1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ফ্রান্সের এক দ্বীপে শান্তির নীড়

শহরের ব্যস্ততা, কোলাহল থেকে পালিয়ে যেতে কার না মন চায়৷ এক ফরাসি স্থপতি দম্পতি এক দ্বীপের মধ্যে নিজেদের জন্য এমনই এক শান্তির নীড় সৃষ্টি করেছেন৷ অভিনব স্থাপত্যশৈলির ফলে বাড়িটি নজর কাড়ার মতো৷

ভিডিও দেখুন 04:03

অভিনব এক বাড়ির কথা

ফ্রান্সের পশ্চিম উপকূল থেকে নৌকায় মাত্র ৪৫ মিনিট গেলেই অ্যাটলান্টিক মহাসাগরে অপরূপ এক দ্বীপ চোখে পড়বে৷ নাম ‘বেল ইল অঁ ম্যার' – অর্থাৎ সমুদ্রের মাঝে সুন্দর দ্বীপ৷

এই দ্বীপে বাড়ি নির্মাণের কড়া নিয়ম রয়েছে৷ তথাকথিত নিও-ব্রেটোনিয়ান রীতিতে এই বাড়িটি তৈরি করা হয়েছে৷ ভারি গ্র্যানাইট পাথরের প্রাচীরের ভেতর এক প্রাকৃতিক বাতাস চলাচলের প্রণালী লুকিয়ে রয়েছে৷ স্থপতি ব্রুনো দ্যক্রে-র মাথায় এই আইডিয়া এসেছিল৷

দ্বীপের মধ্যে নিজের এই অভিনব বাড়িতে স্বাগত জানালেন দ্যক্রে৷ সংক্ষিপ্ত পরিচয়ও দিলেন৷ বললেন, ‘‘আমরা বসার ঘরে এসেছি৷ এটিই বাড়ির সবচেয়ে বড় ঘর৷ ইচ্ছা করেই ঘরটি সাদামাটা ও বাহুল্যবর্জিত করে সাজানো হয়েছে৷ পুরোটাই সাদা৷ দেখলে মনে হয় তুলোর মতো, যেন কোনো সীমানা নেই৷ তুলোর মতো বসার ঘরের বিপরীত মেরু হিসেবে শক্ত পাথরের প্রাচীর রয়েছে, যদিও চট করে সে ভাবে চেনা যায় না৷ সেটি আয়নার মতো নিসর্গ তুলে ধরে৷''

ব্রুনো দ্যক্রে স্ত্রী আনিয়েস-এর সঙ্গে দোতলা বাড়িটি ডিজাইন করেছেন৷ আকার-আয়তনে ১২০ বর্গ মিটার৷ প্যারিসে এই স্থপতি দম্পতির সদর দপ্তর রয়েছে৷ দ্বীপের বাড়িটি ছুটি কাটানোর জন্য তৈরি করেছেন তাঁরা৷ ব্রুনো বলেন, ‘‘এটা রান্নাঘর, যদিও সংজ্ঞা অনুযায়ী ঘরটা মোটেই সে রকম নয়৷ কারণ এটি বসার ঘরেরই অংশ৷ অর্থাৎ এখানেই সবচেয়ে বেশি ব্যস্ততা, সবাই এখানে কিছু না কিছু করছে৷ রান্নাঘরটি পুরোপুরি উন্মুক্ত এবং চোখে পড়ার মতো নয়৷''

রান্নাঘর থেকে কয়েক পা এগোলেই সিঁড়ি৷ উঠে গেলে শোবার ঘরে পৌঁছানো যায়৷ ব্রুনো দ্যক্রে বলেন, ‘‘এটা হলো শোবার ঘর, যার কনসেপ্ট বসার ঘরের মতো৷ এখানেও সাদা রং, সাদামাটা জিনিসপত্র৷ বাড়ি নির্মাণের সব রকম বাধ্যবাধকতা সত্ত্বেও আমরা বড় ঘর সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছি৷''

দ্বীপের জলবায়ু তুলনামূলকভাবে উষ্ণ৷ ফলে বাড়ির পরিবেশও বেশ মনোরম৷ দোতলায় কাজের ঘর৷ ব্রুনো সেখানে বসেই বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ করেন৷ বাড়ির বাঁকানো ছাদ ভেদ করে আলো ঢুকতে পারে বলে বেশ খোলামেলা উষ্ণ পরিবেশ সৃষ্টি হয়৷

দ্যক্রে পরিবারের ছুটি কাটানো বাড়ি থেকে অ্যাটলান্টিক উপকূলের দূরত্ব এক কিলোমিটারেরও কম৷ এমন শান্ত পরিবেশে হাঁটার মজাই আলাদা৷ প্যারিস শহরের ব্যস্ততা ও হই-হট্টগোল থেকে পালানোর আদর্শ জায়গা৷ বাড়ির পেছনে রয়েছে প্রায় ২০০ বর্গমিটার বড় বাগান৷ ব্রুনো দ্যক্রে বলেন, ‘‘এই বাগান দু'ভাগে বিভক্ত৷ এখানে গাছপালা ছাড়াও জলপাই গাছের কাছে অনেক পাথর রয়েছে৷ প্রতি বছর গাছে অনেক ফল হয়৷ আমাদের আশা, শীঘ্রই অলিভ অয়েল তৈরি করতে পারবো৷''

বাড়ি ও বাগান দেখিয়ে আমাদের কাছ থেকে বিদায় নিলেন মালিক৷ ‘বেল ইল অঁ ম্যার' ফ্রান্সের মধ্যে এক স্বর্গরাজ্যের মতো৷

প্রতিবেদন: মেগিন লেই/এসবি

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়