1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

বরফের নীচ থেকে জেগে উঠছে অক্ষত প্রাণী

‘জুরাসিক পার্ক’ ছবিতে ডাইনোসরদের কাণ্ডকারখানা দেখে প্রাগৈতিহাসিক যুগের প্রায় এক জীবন্ত চিত্র পাওয়া যায়৷ বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ফলে বরফ গলতে থাকায় বেরিয়ে পড়ছে এই যুগের প্রায় অক্ষত প্রাণী৷ তাদের কি আবার জাগিয়ে তোলা সম্ভব?

বরফ গলে চলায় বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে অনেক জীবাশ্ম বেরিয়ে পড়ছে৷ বিজ্ঞানীদের কাছে এ সব গুপ্তধনের মতো৷ ১৯৯১ সালে হিমবাহের মধ্যে ‘ও্যৎসি'-র আবিষ্কার ছিল বিশাল এক চমক৷ প্রায় ৫,৩০০ বছর আগে এই শিকারি জীবিত ছিল৷ তার শুকনা জমাট শরীর এতকাল বরফের নীচে চাপা ছিল৷ ‘ও্যৎসি'-র সঙ্গে পাওয়া যন্ত্রপাতি দেখে প্রাগৈতিহাসিক যুগের এই আবিষ্কারের গুরুত্ব আরও স্পষ্ট হয়ে গেছে৷

বরফের নীচে এমন ঐশ্বর্যের অনুসন্ধান অত্যন্ত জরুরি৷ বরফ গললে ও তার নীচের জমির জমাট ভাব কেটে গেলে এই কাজে সাফল্যের হার বেড়ে যায়৷

তখন গবেষকরা একেবারে অক্ষত জীবজন্তুও পেয়ে যান৷ যেমন ‘লিউবা' নামের প্রায় ৪২,০০০ বছর বয়স্ক ম্যামথ৷ সাইবেরিয়ার উত্তরে বিলুপ্ত এই প্রজাতির একটি শিশুর মরদেহ পাওয়া গিয়েছিল৷ তার শরীরের জিন বিশ্লেষণ করে বিজ্ঞানীরা এই প্রজাতির উত্থান ও পতন সম্পর্কে তথ্য পেতে চান৷

রুশ গবেষকরা আরও এক ধাপ এগিয়ে গবেষণাগারে কৃত্রিম উপায়ে আবার এই ‘উলি ম্যামথ' সৃষ্টি করার পরিকল্পনা করছেন৷ ক্লোন করা ম্যামথ? নৈতিকতার মানদণ্ডে বিষয়টি বিতর্কিত, এ ক্ষেত্রে সাফল্যও অনিশ্চিত৷ বরফে জমাট মাটির তলায় বিলুপ্ত প্রাণীদের ক্ষুদ্র সংস্করণের অভাব নেই৷ বরফ গলার পর সেগুলির পুনরুজ্জীবনও অসম্ভব নয়৷

যেমন একটি ভাইরাস৷ মার্সেই শহরের গবেষকরা এর নাম রেখেছেন ‘পাইথোভাইরাস'৷ প্রায় ৩০,০০০ বছর ধরে সেটা বরফে জমাট মাটির নীচে বন্দি ছিল৷ এখন একটি অ্যামিবার মধ্যে সেটিকে আবার জীবন্ত করে তোলা হয়েছে৷

বরফের মধ্যে জমাট এই সব নিদর্শন মানবজাতির আদি ইতিহাস সম্পর্কেও অনেক তথ্য সরবরাহ করে৷ শত্রুর মোকাকিলা করতে মানুষ তখন কী ধরনের যন্ত্রপাতি ব্যবহার করতো, সে বিষয়ে আরও জানা যায়৷

মানুষ সহ বিভিন্ন প্রজাতির সৃষ্টির রহস্য, জীবনের রহস্য এখনো বরফের স্তরের নীচে লুকিয়ে রয়েছে৷ এই চমকপ্রদ বিশ্বে যে আরও কত বিস্ময় লুকিয়ে রয়েছে, কে জানে!

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক