বলিউডে বেড়ে চলেছে শহুরে থিম | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 13.10.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

বলিউডে বেড়ে চলেছে শহুরে থিম

‘স্লামডগ মিলিয়োনেয়ার’ ছবির কল্যাণে মুম্বই শহরের বাস্তব চালচিত্র পৌঁছে গেছে গোটা বিশ্বের কাছে৷ কিন্তু তার আগে এবং পরেও শহুরে জীবনের নানা দিক ফুটিয়ে তোলা হচ্ছে বলিউডে৷

default

‘স্লামডগ মিলিয়োনেয়ার’-এর একটি দৃশ্য

একটা সময় ছিল, যখন বলিউড ছবির ‘ফর্মুলা' সবাই জানতো৷ নতুন ছবি দেখার আগেই দর্শক আঁচ পেতেন, কী হতে চলেছে৷ ইদানিংকালে কিন্তু পরিচালক ও অভিনেতারা একেবারে নতুন বিষয় নিয়ে ছবি করার সাহস দেখাচ্ছেন, আগে যেটা শুধু তথাকথিত ‘আর্ট-ফিল্ম' এর ক্ষেত্রেই ঘটতো৷ এখন নতুন স্বাদের ছবিও যথেষ্ট দর্শক টানছে এবং বাণিজ্যিকভাবে সফলও হচ্ছে৷

টোরন্টো চলচ্চিত্র উৎসবে ভারতীয় ছবির সম্ভার দেখলে নতুন এই বাস্তব স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে৷ ৪টি ছবির মধ্যে ৩টিই শহুরে বিষয় নিয়ে তৈরি হয়েছে৷ যেমন কিরণ রাও'এর ‘ধোবি ঘাট', যা ‘মুম্বই ডায়েরিস' নামে প্রথম বারের মতো উৎসবে দেখানো হচ্ছে৷ ৪টি প্রধান চরিত্রের নিয়তি কীভাবে মুম্বই শহরে সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত, তা ছবিতে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে৷ রয়েছে অনুরাগ কাশ্যপের ছবি ‘দ্যাট গার্ল ইন ইয়েলো বুটস'৷ ছবিতে এক অ্যাংলো-ইন্ডিয়ান তরুণী তাঁর বাঙালি বাবার সন্ধানে মুম্বই শহরে এসেছেন৷

কাশ্যপের মতো পরিচালকরা বলছেন, মুম্বই বা দিল্লির মতো শহরের ঝাঁ-চকচকে এলাকা এবং বিখ্যাত প্রাসাদ-অট্টালিকা নয়, চলচ্চিত্রের অনেক মাল-মশলা আসলে লুকিয়ে রয়েছে অন্যান্য প্রান্তে৷ ভারতের চলমান নগরায়ন প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছে অসংখ্য মানুষের নিয়তি৷ তাই শুধু নায়ক-নায়িকার ভালবাসার কাহিনী নিয়ে চলচ্চিত্র না তৈরি করে জীবনের অন্যান্য দিক নিয়েও ভাল চলচ্চিত্র তৈরি করা যেতে পারে৷

প্রতিবেদন: সঞ্জীব বর্মন

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল ফারূক