1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

বরফ ফুরোলে হারায় গ্রাম, বাস্তুহারা হয় মানুষ

আন্দিজ পর্বতমালায় ইনকাদের গ্রামও একদিন জনশূন্য হয় পানির অভাবে৷ হিমবাহের বরফ ফুরোয়৷ পাহাড়ের উপরের মানুষজন উপত্যকায় নেমে আসেন৷ এই অবক্ষয় রোখার পন্থার খোঁজ চলেছে পেরুতে ৷

একটি হিমবাহ রয়ে গেছে৷ এত উঁচুতে, পেরুর ইয়াউইয়স-কচাস ন্যাশনাল পার্কে আগে অনেক হিমবাহ ছিল, এখন সেগুলো উধাও হয়েছে৷ তা সত্ত্বেও রবেহিলডো তাইপের কাছে এখানকার প্রকৃতি অপরূপ৷ হিমবাহের হ্রদের পানি যতদিন না উধাও হচ্ছে, ততদিন চার হাজার মিটার উচ্চতায় এই মনোরম উপত্যকাটি রবেহিলডোর খুবই প্রিয়৷ তিনি বলেন, ‘‘আমার জন্মানোর সময়েই এখানকার হিমবাহে কোনো বরফ ছিল না৷ শীতে আজও কখনো-সখনো বরফ পড়ে৷ ওপরে গিরিপথে বরফ পড়ে থাকে, কিন্তু শীত শেষ হলেই এখন যেরকম দেখাচ্ছে, সেরকম দেখায়৷''

নীচের উপত্যকায় রবেহিলডোর নিজের গ্রাম মিরাফ্লোরেস৷ প্রবীণরা বলেন, এখানে শীঘ্রই জলাভাব দেখা দিতে পারে৷ কেননা তারা পিতৃপুরুষের কাহিনি জানেন৷ ইতিমধ্যেই উপত্যকায় জীবনধারণ কঠিন হয়ে উঠছে৷ টুরিস্টরা আসেন বটে, কিন্তু বস্তুত এখানকার মানুষদের পেশা কৃষিকাজ৷

ওদিকে চাষবাস ক্রমেই অনিশ্চিত হয়ে উঠছে৷ বহু লোকে গ্রাম ছেড়েছে৷ রবেহিলডো নিজেও একবার বছর চারেকের জন্য গ্রাম ছেড়ে গিয়েছিলেন; রাজধানী লিমায় ওয়েল্ডিং-এর কাজ শিখেছিলেন৷ পরে তিনি গ্রামে ফিরে আসেন৷ তাঁর জীবনদর্শন হলো, ‘‘মানুষ যখন যায়, তখন একটা কিছু শিখতে যায়৷ আমি দূরে গিয়ে যা শিখেছি, তা আমি এখানে যারা ছোট, তাদের শেখাতে পারি, যাতে তারা আরো উন্নতি করতে পারে৷''

জলবায়ু বদলাচ্ছে

তা সত্ত্বেও রবেহিলডো একটি ব্যতিক্রম৷ একেবারে নীচে, আন্দিজ পর্বতমালার পাদদেশে, সেটা স্বচক্ষে দেখা যায়৷ এ ধরনের নতুন নতুন গ্রামে যারা থাকেন, তারা পাহাড় এলাকা থেকে পালিয়ে এসেছেন, কেননা সেখানে জলবায়ুর কোনো নিশ্চয়তা নেই৷ কাজেই তারা এখন শহরেই ভাগ্যের সন্ধান করতে পছন্দ করেন৷ নতুন বাসিন্দা মার্লেনে লাসারো বলেন, ‘‘অনেক কিছু বদলে গেছে৷ আগে যখন নিয়মিত বর্ষা হত, তখন যেরকম ফসল পাওয়া যেত, আজ তা পাওয়া যায় না৷ আজকাল হয়ত একবার বৃষ্টি হলো, তারপর মাসের পর মাস কোনো বৃষ্টি নেই৷ সব কিছু খুবই অনিশ্চিত৷''

ওপরে, মিরাফ্লোরেস গ্রামের কাছেও দেখা যায় যে, বহু চাষি ভিটেমাটি ছেড়ে পালিয়েছেন৷ পেরু সরকার জার্মান সহযোগিতায় এই প্রবণতা রোখার চেষ্টা করছেন৷ মাছের চাষ, পশুপালন, আলপাকা পশম, এ সব এখনও চলে৷ ছোট ছোট খেতগুলোয় নতুন করে লাঙল দেওয়ার আগে বছর দুয়েক ফেলে রাখা যায়৷ তবে কিছু নতুন সমস্যা দেখা দিয়েছে৷ মিরাফ্লোরেস গ্রামের বাসিন্দা ইল্ডা লারা কাস্তিয়া জানালেন, ‘‘জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে এখানে শুঁয়োপোকা বেড়েছে, অসময়ে ঠান্ডা পড়ছে, ভু্ট্টায় পোকা ধরছে৷ এর ফলে শুঁটি কিংবা আলুর গাছগুলো মরে যাচ্ছে৷''

একেবারে ওপরে, চার হাজার মিটার উচ্চতায়, ইনকাদের গ্রাম উয়াকিস৷ পানি না থাকায় একশ’ বছর আগে গ্রামের বাসিন্দারা গ্রামটি ছেড়ে অন্যত্র যেতে বাধ্য হয়েছিলেন৷ মিরাফ্লোরেস গ্রামটির পত্তন সেই বাস্তুহারাদের হাতে৷ সে যাবৎ মানুষজনের আশঙ্কা যে, মিরাফ্লোরেস গ্রামেরও সেই দশা হতে পারে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও