1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

বঙ্গবন্ধুর স্নেহধন্য মুক্তিযোদ্ধা সহোদরা অনু ও মনু

দেশমাতৃকার মুক্তির সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েন পটুয়াখালীর বীর সাহসী দুই বোন ড. এস এম আনোয়ারা বেগম এবং মনোয়ারা বেগম৷ সশস্ত্র যুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনীর সদস্যদের পরাস্ত করেছেন, উদ্ধার করেছেন তাদের হাতে আটক নারীদের৷

default

১৯৫৬ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি পটুয়াখালীর কালিকাপুর গ্রামে জন্ম ড. এস এম আনোয়ারা বেগমের৷ পিতা শরীফ হোসেন সরদার এবং মা সোনা বানু৷ পাঁচ বোন, এক ভাই৷ পারিবারিকভাবেই রাজনৈতিক পরিবেশে বেড়ে ওঠেন তাঁরা৷ বড় ভাই সরদার আবদুর রশীদ তখন পটুয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন৷ বড় ভাইয়ের পদাঙ্ক অনুসরণ করে রাজনীতির সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িয়ে পড়েন দুই বোন আনোয়ারা এবং মনোয়ারা৷ পাড়ার লোকেরা তাঁদেরকে অনু আর মনু নামে ডাকত৷


মুক্তিযুদ্ধের আগেই দেশের চলমান পরিস্থিতিতে আন্দোলন সংগ্রামে নিজেদের সক্রিয় কর্মকাণ্ডের কথা জানালেন ড. এস এম আনোয়ারা বেগম৷ তিনি বলেন, ‘‘ভাইয়ের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড ও দেশের তৎকালীন পরিস্থিতি আমাদের মনে নাড়া দেয়৷ দেশের জন্য কিছু করার ইচ্ছে জাগে৷ তখন ভাইয়ের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ি রাজনীতিতে৷ ১৯৬৬ সালের ছয় দফা আন্দোলন ছিল রাজনীতিতে আমার হাতেখড়ি৷ এলাকার সবার মুখে মুখে তখন আমাদের দুই বোনের নাম৷ আন্দোলন সংগ্রামে অংশ নেওয়ার কারণে আমাকে স্কুল থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি আসে৷ তবু থেমে থাকিনি৷ বড় ভাইকে প্রায়ই কারাগারে যেতে হতো৷ আইয়ুব খানের মার্শাল কোর্টে তাঁকে সাজাও দেওয়া হয়৷ ১৯৬৮ থেকেই আন্দোলন সংগ্রামে মেতে ছিলাম আমরা৷ মিছিলে মিছিলে যখন প্রকম্পিত হতো রাজপথ৷ আমরা তখন মিছিলের সামনে অবস্থান করে স্লোগান দিতাম৷''


বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যখন আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় বন্দি ছিলেন, তখন বঙ্গবন্ধুর পরিবারের জন্য এলাকায় মানুষের কাছে গিয়ে সাহায্য চান এবং সাধ্য অনুযায়ী বড় ভাইয়ের মাধ্যমে আর্থিক সহযোগিতা পাঠান তাঁরা৷ ১৯৭০ সালে বঙ্গবন্ধু মুক্তি পাওয়ার পর নির্বাচনের আগে দক্ষিণাঞ্চলের অবস্থা দেখতে যান৷ বঙ্গবন্ধু সরদার আব্দুর রশীদ এবং তাঁর দুই বোনের আন্দোলন সংগ্রামের কথা জানতে পেরে তাঁদের বাসায় যান এবং দুই বোনের মাথায় স্নেহের পরশ বুলিয়ে দেন৷


১৯৭১ সালে পটুয়াখালী সরকারি কলেজের ছাত্রী আনোয়ারা এবং মনোয়ারা৷২৬ মার্চ মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে এলাকার তরুণদের সাথে নিয়ে যুদ্ধের প্রস্তুতি নেন তাঁরা৷ এলাকায় বেশ কিছু বাংকার তৈরি করেন৷ তিন ভাইবোন পটুয়াখালী জুবিলী কলেজের মাঠে অন্য মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে ২৬ মার্চ থেকে প্রায় এক মাস অস্ত্র প্রশিক্ষণ নেন৷ এ খবর পাকিস্তানি হানাদার ও শান্তি বাহিনীর লোকদের কাছে পৌঁছায়৷ তারা তাঁদের ধরার জন্য হন্যে হয়ে খুঁজতে থাকে৷


১১ এপ্রিল আক্রান্ত হয় পটুয়াখালী৷ মেজর নাদের পারভেজ নির্বিচারে মানুষ হত্যা করে৷ মা বোনদের সম্ভ্রমহানি এবং ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালায়৷ মাকে নিয়ে বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে পড়েন তাঁরা৷ এসময় তাঁদের ঝুঁকিপূর্ণ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন আনোয়ারা বেগম৷ ‘‘গ্রামের কাঁচা রাস্তা, খাল, বিল, নদী, সাঁকো পার হয়ে চার পাঁচ দিন পর এক আত্মীয়ের বাসায় আশ্রয় নিই৷ ওই রাতে মাকে সেখানে রেখে আমরা অন্যত্র চলে যাই৷ সে রাতেই হানাদার বাহিনী মাকে ধরে নিয়ে প্রথমে গলাচিপা থানা এবং পরে পটুয়াখালী সদর থানায় চালান করে৷ তখন এলাকায় ঘোষণা করা হয় অনু ও মনুকে জীবিত অথবা মৃত ধরে দিতে পারলে ৫০ হাজার টাকা ও ৩০ ভরি স্বর্ণ পুরস্কার দেওয়া হবে৷ তখন আমাদের আশ্রয় দিতে অনেকেই আপত্তি জানায়৷ তবে নিশানবাড়িয়ার সফিউদ্দিন বিশ্বাস নামের একজন পীর তাঁর মুরিদদের বলেন আমাদের আশ্রয় দিতে৷ তারাও আশ্রয় দিতে ভয় পাচ্ছিল৷ পরে তারা আমাদের আগুনমুখা নদীর ধারে একটি গভীর জঙ্গলে রেখে আসে৷ সেখানে তিন দিন না খেয়ে অবস্থান করি৷ ওই জঙ্গলেও হানাদার বাহিনী ও রাজাকাররা গিয়ে হাজির হয়৷ একদিন প্রায় ধরা পড়েই গিয়েছিলাম৷ পীরের মুরিদ হেলাল নামের এক যুবক জানত আমরা কোথায় লুকিয়ে আছি৷ তাকে ধরে নিয়ে পাকিস্তানি সেনারা জঙ্গলের মধ্যে যায়৷ খুঁজতে খুঁজতে আমাদের লুকিয়ে থাকার জায়গায় এসে পড়ে৷ হেলাল তখন বলে, স্যার, ওইখানে যাবেন না৷ ওখানে বিষধর সাপ আছে৷ ওখানে কোনো মানুষ যায় না৷ হেলালের কথা ওরা বিশ্বাস করে৷ আমরাও সেদিনের মতো বেঁচে যাই৷ ইতিমধ্যে পীরের লোকজন ৯ নম্বর সেক্টরের অধীন সাব সেক্টরের প্রধান মেজর জিয়া উদ্দিনের কাছে আমাদের বিপদের খবর পৌঁছে দেয়৷ একদিন রাত ২টার দিকে মেজর জিয়াউদ্দিন একদল মুক্তিযোদ্ধা পাঠান অস্ত্রশস্ত্রসহ তিনটি বোটে করে৷ তাঁরা এসে আমাদের উদ্ধার করে নিয়ে যান৷''


এসময় দুই বোনের অল্প বয়সের কারণে তাঁদেরকে যুদ্ধে না যাওয়ার পরামর্শ দেন মেজর জিয়া উদ্দিন৷ কিন্তু তাঁর সেই পরামর্শ তোয়াক্কা না করে সশস্ত্র যুদ্ধে অংশ নিতে নিজেদের দৃঢ় প্রতিজ্ঞার কথা জানিয়ে দেন তাঁরা৷ দীর্ঘ নয় মাস নানা প্রতিকূল ও ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতির মাঝে যুদ্ধ করেন আনোয়ারা এবং মনোয়ারা বেগম৷

(ক্রমশ আগামী শনিবার.......)

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন