1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ফ্রাইব্যার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার রোমাঞ্চ

জার্মানির স্যাক্সনি রাজ্যের শহর ফ্রাইব্যার্গ রুপোর শহর হিসেবে পরিচিত৷ সেখানকার বিশ্ববিদ্যালয় ছোট হলেও গবেষণার মান যথেষ্ট উঁচু৷ ইরান থেকে আসা এক গবেষক শহরটির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছেন৷

ফ্রাইব্যার্গ শহরে থাকতে ও কাজ করতে আমি খুবই স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি৷ কখনো সপ্তাহান্তেও কাজ করতে ইচ্ছা করে৷ তখন সাইকেলে করে ইনস্টিটিউটে চলে যাই৷ আমার নাম জাভাদ মোলা, বয়স ৩৪৷ আমি ইরান থেকে এসেছি৷ আমি ‘ফিজিকাল মেটালার্জি' বিশেষজ্ঞ৷ আমি ফ্রাইব্যার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের লৌহ ও ইস্পাত গবেষণা ইনস্টিটিউটে কাজ করি৷

গোটা বিশ্বে সবচেয়ে ব্যবহৃত উপাদানের মধ্যে কংক্রিটের পরেই ইস্পাতের স্থান৷ তবে ইস্পাতের নানা প্রয়োগ রয়েছে৷ এটা একটা পুরনো বিষয়৷ অনেকে বছরের পর বছর ধরে ইস্পাত নিয়ে পড়াশোনা করেন৷ তখন আমি বুঝতে পারলাম, যে একেবারে নতুন ধরনের ইস্পাতও রয়েছে৷ একটু রদবদল ঘটিয়ে, মাইক্রো স্ট্রাকচারে পরিবর্তন এনে গুণাগুণ বাড়িয়ে তোলা সম্ভব৷

আমার বর্তমান কাজ স্টেনলেস স্টিল নিয়ে৷ এতে মরচে পড়ার সম্ভাবনা কম৷ সাধারণত চৌম্বক গুণাগুণহীন এই ইস্পাতের মধ্যে অনেক নিকেল থাকে৷ অ্যালয় হিসেবে নিকেল অত্যন্ত দামি৷ এর বদলে আরও সস্তার উপাদান কাজে লাগাতে চাই আমরা৷

এই বিশ্ববিদ্যালয় তেমন বড় না হলেও আমার মতে, এখানে গবেষণার মান খুবই ভালো৷ কারণ আমরা খুবই উচ্চ মানের যন্ত্রপাতি ব্যবহার করার সুযোগ পাই৷ তার একটা বড় অংশ ক্যাম্পাসেই রয়েছে৷

বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রছাত্রীদের সংখ্যা মাত্র ৪ হাজারের মতো৷ জার্মান গবেষণা ফাউন্ডেশনের অর্থ সাহায্যে দুটি রিসার্চ সেন্টারও রয়েছে৷ আমি একটি সাব-প্রজেক্টের যৌথ নেতৃত্ব দিচ্ছি৷ ইস্পাতের সঙ্গে সেরামিক্স মিলিয়ে কম্পোজিট মেটিরিয়াল তৈরি এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য৷ এই মুহূর্তে বিষয়টি গবেষণার পর্যায়ে রয়েছে৷ তবে ভবিষ্যতে গাড়ি তৈরি সহ বিভিন্ন শিল্পে এর প্রয়োগ ঘটবে৷

প্রায় ২৫০ বছর পুরনো এমন এক ঐতিহ্যবাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকতে পেরে খুবই খুশি৷ এখানকার অনেক গবেষকই বিখ্যাত৷ যেমন আলেক্সান্ডার ফন হুমবোল্ট৷ তিনি ফ্রাইব্যার্গ-এ এসে কিছু লেকচার শুনেছিলেন৷

ফ্রাইব্যার্গ শহরের গবেষকরা রসায়নের মৌলিক তালিকার দুটি পদার্থ আবিষ্কার করেছিলেন৷ এগুলি হলো ইন্ডিয়াম ও জার্মেনিয়াম৷ ৮০০ বছরেরও বেশি সময় জুড়ে ফ্রাইব্যার্গ ও আশেপাশের এলাকায় ধাতুর খনি রয়েছে৷ অনেক রুপোর খনি থাকার ফলে শহরটিকে ‘সিলভার টাউন'-ও বলা হয়৷ শহরের পুরনো অংশে নানা ধরনের ধাতুর দারুণ এক রঙিন সংগ্রহ রয়েছে৷ তবে মনে রাখতে হবে, ধাতুর জন্য বিখ্যাত এক শহরকে ইস্পাত কেন্দ্রে পরিণত হতে অনেক সময় লেগেছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়