1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

বজ্রপাতের ভবিষ্যদ্বাণী

বজ্রপাত, মানে কয়েক লাখ ভোল্টের একটি কারেন্ট, যা তাপ ৩০ হাজার ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড বা সূর্যের পাঁচগুণ বেশি৷ তাই বিজ্ঞানীরা বজ্রপাতের ভবিষ্যদ্বাণী করার চেষ্টা করেছেন৷

বজ্রপাতের বিনাশ শক্তি অসাধারণ, মানুষের মৃত্যু ঘটানোর ক্ষমতা রাখে৷ গবেষকরা একটি হাই টেনশান ল্যাবোরেটরিতে কৃত্রিম বজ্রপাত সৃষ্টি করে দেখেছেন৷ এ থেকে বজ্রপাতের পরিণাম বোঝা যায়৷

পরীক্ষাগারের বজ্রের শক্তি প্রকৃতির বজ্রপাতের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়: কয়েক লক্ষ ভোল্ট৷ এর ফলে প্রায় ৩০,০০০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপ সৃষ্টি হয়, যা কিনা সূর্যের উপরিভাগের চেয়ে পাঁচগুণ বেশি৷

বজ্রপাত গবেষক ভল্ফগাং সিশাঙ্ক বললেন, ‘‘বহু বাড়িতে লাইটনিং কন্ডাক্টর লাগানো থাকে না৷ ফলে প্রায়শই বাজ পড়ে আগুন লাগে৷ হাই টেনশানের ফলে ইলেকট্রনিক জিনিসপত্রের ক্ষতি হতে পারে৷''

বিজ্ঞানীরা বসতবাড়ি ও ইলেকট্রনিক সরঞ্জামকে বজ্রপাতের হাত থেকে আরো ভালোভাবে রক্ষা করতে চান৷ অনেক সময় কাছাকাছি কোথাও বাজ পড়লেই ইলেকট্রিক যন্ত্রপাতি পাগলামি করতে শুরু করে – যেমন ইলেকট্রনিক অ্যালার্ম৷

সিশাঙ্ক জানালেন, ‘‘বজ্রপাতের সময় বিদ্যুৎরেখার চারপাশে যে ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক আবহ সৃষ্টি হয়, তার ফলে ইলেকট্রনিক সরঞ্জামগুলিতে উচ্চ ভোল্টেজের সৃষ্টি হয়৷ এর ফলে যন্ত্রগুলি আর ঠিকমতো কাজ করে না৷''

ইমেলে ঝড়ের পূর্বাভাস

ইতিমধ্যে এমন অ্যান্টেনা তৈরি হয়েছে, যা বজ্রপাত চিনতে পারে৷ বজ্রপাত সতর্কতা পরিষেবাগুলি সময়মতো আসন্ন ঝড়ের পূর্বাভাস পেয়ে ইমেল, এসএমএস বা ফ্যাক্সের মাধ্যমে গ্রাহকদের জানিয়ে দেয়৷ এর ফলে কলকারখানা, বিমানবন্দর, হাসপাতাল ইত্যাদি ব্যবস্থা নিতে পারে৷

কম্পিউটারের মাধ্যমে সারা দেশে কোথায় বজ্রপাত হচ্ছে, তার হিসেব ও পরিমাপ রাখা হয়৷ প্রতিবেশি দেশগুলিকেও সেই হিসেবে ধরা হয়৷ ইঞ্জিনিয়ার স্টেফান ট্যার্ন জানালেন, ‘‘অ্যান্টেনা দিয়ে বজ্রপাতের ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক সিগনাল রেজিস্টার করা হয়৷ তা থেকে হিসেব করে দেখা যায়, কোথায় বজ্রপাত হয়েছে৷''

কোথায় কোথায় বাজ পড়ছে, তা থেকে ঝড়টা কোনদিকে যাচ্ছে, তা হিসেব করা যায়৷ এভাবেই বজ্রপাতের পূর্বাভাস দেওয়া যায়, যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কেননা মেঘ করার আগেই বজ্রপাত হতে পারে৷ প্রতি ঘণ্টায় পৃথিবীতে ক'টা ঝড় হয় জানেন? প্রায় দু'হাজার!

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়