1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

বছরে ৬ লাখ পরোক্ষ ধূমপায়ী প্রাণ হারাচ্ছেন

ধূমপান মানুষকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়৷ এই কথা নতুন করে বলার দরকার নেই৷ কিন্তু যারা ধূমপান করেন না অথচ পরোক্ষ ধূমপান থেকে রক্ষা পাচ্ছেন না, জানেন কি – বছরে এইরকম ৬ লাখ পরোক্ষ ধূমপায়ী প্রাণ হারাচ্ছেন?

default

ধূমপান না করেও তার কুফল ভোগ করছে অসংখ্য মানুষ

পরোক্ষ ধূমপান বছরে ৬ লাখেরও বেশি মানুষের প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে৷ আর তাদের এক তৃতীয়াংশই শিশু৷ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডাব্লিউএইচও-র চালানো এক সমীক্ষার ফলাফলে এই কথা জানানো হয়েছে৷ পরোক্ষ ধূমপান বিশ্বে কী ধরণের প্রভাব ফেলছে তা নিরূপণ করাই প্রথম সমীক্ষাটির লক্ষ্য ছিল৷ তাতেই ডাব্লিউএইচও-র বিশেষজ্ঞরা দেখেছেন, অন্য যে কোন বয়সের চেয়ে পরোক্ষ ধূমপান সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করছে শিশুদের৷ আর এই পরোক্ষ ধূমপানের ফলে প্রতি বছরে প্রায় ১ লাখ ৬৫ হাজার শিশু প্রাণ হারাচ্ছে৷

জেনেভা ভিত্তিক ডাব্লিউএইচও-র এ্যানেটে প্রুস উসটুনের নেতৃত্বে চালানো এই গবেষণায় দেখা গেছে, এদের মধ্যে তিন ভাগের দুই ভাগ শিশুই প্রাণ হারাচ্ছে আফ্রিকা এবং দক্ষিণ এশিয়ায়৷ সমীক্ষায় বলা হয়েছে, পরোক্ষ ধূমপানের মাধ্যমে শিশুরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বাড়িতে৷ আর এতে বিভিন্ন সংক্রমিত রোগ এবং টোব্যাকো দুটোতেই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে তারা৷

EU-Kampagne gegen das Rauchen

ইউরোপীয় ইউনিয়ন সিগারেটের প্যাকেটে এমন ভয়ঙ্কর ছবি লাগিয়ে সচেতনতা বাড়ানোর চেষ্টা করছে

এই প্রসঙ্গে ঢাকার হোলিফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট হাসপাতালের ইনেটেনসিভ কেয়ার মেডিসিনের সহযোগী অধ্যাপক ডাক্তার এজাজ আহমেদকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম পরোক্ষ ধূমপানের ক্ষতি সম্পর্কে ৷ তিনি বললেন, ‘‘যারা স্মোক করে তাদের পাশে যে সমস্ত লোকজন বসে থাকে, তারা বাতাসের মাধ্যমে যে স্মোকটা নিচ্ছেন সেটাকেই আমরা পরোক্ষ ধূমপান বলে থাকি৷ যারা সিগারেট খায় তাদের এবং পরোক্ষ ধূমপায়ীদের মধ্যে খুব একটা ব্যবধান নেই, বরং ওদের ক্ষতিটাই বেশি৷ কারণ,বাতাসে অক্সিজেনকে সরিয়ে দিয়ে ঐ অক্সিজেনের জায়গায়, নিকোটিন এবং ধোঁয়াটা যায়, এবং শরীরের বিভিন্ন সিসটেমকে ইনভল্ব করে৷ প্রথমত ফুসফুসের ক্ষতি করে৷ বিভিন্ন ক্রনিক উপসর্গ তৈরি করে ফুসফুসে৷ এবং দীর্ঘ সময় এই উপসর্গ থাকলে ফুসফুস ক্যান্সারের আশঙ্কা দেখা দেয়, যারা ধূমপান করেন তাদের এবং যারা পরোক্ষ ধূমপান করছেন তাদেরও৷ এছাড়া ক্ষুধা কমে যেতে পারে, ঘুম কম হতে পারে৷ ঘুম কমে যাবার ফলে মানসিক সমস্যা হতে পারে এবং ক্ষুধা কমে যাবার ফলে শারীরিকভাবে দুর্বল হে পড়তে পারে৷''

ডাব্লিউএইচও ২০০৪ সালেও একটি সমীক্ষা চালিয়েছিল৷ তাতে বলা হয়েছিল, পরোক্ষ ধূমপানের ফলে বিশ্বে শতকরা ৪০ ভাগ শিশু, শতকরা ৩৩ ভাগ অধূমপায়ী পুরুষ এবং শতকরা ৩৫ ভাগ অধূমপায়ী নারী ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে৷ তাদের মধ্যে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারাচ্ছেন ৩ লাখ ৭৯ হাজার, ১ লাখ ৬৫ হাজার আক্রান্ত হচ্ছেন বিভিন্ন সংক্রামক রোগে, ৩৬ হাজার ৯শ জন অ্যাজমায় আক্রান্ত হচ্ছেন, এবং ২১ হাজার ৪'শ জন আক্রান্ত হচ্ছেন ফুসফুসের ক্যান্সারে৷

সেধে ডেকে নেওয়া এই নেশাকে অনেকটা ‘লাইফস্টাইল' বলা চলে৷ কিন্তু ধূমপায়ীদের, বিশেষ করে পরিবারের সদস্যদের স্বাস্থ্য সম্পর্কে এই অসচেতনতার ফলে সবচেয়ে বেশি মূল্য দিতে হচ্ছে অধুমপায়ীদেরকে৷

পরোক্ষ ধূমপান কী ভাবে কমানো যায় সেই বিষয়ে ডাক্তার এজাজ আহমেদ বললেন,‘‘বিশ্বে ধূমপানের বিরুদ্ধে একটি আন্দোলন শুরু হয়েছে৷ ধূমপান যারা করে বিভিন্ন জায়গায় তাদের জন্যে পৃথক একটি জায়গা করে দেওয়া হচ্ছে৷ প্রথম কাজ হচ্ছে, ধূমপায়ীদের কাছ থেকে দূরে থাকা এবং ধূমপান যারা করছে তাদেরকে ধূমপান থেকে বিরত রাখা৷ একই সঙ্গে ধূমপানের ক্ষতি সম্পর্কে মানুষ ও সমাজ ব্যবস্থাকে সতর্ক করা, মিডিয়ার মাধ্যমে শিক্ষা দেওয়াও বড় ভূমিকা রাখতে পারে৷''

প্রতিবেদন: ফাহমিদা সুলতানা
সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়