ্গে আরো কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের প্রস্তাব এবং বাজেট পর্যালোচনা করা হচ্ছে৷ সব কিছু মিলে গেলে ডিএমপিতে সংযুক্ত হবে এই ‘বাংলাড্রোন'৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন