1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

বড় প্রকল্পে স্বচ্ছতা আনবে থ্রিডি মডেল

জার্মানিসহ অনেক দেশে বড় বড় নির্মাণ প্রকল্প নিয়ে বিতর্ক বেড়ে চলেছে৷ জার্মান বিজ্ঞানীরা এমন এক সমাধানসূত্র প্রস্তুত করছেন, যার সাহায্যে এলাকার নাগরিকদের অংশগ্রহণের মাধ্যমে প্রকল্পের বিভিন্ন ত্রুটি আগেভাগেই দূর করা যাবে৷

ভিডিও দেখুন 04:32

নাগরিকদের অংশগ্রহণে নির্মাণ প্রকল্প

নতুন বিমানবন্দর, রেল স্টেশন, বায়ুশক্তি কেন্দ্র বা বিদ্যুৎ লাইন বসানোর মতো বড় প্রকল্প নিয়ে আজকাল বিশাল বিতর্ক ও বড় আকারের প্রতিবাদ-বিক্ষোভ দেখা যাচ্ছে৷ এই ধরনের বিরোধের প্রধান কারণ প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত বিভিন্ন পক্ষের মধ্যে পারস্পরিক যোগাযোগের অভাব৷ গ্রামে বা শহরে কোনো বড় প্রকল্পের পরিকল্পনা কী ভাবে নাগরিকদের কাছে আরও স্বচ্ছ ও বোধগম্য করে তোলা যায়, তা নিয়ে গবেষণা চালাচ্ছেন ফ্রাউনহোফার ইন্সটিটিউটের বিজ্ঞানীরা৷

এর জন্য তাঁরা নতুন হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার তৈরি করেছেন, যার মাধ্যমে বাস্তবের আদলে এক ত্রিমাত্রিক ভার্চুয়াল জগত গড়ে তোলা যায়৷ এভাবে অনেক বিরোধ আগেভাগেই মিটিয়ে ফেলা সম্ভব বলে মনে করেন তাঁরা৷ ফ্রাউনহোফার ইন্সটিটিউটের ড. ইওয়াখিম রিক্স বলেন, ‘‘নাগরিকদের অংশগ্রহণ, তাদের পর্যাপ্ত তথ্য দেওয়া, তাদের আইডিয়া কাজে লাগানোর সুযোগ তৈরি করাই এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য৷ ফলে সিদ্ধান্ত নেওয়ার প্রক্রিয়ায় তারাও শামিল হতে পারে৷ প্রকল্প তাদের কাছে আরও গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠতে পারে৷''

গবেষকদের সামনে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হলো পরিকল্পনার পর্যায়ে যে পরিমাণ তথ্য সৃষ্টি হয়, তা কম্পিউটারে ভরা৷ তবে সেই তথ্য ডিজিটাল রূপে থাকায় এবং ইনস্টিটিউটের নিজস্ব সার্ভার পার্কের কল্যাণে এখন শুধু অ্যালগোরিদম নিয়েই ভাবতে হয়৷ গবেষকরা এমন সব থ্রিডি মডেল তৈরি করেছেন, যেগুলি বাস্তব বিশ্বের প্রায় অবিকল নকল৷ গবেষকরা দুই ধরনের তথ্য আলাদা করছেন৷ ফ্রাউনহোফার ইন্সটিটিউটের মিশায়েল ক্রেমার বলেন, ‘‘একদিকে রয়েছে জিওবেসিস ডেটা, যা মূলত কোনো সাইটের মডেল কিংবা বিমান বা স্যাটেলাইট থেকে তোলা ছবি৷ তার সঙ্গে রয়েছে মানচিত্র, জমির ব্যবহার সংক্রান্ত তথ্য, বায়ুশক্তি কেন্দ্র বা বিদ্যুৎ লাইনের মতো প্রকল্পের সিমুলেশন ডেটা ইত্যাদি৷''

এই সব তথ্য তুলে ধরা হয় এক বিশেষ ‘মাল্টি টাচ টেবিল' ও বড় পর্দায়৷ টেবিলটির মাপ ১.৮০ মিটার বাই ১ মিটার৷ ছোট গ্রুপ মিটিং বা নাগরিক সমাবেশে আলোচনার জন্য এটি ব্যবহার করা যায়৷ বিশেষজ্ঞদের দল, বায়ুশক্তি কেন্দ্রের মালিক ও নাগরিকরা সমস্যা ও তার বিকল্প নিয়ে আলোচনা করতে পারেন৷ টেবিলটি অনেকটা বিশাল স্মার্টফোনের মতো, যা চালাতে বিশেষ বিদ্যাবুদ্ধির দরকার নেই৷

ফ্রাংকফুর্ট শহরের কাছে এক বায়ুশক্তি পার্ক গড়ে তোলার পরিকল্পনা হচ্ছে৷ বিজ্ঞানীরা আঙুল দিয়ে দেখাচ্ছেন, কী ভাবে টার্বাইনগুলি ঠিক কোথায় বসানো হবে৷ পরিকল্পনায় কোনো ত্রুটি থাকলে সঙ্গে সঙ্গে তা দেখা যায়৷ যেমন টার্বাইন ও বসতির মধ্যে ন্যূনতম দূরত্ব বজায় না রাখা হলে৷ তখন টার্বাইন সরিয়ে দিতে হবে৷ গোটা প্ল্যান-ও স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপডেট হয়ে যাবে৷

নাগরিকদের অভিযোগ থাকলেও দ্রুত প্রতিক্রিয়া দেখানো সম্ভব৷ যেমন কোনো বাসিন্দা যদি বলেন যে তাঁর নিজের বা প্রতিবেশীর বাড়ির উপর টার্বাইনের ছায়া পড়ছে, তখন সেই ভুল দ্রুত শুধরে নেওয়া যায়৷ ড.রিক্স বলেন, ‘‘সব তথ্য একত্র করাই হলো লক্ষ্য, যাতে সংঘাতের সব সম্ভাবনাই স্পষ্ট হয়ে যায়৷ কিন্তু সঙ্গে সমাধানসূত্রও দিতে হবে৷ আমাদের বিশ্বাস, প্রকল্প শেষ হলে পরিস্থিতি ঠিক কেমন হবে সেটা আগেভাগে দেখাতে পারলেই সংঘাতের সম্ভাবনা কমে যায়৷ অযৌক্তিক আপত্তি আগেই দূর করা যায়৷''

ছোট আকারের নির্মাণ প্রকল্পের ক্ষেত্রেও নাগরিকদের এভাবে শামিল করা সম্ভব৷ সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে আকাশ থেকে তোলা ছবি ও জিওডেটা সমন্বয় করতে হয়৷ মিশেল ক্রেমার বলেন, ‘‘নির্মাণের এলাকা ভবিষ্যতে গোটা অঞ্চলের পরিপ্রেক্ষিতে কেমন দেখতে হবে, তা আমরা দেখাতে পারি৷ এলাকার বাসিন্দাদের বাড়ি থেকে সেই প্রকল্প কেমন দেখতে হবে, তাও আমরা সিমুলেট করতে পারি৷''

ভবিষ্যতে অনলাইন পরিষেবার ক্ষেত্রেও এমন ভিশুয়ালাইজেশন-এর মাধ্যমে নাগরিকদের অংশগ্রহণের সুযোগ সম্ভব হবে৷ ড. রিক্স বলেন, ‘‘পরের ধাপে এই প্রযুক্তি ইন্টারনেটেও সম্ভব করে তোলা হবে বলে আমাদের ধারণা৷ তখন সরাসরি নাগরিকদের কাছে প্রশ্ন রাখা যাবে, তাদের শামিল করা যাবে৷ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে তারা সরাসরি মন্তব্য করতে পারবে৷''

কম্পিউটার প্রযুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে নাগরিকরা এমন প্রকল্পের ক্ষেত্রে আরও গুরুত্ব অনুভব করবেন বলে বিজ্ঞানীরা আশা করছেন৷ সে ক্ষেত্রে যুক্তি-নির্ভর আলোচনাও সম্ভব হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়