1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ফ্রান্স

ফ্রান্স ‘বিপথে' গেল না, ইউরোপে স্বস্তির নিঃশ্বাস

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রথম পর্বে প্রচলিত দলগুলির অভূতপূর্ব পরাজয় ঘটলো৷ উঠে এলেন দুই ‘প্রান্তিক' প্রার্থী৷ তবে উগ্র দক্ষিণপন্থি প্রার্থী হালে পানি না পাওয়ায় ইউরোপসহ গোটা বিশ্ব স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললো৷

এমন পরিস্থিতি কল্পনা করা কঠিন৷ দেশের সর্বোচ্চ পদের জন্য নির্বাচন হচ্ছে৷ বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ বা বিএনপি – কেউ সেই পদ পেলেন না৷ অথবা ভারতে বিজেপি অথবা কংগ্রেস৷ ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সেই অসাধ্য সাধন করলেন দুই ‘প্রান্তিক' প্রার্থী৷ রক্ষণশীল ও সমাজতন্ত্রী প্রার্থীদের পেছনে ফেলে প্রথম দুই স্থান দখল করলেন উদার, ইউরোপপন্থি প্রার্থী এমানুয়েল মাক্রোঁ ও দক্ষিণপন্থি ইউরোপবিরোধী প্রার্থী জঁ মারি ল্য পেন৷ এবার আগামী ৭ই মে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দ্বিতীয় পর্বে তাঁদের মধ্যে সরাসরি লড়াই হবে৷

জয়ের ব্যবধান বেশি নয়, তবেএই ঐতিহাসিক নির্বাচনে ফলাফলের গুরুত্বখাটো করে দেখা চলে না৷ মাক্রোঁ পেয়েছেন ২৩.৯ শতাংশ, ল্য পেন ২১.৪ শতাংশ৷ ফ্রান্সের ভোটাররা মূল স্রোতের রাজনৈতিক শক্তিগুলির প্রতি চরম বিরক্তি প্রকাশ করে তাদের শাস্তি দিয়েছেন৷ রক্ষণশীল দলের প্রার্থী ফ্রঁসোয়া ফিয়ঁ ১৯.৯ শতাংশ পেয়ে তৃতীয় স্থান দখল করেছেন৷ ক্ষমতাসীন সমাজতন্ত্রী দলের প্রার্থী বেনোয়া আমোঁ পেয়েছেন মাত্র ৬.৪ শতাংশ৷

প্রথম পর্বে জয়ের পর এমানুয়েল মাক্রোঁ তাঁর সমর্থকদের বলেন, মাসের পর মাস ধরে তিনি ফরাসি ভোটারদের ক্রোধ ও ভয়ের কথা শুনে আসছিলেন৷ তাঁরা পরিবর্তন চাইছিলেন বলেও শুনেছিলেন৷ মাক্রোঁ বলেন, এবার তিনি তাঁদের প্রত্যাশা পূরণ করতে ফরাসি রাজনীতির ভোল বদল করতে ও দেশকে আধুনিক করার কাজে মন দিতে চান৷ জাতীয়তাবাদের হুমকির মোকাবিলা করতে নির্বাচনের দ্বিতীয় পর্বে তিনি সব দেশপ্রেমীদের ঐক্যবদ্ধ করতে চান৷

উগ্র দক্ষিণপন্থি প্রার্থী ল্য পেন-এর জন্য প্রথম রাউন্ডে এই পরাজয় হজম করা মোটেই সহজ নয়৷ অনেক জনমত সমীক্ষায় তিনি এগিয়ে ছিলেন৷ গত কয়েক বছরে তিনি পেশাদারী দক্ষতার সঙ্গে তাঁর দলকে ক্ষমতায় আসার জন্য প্রস্তুত করে আসছিলেন৷ তারপর নির্দলীয়, আনকোরা নতুন এক প্রার্থী তাঁকে অতিক্রম করে এগিয়ে যাওয়ায় বেশ বড় ধাক্কা খেলেন তিনি৷ ফ্রান্সের নির্বাচনি ইতিহাসে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দ্বিতীয় পর্বে এতকাল সব দল তাদের কোন্দল ভুলে দক্ষিণপন্থিদের বিরুদ্ধে একজোট হয়ে এসেছে৷ অতএব আগামী ৭ই মে এমানুয়েল মাক্রোঁ বিপুল ভোটে জয়লাভ করবেন, এমনটাই আশা করা যায়৷ দুই বড় দল অবিলম্বে মাক্রোঁ'র প্রতি সমর্থন জানিয়েছে৷ সেই ব্যবধান যতটা সম্ভব কমানোই হবে ল্য পেনের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ৷

ফ্রান্সের নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশিত হবার পর ইউরো-র বিনিময় মূল্য এক ধাক্কায় বেড়ে গেছে৷ আর্থিক বাজার স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে৷ জার্মান সরকারের এক মুখপাত্র ইউরোপপন্থি প্রার্থী মাক্রোঁ-র সাফল্যে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন৷ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিগমার গাব্রিয়েল বলেছেন, তিনি নিশ্চিত যে এমানুয়েল মাক্রোঁ ফ্রান্সের আগামী প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন৷ জার্মানির আসন্ন নির্বাচনে এসপিডি দলের প্রার্থী মার্টিন শুলৎস-ও সন্তোষ প্রকাশ করেছেন এবং ফ্রান্সের সব গণতন্ত্রমনস্ক মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হবার ডাক দিয়েছেন৷

এসবি/এসিবি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়