বসতি সম্প্রসারণ বন্ধ হবে না- নেতানিয়াহু | বিশ্ব | DW | 21.03.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বসতি সম্প্রসারণ বন্ধ হবে না- নেতানিয়াহু

পূর্ব জেরুসালেমে বসতি সম্প্রসারণ বন্ধ হবে না বলে আবারও সাফ জানিয়ে দিয়েছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু৷ এদিকে গুলিতে নিহত দুই ফিলিস্তিনির শেষকৃত্যে হাজার হাজার মানুষ ইসরায়েল বিরোধী বিক্ষোভ করে৷

default

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু

বসতি সম্প্রসারণ ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ইসরায়েলের সম্পর্ক বর্তমানে বেশ শীতল হয়ে পড়েছে৷ আন্তর্জাতিক চাপের মুখেও ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু তাঁর আগের অবস্থানে অনড় রয়েছেন৷ এই অবস্থায় ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীকে সরাসরি আলোচনার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ আগামী মঙ্গলবার ওয়াশিংটনে দুই নেতার এই বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে৷ তবে রোববার ওয়াশিংটনের উদ্দেশ্যে যাত্রার আগে নেতানিয়াহু আবারও বললেন, ‘পূর্ব জেরুসালেমের বসতি সম্প্রসারণে ইসরায়েলি সরকার কোন বাধা সৃষ্টি করবে না৷' অর্থাৎ বসতি সম্প্রসারণ চলবে, সেই ঘোষণাই পুনর্ব্যক্ত করলেন নেতানিয়াহু৷

উল্লেখ্য, দিন দশেক আগে মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ইসরায়েল সফরকালে পূর্ব জেরুসালেমে আরও বসতি নির্মাণের ঘোষণা দেয় নেতানিয়াহুর সরকার৷ এই ঘোষণাকে স্পষ্টতই অপমানজনক বলে আখ্যা দেন মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী হিলারি ক্লিন্টন৷ তবে রোববার নেতানিয়াহু এক বক্তব্যে বলেন, ‘ইসরায়েলের গত ৪২ বছরের নীতি ও কৌশলের সঙ্গে জেরুসালেম জড়িত৷ এই নীতি সবসময় এক ছিল, এতে কোন পরিবর্তন হয়নি৷ জেরুসালেমে কিছু তৈরি করা আর তেলআভিভে কিছু তৈরি করার মধ্যে কোন পার্থক্য নেই৷ এবং মার্কিন সরকারকে তা আমরা খোলাখুলিভাবেই জানিয়েছি৷ এই সমস্যার সমাধান ফিলিস্তিনি সরকার এবং আমাদের মধ্যে সরাসরি আলোচনার মাধ্যমেই সম্ভব৷'

Israel / Jerusalem / Unruhen

পশ্চিম তীরে চলছে সহিংস প্রতিবাদ

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর এই মনোভাবের পর প্রেসিডেন্ট ওবামার সঙ্গে আগামী মঙ্গলবারের বৈঠক কতটুকু সফল হবে তা নিয়ে সন্দেহ সৃষ্টি হয়েছে৷ ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস ইতিমধ্যে নেতানিয়াহুর বক্তব্যকে অসহযোগিতামূলক বলে সমালোচনা করেছেন৷

পশ্চিম তীরে হাজারো জনতার বিক্ষোভ

এদিকে পশ্চিম তীরের ইরাক বুরিন গ্রামে রোববার হাজার হাজার মানুষ নিহত দুই ফিলিস্তিনি তরুণের শেষকৃত্যে যোগ দেয় এবং ইসরায়েল বিরোধী বিক্ষোভ করে৷ শনিবার ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে ১৬ ও ১৭ বছর বয়সি এই দুই তরুণ প্রাণ হারায়৷ ইসরায়েলি বাহিনী দাবি করেছে যে, তারা ফিলিস্তিনিদের সহিংসতা থামাতে রাবার বুলেট ব্যবহার করেছে৷ তবে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে যে নিহত দুই তরুণের দেহে তাজা বুলেট পেয়েছেন চিকিৎসকরা৷ উল্লেখ্য, গত কয়েকদিন ধরেই পশ্চিম তীরে ইসরায়েল বিরোধী সহিংস প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি৷ তাদের অভিযোগ যে ইসরায়েলের বাসিন্দারা তাদের জমিতে অবৈধভাবে বাড়ি নির্মাণ করে আসছে৷

প্রতিবেদক: রিয়াজুল ইসলাম, সম্পাদনা: হোসাইন আব্দুল হাই

সংশ্লিষ্ট বিষয়