1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

ফ্রান্স ২০১০: দমেনেক’এর শেষ মিশন

ফরাসি কোচ রেমঁ দমেনেক স্বদেশে ফ্যানদের দুয়ো শুনে, এক কেলেঙ্কারি বিজড়িত দল নিয়ে যাচ্ছেন দক্ষিণ আফ্রিকায়৷ তাঁকে নিয়ে বিতর্ক তো কম নয় এবং কম দিনের নয়৷

default

রেমঁ দমেনেক (মাঝে)

২০০৮-এর ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপে ফ্রান্স প্রথম রাউন্ডে বিদায় নেওয়ার পরই দমেনেক'কেও বিদায় দেওয়ার কথা উঠেছিল - তিনি যে টিঁকে যান, সেটাই আশ্চর্য৷ দমেনেক আবার ব্যাপারটা চরমে তোলেন দলের চূড়ান্ত খেলা শেষ হওয়ার কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই তাঁর বান্ধবী এস্তেল'কে বিয়ের প্রস্থাব দিয়ে, তা'ও আবার টেলিভিশনের পর্দায়৷ এবং সেযাবৎ ফরাসি ফুটবল ফ্যানদের মনোভাব যে বিশেষ বদলায়নি, তার প্রমাণ পাওয়া গেল গত ২৬শে মে লঁস-এ, বিশ্বকাপের আগে স্বদেশে ফরাসি দলের শেষ ওয়ার্ম-আপ খেলায়, কোস্টা রিকা'র বিরুদ্ধে৷ ফ্যানরা দমেনেক'কে দুয়ো দিয়ে কিছু বাকি রাখেনি৷

গোটা কোয়ালিফিকেশনটাই তো ফ্রান্স প্রায় হোঁচট খেতে খেতে পেরিয়েছে৷ এবং থিয়েরি অঁরি'র ‘‘ঈশ্বরের (বাঁ) হাত'' গোলটা ছাড়া আয়ারল্যান্ডও সে সুযোগ থেকে বঞ্চিত হত না, এবং ফ্রান্সও প্লে-অফ মারফৎ দক্ষিণ আফ্রিকা যেতে পারত না৷ পরে স্তাদ দ্য ফ্রঁস'এর ফ্রেন্ডলি'তে ফ্রান্সকে ফুটবল খেলার একটা পাঠ দিয়েছে স্পেন৷ তা'তেও পার পেয়ে যান দমেনেক৷ কিন্তু ফরাসি ফুটবল সমিতি যে বিশ্বকাপের আগেই লরঁ ব্লঁ'কে তার বদলি হিসেবে ঠিক করে বসে আছে, এর ফলে দমেনেকের কর্তৃত্বের যে কি ঘটবে, তা তিনিই জানেন৷ তবে সম্প্রতি একটি ফরাসি পত্রিকার সাক্ষাৎকারে তাঁকে বলতে শোনা গেছে : ‘‘আপনারা আমাকে বোকা ভাবেন৷ আমি কিন্তু একজন বিদ্রোহী৷''

Flash-Galerie WM Fans Frankreich

ফ্যানরা দমেনেক'কে দুয়ো দিয়ে কিছু বাকি রাখেনি

দমেনেক যখন তাঁর ২৩ জনের স্কোয়াডের নামকরণ করেন, তখন দেখা যায় যে তিনি করিম বেঞ্জেমা এবং সমির নস্রি'কে সযত্নে বাদ দিয়েছেন, কেননা এই দু'জনই ইউরো ২০০৮-এ তরুণ এবং অভিজ্ঞ প্লেয়ারদের মধ্যে গোল বাঁধিয়েছিল৷ এর একটি ফল হয়তো এই যে, এবার দলের অভ্যন্তরীণ পরিবেশ ২০০৮-এর তুলনায় অনেক ভালো৷ ২৬শে মে কোস্টা রিকা'র বিরুদ্ধে খেলায় দমেনেক তাঁর স্টার্টিং লাইন-আপ থেকে স্বয়ং ক্যাপ্টেন থিয়েরি অঁরি'কে বাদ দেন৷ আরো বড় কথা, দমেনেক তাঁর প্রিয়, ডিফেন্সিভ ৪-২-৩-১ ফর্মেশন ছেড়ে ৪-৩-৩'এ এসেছেন৷ রবিবার টিউনিশিয়ার বিরুদ্ধে ওয়ার্ম-আপ খেলাতেও ঐ ৪-৩-৩ পদ্ধতি বজায় থাকে - যদিও ফ্রান্স উইলিয়াম গালাস'এর গোলে কোনোক্রমে ১-১ ড্র করে নিজেদের এবং দমেনেকের মুখরক্ষা করে৷ এবং এবারেও স্টার্টিং লাইন-আপে ক্যাপ্টেন থিয়েরি অঁরি ছিলেন না৷

বোঝা যাচ্ছে যে, নতুন পদ্ধতিতে খেলায় অভ্যস্ত হতে ফ্রান্সের আরো কিছুটা সময় লাগবে : পুরনো পরিভাষায় বলা যায়, একজন স্টপারের বদলে দু'জন স্টপার দিয়ে খেলা৷ কিন্তু তারা এ'ভাবে তাদের সাবধানী, বোরিং ট্যাকটিক্স ছেড়ে বেরোতে পারবে, ঠিক যে ট্যাকটিক্সের জন্য তারা সম্প্রতি নিজেদের ফ্যানদের কাছ থেকে গাল খেয়েছে৷

প্রতিবেদন: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়