1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বঙ্গোপসাগরে গুলির মুখে ট্রলার, হতাহতের আশঙ্কা

বঙ্গোপসাগরে ৩০০ যাত্রী নিয়ে একটি ট্রলার বিকল হয়েছে৷ যাত্রীরা অবৈধভাবে মালয়েশিয়া যাচ্ছিলেন বলে জানা গেছে৷ গুলির মুখে পড়ে ট্রলারটি বিকল হয়ে যায়৷ কয়েকজন গুলিদ্ধিও হয়েছেন, তবে কারা গুলি করেছে সে সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়নি৷

সংবাদমাধ্যমকে ট্রলারটি বিকল হয়ে যাওয়ার খবরটি প্রথমে জানান ট্রলারের একজন যাত্রী৷ মিঠুন নামের ওই ব্যক্তি মোবাইল ফোনে জানান, সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ট্রলারটি বিকল হয়ে উল্টে যায়৷ ৩০০ যাত্রীর সবাই সাগরে ভাসছেন৷ মিঠুন জানান, আকেটি ট্রলার থেকে মালয়েশিয়া যেতে ইচ্ছুক যাত্রীদের গুলি করা হয়েছে৷

কক্সবাজারের সাংবাদিক আবু তালেব ডয়চে ভেলেক জানান, ট্রলারটিতে গুলি করার খবর তাঁরাও পেয়েছেন৷ গুলিতে কয়েকজন আহত হয়েছেন৷ নিহত হওয়ার খবরও শোনা যাচ্ছে৷ তবে কোনো বিষয়েই নিশ্চিত হওয়া যায়নি৷

এদিকে স্থানীয় জেলেরা জানিয়েছেন, ট্রলারে করে ওই যাত্রীরা গভীর সমুদ্রে থাইল্যান্ডের একটি জাহাজে ওঠার জন্য যাত্রা শুরু করেছিলেন৷ দালালরা তাঁদের মালয়েশিয়ায় চাকরি দেয়ার কথা বলে সমুদ্র পথে নিয়ে যাচ্ছিল৷ পথে ট্রলারটি গুলির মুখে পড়ে৷ গুলিতে হতাহতের ঘটনা ঘটেছে বলেও জেলেরা দাবি করেছেন৷ সেন্টমার্টিনের পূর্ব-দক্ষিণে, বঙ্গোপসাগরে ট্রলারটি এই ঘটনার শিকার হয় বলে জানিয়েছেন তাঁরা৷

ট্রলারে থাকা নরসিংদীর বীরপুরের বাসিন্দা মিঠুন স্থানীয় সাংবাদিকদের মোবাইল ফোনে জানিয়েছেন, সেন্টমার্টিন থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে ৩০০ যাত্রী নিয়ে ট্রলারটি নোঙর করা হয়েছিল৷ ট্রলারটি সেন্টমার্টিন এলাকায় পৌঁছানোর পর আরো কিছু যাত্রীর ওঠার কথা৷ হঠাৎ করে পাশের আরেকটি মালয়েশিয়ান ট্রলার থেকে কিছু লোক এসে তাঁদের ট্রলারে ওঠে৷ যাত্রীদের জোর করে অন্য ট্রলারে ওঠানোর চেষ্টা করলে দু’পক্ষে তর্ক-বিতর্ক শুরু হয়৷ এক পর্যায়ে অন্য ট্রলারে উঠতে অনিচ্ছুক যাত্রীদের উদ্দেশ্যে গুলি ছোড়া হয়৷

গুলির ঘটনার বিষয়ে টেকনাফ কোস্ট গার্ডের স্টেশন কমান্ডার লে. কাজী হারুনুর রশীদ বলেন, ‘‘বঙ্গোপসাগর দিয়ে মালয়েশিয়ায় যেতে হলে ট্রলারগুলোকে মিয়ানমারের জলসীমার কাছ দিয়ে যেতে হয়৷ ট্রলারটি যেহেতু বিকল, তাই স্রোত যেদিকে টানবে, সেদিকেই সেটি ভাসবে৷ সে হিসেবে ট্রলারটি মিয়ানমার সীমান্তের দিকে যেতে পারে৷ সেদিকে গেলে তারা গুলি চালাতে পারে৷’’ তিনি আরো বলেন, ‘‘আমরা ট্রলারের একজনের কাছ থেকে জানতে পেরেছি সেই ট্রলারটিতে গুলি চালানো হয়েছে৷’’

গুলিতে হতাহতের বিষযয়ে জানতে চাইলে লে. কাজী হারুনুর রশীদ জানান, ট্রলারে যাত্রীদের কাছ থেকে তিনি চারজন নিহত হওয়ার কথা জানতে পেরেছেন৷ তবে এ ব্যাপারে কোস্টগার্ড নিশ্চিত নয়৷ বিকল ট্রলারটিকে পাওয়া গেছে৷ কোস্টগার্ডের তিনটি ট্রলারের সঙ্গে বেঁধে সেটিকে সেন্ট মার্টিনের দিকে আনা হচ্ছে৷ সাগর উত্তাল থাকায় কোস্ট গার্ডের কর্মকর্তারা বিকল ওই ট্রলারটিতে উঠতে পারেননি৷ তীরে না আসা পর্যন্ত তল্লাশি করা যাচ্ছে না৷ তাই হতাহতের বিষয়ে প্রকৃত তথ্যও এই মুহূর্তে জানা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন কোস্ট গার্ড কর্মকর্তা লে. কাজী হারুনুর রশীদ৷

মঙ্গলবার রাতে অবৈধ উপায়ে মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য যাত্রীবাহী ট্রলারটি মহেশখালী থেকে রওনা হয়েছিল বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন