1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ফেসবুক ‘পরিষ্কারের' দায়িত্ব নিলেন জার্মান ব্যঙ্গনবিশরা!

মেয়েদের দিকে পাথর ছুড়ে মারলে সমস্যা নেই, সমস্যা শুধু উন্মুক্ত স্তনবৃন্ত নিয়ে! তাই স্তনবৃন্ত দেখানো ভিডিও ডিলিট করতে হবে৷ এসব নিয়েই জার্মানির একটি কমেডি গোষ্ঠী ফেসবুকের ‘কাস্টমার কেয়ার' সার্ভিস চালু করেছে৷ কীভাবে? পড়ুন৷

ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক সাকারবার্গ এবং জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল জার্মানির প্রথম ফেসবুক-পুলিশ তৈরির পথে জোটবদ্ধ হয়ে কাজ করছেন৷ তবে তার আগেই, সেই ফেসবুক-পুলিশের কাজ কেমন হবে – তা একটি ব্যঙ্গাত্মক ভিডিও-র মাধ্যমে দেখিয়ে দিল জার্মানিরই অনলাইনভিত্তিক কমেডি গ্রুপ ‘দ্য বহেমিয়ান ব্রাউজার ব্যালে'৷

বহু পুরনো এক বীমা কোম্পানির বিজ্ঞাপনের আদলে তৈরি এই ভিডিও-টিতে ফেসবুক ‘কাস্টমার কেয়ার' সার্ভিসের একটি কাল্পনিক অফিস সেটআপ দেখানো হয়েছে, যার প্রধানের কল্পিত চরিত্রে অভিনয় করেছেন মেইক ড্রেভেল৷

ভিডিও-র শুরুতে এক কর্মীকে ড্রেভেলের কাছে ছুটে আসতে দেখা যায়৷ তিনি এসেই ফেসবুকে এক নারীর দিকে পাথর ছুঁড়ে মারার একটি ভিডিও মুছে ফেলা উচিত কিনা জিজ্ঞাসা করেন৷ ড্রেভেলের একেবারে সোজাসুজি উত্তর – ‘না'৷

কিন্তু সেই কর্মী যখন জানান যে, সেই ভিডিও-টির এক পর্যায়ে মেয়েটির ব্লাউজের ফাঁকা অংস দিয়ে স্তনবৃন্ত দেখা যাচ্ছে, তখন সেটি ‘ডিলিট' করতে বা মুছে ফেলতে বলেন ‘কাস্টমার কেয়ার' সার্ভিসের কল্পিত এই প্রধান৷

ফেসবুকের নীতির সমালোচনা

এখানেই সেষ নয়৷ ব্যঙ্গাত্মক ঐ ভিডিও-টিতে ফেসবুক কাস্টমার কেয়ার সার্ভিসের বিভিন্ন কর্মীর সঙ্গে পরিচয়ও করিয়ে দেয়া হয়৷ এঁদের একজন মাদকাসক্ত, আরেকজন পর্নোগ্রাফিক ভিডিও সরানো উচিত কিনা তা খতিয়ে দেখার সময় হস্তমৈথুন করছিলেন আর তৃতীয়জনকে দেখা যাচ্ছিল মানসিকভাবে ভেঙে পড়তে৷ তাঁকে সেবা করছিলেন দু'জন মনস্তাত্ত্বিক৷

দু'মিনিটের ভিডিওতে ড্রেভেল জানিয়েছেন যে, তাঁদের প্রত্যেক কর্মীর জন্য দু'জন করে মনস্তাত্ত্বিক রয়েছেন৷ এছাড়া ভিডিও-টিতে তথকথিত ‘হেট স্পিচ' মুছে ফেলার ক্ষেত্রে ফেসবুকের অস্বচ্ছ নীতিমালার সমালোচনাও করা হয়েছে৷ বলা হয়েছে, ফেসবুক থেকে অতিরিক্ত যৌনতা বিষয়ক ‘পোস্ট' মুছে ফেলা হলেও, সহিংসতা দেখানো হচ্ছে এমন অনেক ‘পোস্ট' সাইটটিতে থেকে যাচ্ছে৷

‘দ্য বহেমিয়ান ব্রাউজার ব্যালে' দলটি নিজেদের জার্মানিতে ইন্টারনেটভিত্তিক ‘একমাত্র আনুষ্ঠানিক ব্যালে' হিসেবে দাবি করেচে৷ এরা কার্যত কমেডিয়ান, সংগীতজ্ঞ এবং বিনোদনকারীদের একটি গ্রুপ৷ এর আগে এক জার্মান রাজনীতিবিদের সঙ্গে পুলিশের কোন্দলের সময় হামলাকারীদের পায়ে গুলি করার পরামর্শ নিয়ে অন্য একটি ভিডিও তৈরি করেও ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল গ্রুপটি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়