1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ববস্লেড ও স্কেটিং-এর বৈজ্ঞানিক ভিত্তি

বরফাচ্ছাদিত ট্র্যাকের উপর ববস্লেড-এর ছুটে চলা কিংবা আইসস্কেটিং দেখতে কতই না ভালো লাগে৷ কিন্তু এ সব খেলার পিছনে যে বৈজ্ঞানিক সূত্র থাকে, তার কথা জানে ক’জন মানুষ?

বরফ আচ্ছাদিত ট্র্যাকে নামার জন্য প্রস্তুত ডারিয়ুস ক্যোনে৷ ১৯ বছর বয়সি এই ববস্লেড পাইলটকে সবসময় ফিট থাকতে হয়৷ শীঘ্রই এই খেলার জার্মান চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হবে৷

ববস্লেড জোরে বা আস্তে চলার পেছনের সূত্র সাধারণের পক্ষে বোঝা বেশ জটিল৷ ডর্টমুন্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মেতিন টোলান এটা সবচেয়ে ভালো বোঝেন: ‘‘একটি ববস্লেড কী ভাবে নীচের দিকে ধাবিত হয়, তা বুঝতে হলে প্রথমে এটির উপরে কার্যকর শক্তিগুলো সম্পর্কে জানতে হবে৷ ধরুন এটা একটা পাহাড়, যার উপরে আরোহীসহ ববস্লেডটি রয়েছে৷ মূলত মাধ্যাকর্ষণ শক্তির জন্য এটি নীচের দিকে ধাবিত হয়৷ তবে এখানে অন্যান্য আরো শক্তি রয়েছে, যা মাধ্যাকর্ষণের বিপরীতে কাজ করছে৷ ‘ফ্রিকশন ফোর্স' ববস্লেডকে উলটো দিকে টানার চেষ্টা করছে৷ মাধ্যাকর্ষণ শক্তির বিপক্ষে দ্বিতীয় যে শক্তিটি কাজ করে, তা হচ্ছে বাতাসের বিপরীতমুখী চাপ৷

এই চাপের তীব্রতা ববস্লেডের ‘এয়ারোডায়নামিক' ডিজাইনের উপর নির্ভর করে৷ তাছাড়া এ কারণে ভারী ববস্লেড হালকা স্লেডের চেয়ে দ্রুত গতিতে নীচে নামে৷ একটি পরীক্ষার মাধ্যমে বিষয়টি সহজে বোঝানো যায়৷ টিউবের মধ্যে থাকা ভারী বলটি কাগজের হালকা টুকরার চেয়ে অনেক দ্রুত গতিতে নীচে নেমে যাচ্ছে৷ শুধুমাত্র বাতাসের বাধার কারণে এমনটা হচ্ছে৷ টিউবটি এবার বায়ুশূন্য করা হলো৷ এবার দেখা যাচ্ছে, ভারী বল এবং কাগজের টুকরা একইসঙ্গে নীচের দিকে নামছে৷''

তবে ববস্লেড টিমের সদস্যরা অ্যাথলিটও৷ তাই তাদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে প্র্যাকটিস, প্র্যাকটিস এবং প্র্যাকটিস৷ ফিগার স্কেটিং-এর ক্ষেত্রেও এ কথা প্রযোজ্য৷ নিজের নৈপুণ্য ধরে রাখতে নিনা মারিয়া সপ্তাহে অন্তত পাঁচবার বরফের উপর প্র্যাকটিস করেন৷ কিন্তু বরফের উপর এই খেলার পেছনেও কি কোনো বৈজ্ঞানিক সূত্র আছে? প্রফেসর মেতিন টোলান বললেন:

‘‘বরফের উপরে কয়েক ন্যানো মিটার পুরু অত্যন্ত পাতলা একটি তরল স্তর থাকে, যা খালি চোখে দেখা যায় না৷ এই স্তরের কারণেই বরফের উপরে দ্রুত চলা যায়৷ পরীক্ষায় তরল স্তরের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে৷ স্কেটের ব্লেড এই স্তরের উপরে দ্রুত চলতে পারে৷''

অবশ্য ফিগার স্কেটিংয়ে ভালো পয়েন্ট পেতে হলে শুধু পিছলে চললেই হবে না, ঘুরতেও হবে৷ প্রফেশনালরা তাই এক পায়ের উপর ভর দিয়ে ঘোরার বিভিন্ন কৌশল শিখে নেন৷ কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, বরফের উপর স্পিন বা ঘোরার ক্ষেত্রে কী ধরনের শক্তি প্রভাব রাখে? আবার প্রফেসর মেতিন টোলান-এর শরণ নিতে হবে:

‘‘বরফের উপর দ্রুত বেগে ঘোরার ব্যাপারটি পদার্থবিদ্যার ‘অ্যাংগুলার মোমেন্টাম' নীতির উপর নির্ভরশীল৷ অ্যাংগুলার মোমেন্টাম হচ্ছে ‘মোমেন্ট অফ ইনারশিয়া' বা জড়তা এবং স্কেটারের ঘোরার ফ্রিকোয়েন্সির সম্মিলিত রূপ৷ স্কেটার লাফ দেয়ার আগ মুহূর্ত এবং ঘূর্ণন সম্পন্নের পর মুহূর্তে এটি কনস্ট্যান্ট হতে হবে৷ আপনি স্পিন শুরুর আগের ‘মোমেন্ট অফ ইনারশিয়া' এভাবে আঁকতে পারেন৷ হাত যখন ছড়ানো থাকে তখন ‘ইনারশিয়া' বা জড়তা বেশি থাকে, ফলে স্কেটার দ্রুত ঘুরতে পারেন না৷ কিন্তু যেই মুহূর্ত হাত ভাঁজ করে জড়তা কমিয়ে আনা হয়, তখনই ঘোরার গতি বেড়ে যায়৷''

ঘোরার নীতিটা আসলে সহজই৷ তবে বাস্তবে যখন স্কেটাররা সেটি প্রদর্শন করেন তখন পুরো ব্যাপারটি এক শৈল্পিক রূপ পায়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক